১৬ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদের উড়ন্ত সূচনা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সুপারস্টার ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো চলে গেছেন তাঁবু ছেড়ে। শুধু তাই নয় টানা তিন মৌসুম চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জেতানো কোচ জিনেদিন জিদানও নেই গ্যালাক্টিকো শিবিরে। এতে অবশ্য মুকুট ধরে রাখার মিশনে মোটেও সমস্যা হয়নি ১৩ বারের চ্যাম্পিয়নদের। বুধবার রাতে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ২০১৮-১৯ মৌসুমে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সহজ জয় পেয়েছে রিয়াল। ঘরের মাঠ সান্টিয়াগো বার্নাব্যুতে ‘জি’ গ্রুপের ম্যাচে সর্বশেষ তিন আসরের চ্যাম্পিয়নরা ৩-০ গোলে হারিয়েছে গতবার সেমিফাইনালে খেলা ইতালিয়ান ক্লাব এ এস রোমাকে। রিয়ালের জয়ে রোনাল্ডোর অভাব বুঝতে দেননি গ্যারেথ বেল, ইস্কোরা।

এই নিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের গত সাতটি ম্যাচেই রিয়ালের কাছে হারের স্বাদ পেয়েছে রোমা। ইতালিয়ান জায়ান্টরা চ্যাম্পিয়ন্স লীগে তাদের শেষ ছয়টি এ্যাওয়ে ম্যাচেও জয়হীন আছে। গ্রুপের আরেক ম্যাচে চেক প্রজাতন্ত্রের ভিক্টোরিয়া প্লাজেন ও রাশিয়ার সিএসকেএ মস্কো ২-২ গোলে ড্র করে। ‘এফ’ গ্রুপের ম্যাচে বড়সড় ধাক্কা খেয়েছে ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার সিটি। ঘরের মাঠ ইতিহাদ স্টেডিয়ামে পেপ গার্ডিওলার সিটি ১-২ গোলে হেরেছে ফরাসী ক্লাব অলিম্পিক লিঁওর কাছে। শাখতার ডোনেস্ক ও হোফেনহেইমের মধ্যকার গ্রুপের অপর ম্যাচটি ২-২ গোলে ড্র হয়। টানা চতুর্থবার ইউরোপের সর্বোচ্চ আসরে শিরোপা জয়ের লক্ষ্য নিয়ে মিশন শুরু করা জুলেন লোপেটেগুইয়ের শিষ্যরা প্রথম ম্যাচে প্রত্যাশিত শুরু করেছে। রোনাল্ডোকে ছাড়া রিয়ালের এটাই ছিল চ্যাম্পিয়ন্স লীগের প্রথম ম্যাচ। আর সি আর সেভেনের অনুপস্থিতিতে সেট পিসের দায়িত্ব পড়ে ইস্কোর ওপর। বিরতির ঠিক আগ মুহূর্তে দারুণ এক স্ট্রাইকে স্প্যানিশ তারকা ২৫ গজ দূর থেকে রিয়ালকে এগিয়ে দেন। গত বছর ফাইনালে লিভারপুলের বিপক্ষে গোল করা বেল ৫৮ মিনিটে লুকা মডরিচের পাস থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। স্টপেজ টাইমে মারিয়ানো দলকে তৃতীয় গোল উপহার দেন।

ম্যাচ শুরুর চতুর্থ মিনিটেই বেল গোল করার দারুণ একটি সুযোগ হাতছাড়া করেন। টনি ক্রুসের দারুণ একটি লফটেড পাস থেকে বেলের শট পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায়। এর পরপরই ইস্কোর শট দারুণভাবে রুখে দেন রোমা গোলরক্ষক রবিন ওলসেন। এরপর ক্রুস ও বেল আরও দুটি সুযোগ হাতছাড়া করেন। সার্জিও রামোসের হেড দারুণ দক্ষতায় ওলসেন কর্নারের মাধ্যমে রক্ষা করেন। তবে বিরতিতে যাওয়ার আগে আর শেষ রক্ষা হয়নি। ড্যানিয়ের ডি রোসি ইস্কোকে ফাউল করলে ফ্রিকিক পায় রিয়াল। স্প্যানিশ তারকা দুর্দান্ত কার্লিং ফ্রিকিকে ওলসেনকে পরাস্ত করে ডেডলক ভাঙ্গেন। থিবাট কর্কুয়ার পরিবর্তে এই ম্যাচে মাদ্রিদের গোলবার সামলানোর দায়িত্ব পান কেইলর নাভাস। কোচের আস্থার প্রতিদানও দিয়েছেন তিনি। বিরতির পরপরই চেনগিজ আন্ডারের শট রুখে দেন নাভাস। বেলের ডিফ্লেকটেড শট ক্রসবার দিয়ে বাইরে চলে যায়। কিন্তু ৫৮ মিনিটে বেল আর হতাশ করেননি। মডরিচের অসাধারণ একটি পাস থেকে বাম পায়ের জোরালো শটে বেল ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। বদলি খেলোয়াড় মার্কো এ্যাসেনসিও তৃতীয় গোলটি প্রায় করেই ফেলেছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাকে হতাশ হতে হয়। তবে মারিয়ানো কোন ভুল করেননি। স্টপেজ টাইমে গোল করে লিঁও থেকে ফেরার পর প্রথম ম্যাচটিই স্মরণীয় করে রাখলেন ডমিকিন রিপাবলিকের এই ফরোয়ার্ড।

ফরাসী ক্লাব লিঁওর কাছে হারের মধ্য দিয়ে ঘরের মাঠ ইতিহাদ স্টেডিয়ামে চ্যাম্পিয়ন্স লীগে হতাশাজনক যাত্রা শুরু করেছে প্রিমিয়ার লীগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি। ম্যাকওয়েল করনেট ও নাবিল ফকিরের গোলে দুর্দান্ত জয় পেয়েছে অতিথিরা। টাচলাইন নিষেধাজ্ঞার কারণে সিটি বস পেপ গার্ডিওলাকে স্ট্যান্ড থেকে দলের এই হার দেখতে হয়েছে। পুরো ম্যাচেই অবশ্য সিটির আধিপত্য ছিল। কিন্তু লিঁও আক্রমণভাগে ছিল অপ্রতিরোধ্য। সিটি রক্ষণভাগকে তারা পুরো ম্যাচেই বেশ ব্যস্ত রেখেছিল। দিনের শেষে তার ফলও পেয়েছে। বল ও পজিশনের দিক থেকে সিটি এগিয়ে থাকলেও মধ্যমাঠে ব্রাজিলিয়ান তারকা ফার্নান্ডিনহোর দুই ভুলে লিঁও দুই গোল করার সুযোগ পায়। প্রথমার্ধেই দুই গোলে পিছিয়ে পড়া সিটি আর ম্যাচে ফিরে আসতে পারেনি। ৬৭ মিনিটে লিঁওরে সানের সহায়তায় বার্নান্ডো সিলভা এক গোল পরিশোধ করলেও তা হার এড়াতে যথেষ্ট ছিল না। এই পরাজয়ে প্রথম ইংলিশ দল হিসেবে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ইতিহাসে টানা চার ম্যাচ হারের হতাশা নিতে হয়েছে সিটিজেনদের।