১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে আটক ৫

ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে আটক ৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ফেসবুকে গুজব ছড়িয়ে এবং বিভ্রান্তিমূলক বই ছাপিয়ে তা প্রচার করে নিরাপদ সড়ক দাবির আন্দোলনকারীদের নাশকতা চালাতে উস্কে দেয়ার অভিযোগে টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিবিরের তিন ছাত্রসহ পাঁচ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। অপর দুইজন ছাপাখানার মালিক। তারা উগ্র ও বিভ্রান্তিমূলক বইপুস্তক ছাপিয়ে তা প্রচার করে নিরাপদ সড়কের দাবিতে গড়ে ওঠা আন্দোলনকে সরকার বিরোধী আন্দোলনে রূপ দেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছিল।

গত ২৯ জুলাই রবিবার দুপুরে রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এমইএস বাসস্ট্যান্ডে প্রতিদিনের মত যানবাহনের জন্য অপেক্ষারত শিক্ষার্থীদের চাপা দেয় যাত্রীবাহী জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস। এতে ঘটনাস্থলেই শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী দিয়া খানম মীম ও বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র আব্দুল করিম রাজিব নিহত হয়। আহত হয় অন্তত ১৫ শিক্ষার্থী। এ ঘটনার পর থেকেই সারাদেশে নিরাপদ সড়কের দাবিতে চলা আন্দোলনের সময় চার ছাত্রকে হত্যা এবং চার ছাত্রীকে ধর্ষণ করার গুজব ছড়িয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির কার্যালয়ে হামলাসহ সারাদেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টা চলে।

মঙ্গলবার র‌্যাব-২ আন্দোলনের সময় গুজব ছড়ানোর দায়ে ধানমন্ডি থেকে আকতারুজ্জামান টনি (২২), আসাদুল্লাহ আল গালিব (২২) ও মুনইম সরকারকে (২৩) গ্রেফতার করে। র‌্যাব সদর দফতরের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান জানান, গ্রেফতারকৃতরা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও শিবির কর্মী। আন্দোলনের সময় তারা তাদের ব্যবহৃত ব্যক্তিগত মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করে ফেসবুকের আইডি থেকে নিরাপদ সড়ক আন্দোলনকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত ও দীর্ঘায়িত করে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটানোর জন্য বিভিন্ন রকম স্ট্যাটাস দিয়েছিল। দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর পরই তারা উদ্দেশ্যমূলকভাবে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সহিত সংহতি প্রকাশ করে ফেসবুকে বিভিন্ন ধরনের মিথ্যা, বানোয়াট ছবি, গুজব, বানোয়াট ভিডিও ছেড়ে দেয়। তারা তিনজনই বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে থাকে।

অন্যদিকে র‌্যাব-১০ মঙ্গলবার রাজধানীর মিরপুর থেকে উগ্র ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য সংবলিত বিপুল পুস্তকসহ প্রকাশক ও ছাপাখানার দুই মালিককে গ্রেফতার করেছে। র‌্যাব জানায়, রাজনৈতিক পরিস্থিতি উত্তপ্ত করার উদ্দেশ্যে এবং নিরাপদ সড়ক আন্দোলনকে সরকার বিরোধী আন্দোলনে রূপ দিতে সিলেটের একটি ছাপাখানায় গোপনে একটি ছাপিয়ে তা ঢাকায় প্রচার করার জন্য প্রস্তুতি চলছিল। বইয়ের পান্ডুলিপি ও ছাপাকৃত বইসহ আবদুর রহমান নূর রাজন ওরফে রাজন বেপারী (৩২) ও মেহেদী আরজান ইভানকে (৩৭) গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা কারাগারে বন্দি একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির মিথ্যা তথ্য সংবলিত জবানবন্দি, মামলার এজাহারের অভিযোগ ও অভিযোগপত্র ছাপানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিল। বইতে সুশীল সমাজের কতিপয় ব্যক্তির মন্তব্য সন্নিবেশ করে তা গোপনে প্রকাশ করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতদের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, তারা মূলত অনলাইন একটিভিস্ট ও সাইবার এনালিস্ট। তাদের কাছ থেকে জব্দ হওয়া মোবাইল ফোন ও ল্যাপটপে নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের সময় ফেসবুক ও সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে উস্কানীর বিভিন্ন পোস্ট পাওয়া গেছে। তারা বইটি বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে ছাপিয়ে আদালত সর্ম্পকে মানুষকে বিভ্রান্তিমূলক ধারণা দিতে চেয়েছিল। যাতে আদালতের বিরুদ্ধে গণরোষ সৃষ্টি হয়। এসব বই সারাদেশে ছড়িয়ে দিয়ে মানুষের মধ্যে সরকার ও আদালত বিরোধী মনোভাব সৃষ্টি করে দেশে অরাজক ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির পরিকল্পনা করা হয়েছিল।