২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রিক্সা, ভ্যান বা বাইকে ওড়না পেঁচিয়ে দুর্ঘটনা বাড়ছে

রিক্সা, ভ্যান বা বাইকে ওড়না পেঁচিয়ে দুর্ঘটনা বাড়ছে

জান্নাতুল মাওয়া সুইটি ॥ নাগরিক অসচেতনতায় দিন দিন বাড়ছে বিভিন্ন যানবাহনে ওড়না পেঁচিয়ে ভয়ঙ্কর সব দুর্ঘটনা। বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর বিশ্বরোড এলাকায় রিক্সায় স্বামী ও সন্তান নিয়ে যাচ্ছিলেন তানিয়া (ছদ্মনাম)। এ সময় স্বামীর সঙ্গে কথা বলছিলেন তিনি। পথিমধ্যে হঠাৎই তিনি আবিষ্কার করেন তার গলায় ওড়না পেঁচিয়ে যাচ্ছে। মুহূর্তেই তানিয়ার ঘাড় বাম দিকে বাঁকা হয়ে যায়। তার চিৎকারে রিক্সাওয়ালা কোনমতে ব্রেক করেন। প্রায় লাফিয়েই রিক্সা থেকে নেমে পড়েন তানিয়া। তিনি গলায় প্রচ- ব্যথা পান। এদিকে দেখা যায়, রিক্সার বাম চাকার সঙ্গে তানিয়ার ওড়না প্রায় অনেকখানি পর্যন্ত পেঁচিয়েছে। আরেকটু হলেই বুঝি তানিয়ার প্রাণ যেত।

শুধু তানিয়া নন বরং অনেক নারীই এ ধরনেই সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকেন। তবে এ নিয়ে আরও সাবধান হওয়ার বিষয়টি নিয়ে হয়ত কেউই তেমন মাথা ঘামান না। অথচ সামান্য অসাবধানতার কারণেই ঘটতে পারে অনেক দুর্ঘটনা। বর্তমানে অনেক নারী রাস্তায় চলার সময় রিক্সায়, মোটরসাইকেল কিংবা ভ্যানে ওড়না বা শাড়ির আঁচল পেঁচিয়ে ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনার সম্মুখীন হচ্ছেন। তানিয়ার ঘটনাটিও একটি উদাহরণ। এ ধরনের ঘটনা বেড়েই চলেছে। অসতর্ক হয়ে রাস্তায় চলাচলের কারণে নারীরা মূলত এ ধরনের দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

২০১৭ সালে চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে ১০৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির বার্ষিক প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে আসে। ওই সংগঠনের বার্ষিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে ১১ জন, ফেব্রুয়ারিতে ১৫ জন, মার্চে ১১ জন, এপ্রিলে ৯ জন, মে মাসে ১৫ জন, জুলাই মাসে ৯ জন, অক্টোবরে ১১ জন, নবেম্বরে ৯ জন ও ডিসেম্বরে ১৩ জন মারা যান।

এ বিষয়ে মানবাধিকারকর্মী আইনজীবী সালমা আলী বলেন, ‘আমাদের দেশে যেখানে ওড়না নামক কাপড়ের ফালিকে নারীর জন্য অত্যাবশ্যক বানিয়ে ফেলা হয়েছে সেখানে একবারও এটা ভেবে দেখা হচ্ছে না এটা আদৌ নারীর প্রয়োজন বা নারীর জন্য কমফোর্টেবল কি-না। এবং আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলছি তা প্রাত্যহিক জীবন, কর্মক্ষেত্র, রাস্তাঘাট, বিশেষত যানবাহনে চলাচলের সময় নানানরকম বিঘœ সৃষ্টির পাশাপাশি ঘটছে ভয়ঙ্কর বিপদ।