১৮ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এক মাসে ন্যাশনাল লাইফের পরিচালকদের শেয়ার ধারন বেড়েছে ২৯.৪৪ শতাংশ

এক মাসে ন্যাশনাল লাইফের পরিচালকদের শেয়ার ধারন বেড়েছে ২৯.৪৪ শতাংশ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ আগস্ট মাসে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত জীবন বিমা খাতের কোম্পানি ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের উদ্যোক্তা ও পরিচালকের শেয়ার ধারনের ক্ষেত্রে বড় ধরনের পরিবর্তন এসেছে। মাত্র এক মাসেই উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ২৯.৪৪ শতাংশ বেড়েছে। কোম্পানির প্রিমিয়াম আয়ের প্রবৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় গত ১৫ দিনে বিনিয়োগকারীদের কাছে অন্যতম আকর্ষণীয় শেয়ারের পরিণত হয়েছে।

ডিএসইর ওয়েবসাইটে কোম্পানির তথ্য কণিকা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ৯৪ কোটি ৩৬ লাখ পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানিটির জুলাই মাসেও পরিচালকের কাছে ৫৩.৫১ শতাংশ শেয়ার ছিল। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ছিল ৩৯.৮২ শতাংশ। আর সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ছিল ৬.৬৭ শতাংশ। কিন্তু এক মাসের ব্যবধানে ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের পরিচালক ও উদ্যোক্তাদের শেয়ারের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮২.৯৫ শতাংশ। অন্যদিকে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ারের পরিমাণ কমে দাঁড়িয়েছে ১০.০১ শতাংশ। অর্থাৎ এক মাসের ব্যবধানে কোম্পানির পরিচালকদের শেয়ার ধারন বেড়েছে ২৯.৪৪ শতাংশ। অন্যদিকে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের শেয়ার আগের চেয়ে সামান্য বেড়েছে। আগস্ট শেষে সাধারন বিনিয়োগকারীদের শেয়ার ধারণে পরিমাণ দাঁড়ায় ৭.০৪ শতাংশ।

বাজার বিশ্লেষকদের মতে, শেয়ারের দর বাড়লে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির উদ্যোক্তা/পরিচালকরা যেখানে উচ্চ দরে শেয়ার বিক্রি করে বাজার থেকে টাকা উত্তোলন করে থাকে। সেখানে ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির ক্ষেত্রে সেটির ব্যতিক্রম ঘটেছে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা নতুন করে কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদে আসছেন। আগে যেখানে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার কেনা-বেচার ক্ষেত্রে কোন বাধ্যবাধকতা ছিল না, সেখানে পর্ষদে আসায় নতু লক ইনের আওতায় আসছে। ফলে দর বাড়লেও ইচ্ছেমতো শেয়ার বিক্রি করতে পারবে তারা।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে ২০১৪ সালে ৪৫ শতাংশ নগদ, ২০১৫ সালে ২০ শতাংশ নগদ ও ১৫ শতাংশ বোনাস, ২০১৬ সালে ২০ শতাংশ নগদ ও ১৫ শতাংশ বোনাস এবং সর্বশেষ ২০১৭ সালে ২০ শতাংশ নগদ ও ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার প্রদান করেছে।

বৃহস্পতিবার ডিএসইতে লেনদেন শেষে কোম্পানিটির সর্বশেষ মূল্য ছিল ২৭৮.৮০ টাকা। আর দিনশেষে সমন্বয় মূল্য দাঁড়িয়েছে ২৭৬.২০ টাকা।