২০ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাঙ্গামাটিতে আরও ২ ইউপিডিএফ কর্মীর প্রাণ গেল

  • প্রতিশোধ স্পৃহার জের

চট্টগ্রাম অফিস/নিজস্ব প্রতিনিধি, রাঙ্গামাটি ॥ পাহাড়ে আবারও খুনের ঘটনা ঘটেছে। এ খুন প্রতিশোধের স্পৃহার জের। রাঙ্গামাটি জেলার নানিয়ারচরের একেবারে সদর এলাকায় ইউপিডিএফের আরও ২ কর্মীর প্রাণ গেল এবার। ইতোপূর্বে ইউপিডিএফের বিভক্ত গ্রুপের ধারা সংঘটিত খুনের ঘটনা ঘটলেও এবার তাদের প্রতিপক্ষ জেএসএস-এর দুর্বৃত্তদের হাতে গত শুক্রবার ভোরে উপজেলার সদর ইউনিয়নের রামসুপারিপাড়া এলাকায় এ হত্যাকা- ঘটেছে বলে এলাকায় চাউর হলেও ইউপিডিএফ প্রসিত গ্রুপ তাদের প্রতিপক্ষ ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিককে দায়ী করেছে। নানিয়ারচর পুলিশ জানিয়েছে, নিহতরা হচ্ছে আকর্ষণ চাকমা (৪০) ও শ্যামল কান্তি ওরফে সুমন্ত চাকমা (৩৮)। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ভোরে সাড়ে ৩টার দিকে জনসংহতি সমিতির (জেএসএস লারমা গ্রুপ) সশস্ত্র ক্যাডাররা ইউপিডিএফের ২ কর্মীকে ঘর থেকে তুলে নিয়ে প্রথমে এলোপাতাড়ি কোপায়। এরপর গুলি করে তাদের হত্যা নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ দুপুরের মধ্যে অকুস্থলে গিয়ে নিহত দুজনের লাশ উদ্ধার করে।

অতীতের ন্যায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র এ হত্যাকা- ঘটেছে। নানিয়ারচর উপজেলায় গত মার্চ মাস থেকে পাহাড়ী সন্ত্রাসীদের গুলিতে এ পর্যন্ত ৮ জনের প্রাণ গেল। গত বছরের ১৫ নবেম্বর খাগড়াছড়ির একটি সম্মেলনে ইউপিডিএফের দুই গ্রুপের মতবিরোধের জের এর পর তপন জ্যোতি চাকমা ওরফে বর্মন ইউপিডিএফ থেকে বেরিয়ে ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক নাম দিয়ে আলাদা ১১ সদস্যের কমিটি গঠন করে। ওই কমিটির আহ্বায়ক হন তপন জ্যোতি চাকমা নিজে এবং সদস্য সচিব করা হয় জলেয়া চাকমাকে। এরপর গ্রুপিংয়ের বিস্তৃতি লাভ করে। দাবানলের মতো ছড়িয়ে যায় ইউপিডিএফের দুই গ্রুপের মধ্যে মতবিরোধ। শুরু হয় ভ্রাতৃঘাতী রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ।