২২ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাঙ্গাবালীতে মহিলাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন

রাঙ্গাবালীতে মহিলাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন

স্টাফ রিপোর্টার, গলাচিপা ॥ জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের ভূইয়ারহাওলা গ্রামে এক মহিলাকে রশি দিয়ে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন এবং ওই মহিলার মেয়েকে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহত হালিদা বেগম (৪৫) এবং তার মেয়ে রহিমা বেগমকে (২২) প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্টি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় শুক্রবার হালিদা বেগম বাদী হয়ে রাঙ্গাবালী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

স্থানীয়রা জানায়, দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের ভূইয়ারহাওলা গ্রামের বশির মোল্লার পরিবারের সঙ্গে প্রতিবেশী আব্দুর রহিম হাওলাদারের পরিবারের জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলছে। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মামলা মোকদ্দমা চলমান রয়েছে। একাধিকবার সালিস বৈঠকও হয়েছে। আব্দুর রহিম হাওলাদার অভিযোগ করেন, আদালতে মামলা চলমান থাকা সত্ত্বেও শুক্রবার সকালে বিরোধীয় জমির গাছ থেকে বশির মোল্লা নারিকেল পাড়তে গেলে তার স্ত্রী হালিদা বেগম বাঁধা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে হালিদাকে জোরপূর্বক টেনেহিচড়ে বশির তার নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। একপর্যায় বশির ও তার ভাই আলম মোল্লা তাদের পরিবারের মহিলাদের নিয়ে হালিদাকে গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে শারীরিক নির্যাতন করে। এ খবর শুনে মেয়ে রহিমা বেগমসহ তিনি ঘটনাস্থলে যান। এসময় মেয়ে রহিমার মাথায় তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। পরে তাতেও মারধর শুরু করলে স্থানীয়রা রক্ষা করে।

ঘটনা অস্বীকার করে বশির মোল্লা জানান, উল্টা তার মাকে হালিদা লাথি মেরেছে। রহিমাকে কেউ কুপিয়ে জখম করেনি। এ বিষয়ে রাঙ্গাবালী থানার ওসি মিলন কৃষ্ণ মিত্র জানান, মারধরের শিকার হালিদা বেগম লিখিত অভিযোগ করেছেন। এ বিষয়ে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রসঙ্গত- বশির মোল্লা ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। এ কারণে অভিযোগ করেও রহিম হাওলাদারের পরিবার আতঙ্কে রয়েছে।