২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিএনপি নেতাদের বিদেশ যাত্রা রাজনীতির দৈন্যতারই বহিঃপ্রকাশ : ড. হাছান মাহমুদ

বিএনপি নেতাদের বিদেশ যাত্রা রাজনীতির দৈন্যতারই বহিঃপ্রকাশ : ড. হাছান মাহমুদ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ বিএনপি নেতাদের বিদেশ যাত্রা তাদের রাজনীতির দৈন্যতারই বহিঃপ্রকাশ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, আমরা রাজনীতি করি জনগনের জন্য। আমাদের কোন বক্তব্য বা অভিযোগ থাকলে তা আমরা জনগনকে বলি। বিএনপি জাতিসংঘে যাওয়ার মাধ্যমে এটিই প্রমাণ করেছে বাংলাদেশের মানুষের উপর তাদের কোন আস্থা নাই। তার (বিএনপি) নালিশ দেশের জনগনকে না দিয়ে বিদেশে গিয়ে বিদেশীদের কাছে উপস্থাপন করছে। এটি তাদের জনগনের উপর তাদের আস্থাহীনতারই বহির্প্রকাশ।

বৃহস্পতিবার ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ের নতুন ভবনে আওয়ামী লীগ প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির নিয়মিত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার সুবিধার্থে কারা অভ্যন্তরে যে আদালত স্থাপন করা হয়েছে সেখানে তিনি হাজির হননি। অথচ এই মামলার বিচারিক কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা ছিল আরও ছয় মাস আগে। কিন্তু বেগম জিয়া ও তাঁর আইনজীবিরা অসুস্থতার অজুহাত দেখিয়ে আদালতে হাজির করেননি। প্রকৃতপক্ষে দেশের আইন ও আদালত বেগম জিয়া, বিএনপি এবং তাঁদের আইনজীবি প্যানেল কর্তৃক প্রচন্ডভাবে হেনস্তার স্বীকার। আমরা আশা করবো, বিএনপি দেশের আইন এবং আদালতকে সমুন্নত রাখার ক্ষেত্রে কাজ করবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, কর্ণেল তাহেরের বিচার এবং বেগম খালেদা জিয়ার জন্য আদালত স্থাপন দুটি ভিন্ন। কর্ণেল তাহেরের বিচার হয়েছিল ক্যামেরা ট্রায়াল। জনসাধারণের প্রবেশ সেখানে নিষিদ্ধ ছিল, এমনকি সাংবাদিকদেরও সেখানে প্রবেশাধিকার ছিলো না। প্রকৃতপক্ষে সেটি গোপন বিচার করা হয়েছিল। আর বেগম খালেদা জিয়াকে যেখানে রাখা হয়েছে তার কাছাকাছি একটি পরিত্যক্ত ভবনে তাঁর সুবিধার্থে আদালত স্থাপন করা হয়েছে। সেটি একটি ওপেন আদালত, যেখানে আইনজীবি, সাংবাদিকসহ সবাই যেতে পারেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলামসহ প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির সদস্যবৃন্দ।

নির্বাচিত সংবাদ