১৫ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এই ট্রফি আমার একার নয় ॥ মদ্রিচ

এই ট্রফি আমার একার নয় ॥ মদ্রিচ

অনলাইন ডেস্ক ॥ “এই অ্যাওয়ার্ড দেখাচ্ছে যে, আমরা সবাই কঠিন পরিশ্রম আর নিবেদন দিয়ে সেরা হতে পারি। সব স্বপ্ন সত্যি হতে পারে”, ফিফা বর্ষসেরা পুরস্কার জয়ের পর বললেন লুকা মদ্রিচ। স্বপ্ন পূরণের পর তারকা মিডফিল্ডার কৃতজ্ঞ চিত্তে স্মরণ করলেন, এই পুরস্কারের পেছনে সতীর্থ আর কোচদের অবদানের কথা।

ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জেতেন রিয়াল মাদ্রিদের মদ্রিচ। টানা দুবারের বিজয়ী ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও লিভারপুলের হয়ে অভিষেক মৌসুমে আলো ছড়ানো মোহামেদ সালাহকে হারিয়ে ‘দ্য বেস্ট ফিফা মেনস প্লেয়ার’ নির্বাচিত হন ক্রোয়াট এই মিডফিল্ডার।

সোমবার লন্ডনে ‘দ্য বেস্ট ফিফা ফুটবল অ্যাওয়ার্ড’ অনুষ্ঠানে এ বছরের সেরা ফুটবলার হিসেবে মদ্রিচের নাম ঘোষণা করা হয়।

আর এর মধ্য দিয়ে ১০ বছর পর লিওনেল মেসি ও রোনালদোর বাইরে অন্য কেউ বর্ষসেরার কোনো পুরস্কার জিতল। গত এক দশকে ফিফার বর্ষসেরা অথবা ব্যালন ডি’অর- সব জেতেন দুই তারকার যে কোনো একজন।

গত মাসের শেষ দিকে রোনালদো ও সালাহকে হারিয়েই উয়েফার বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হন মদ্রিচ। তার বিশ্বাস, সামনে তাকে ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ আসবে এই দুই জনের সামনে।

“এখানে এই ট্রফির সঙ্গে দাঁড়িয়ে থাকা অনেক সম্মানের ও দারুণ অনুভূতির। সবার আগে আমি মোহামেদ ও ক্রিস্তিয়ানোকে অভিনন্দন জানাতে চাই। আমি নিশ্চিত ভবিষ্যতে তোমাদের এই ট্রফির জন্য লড়াই করার আরও সুযোগ থাকবে।”

মদ্রিচ মনে করেন, সতীর্থদের সহায়তা, কোচের পরামর্শ ছাড়া সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জেতা সম্ভব হতো না। সতীর্থ, স্বজনদের পাশাপাশি ভক্তদেরও কৃতজ্ঞতা জানান ক্রোয়াট অধিনায়ক।

“এই ট্রফি কেবল আমার একার নয়, এটা আমার রিয়াল মাদ্রিদ আর ক্রোয়েশিয়ার সতীর্থদের। আমার কোচদের ছাড়া আমি এটা জিততে পারতাম না। আমার পরিবার ছাড়া আমি যে খোলোয়াড় তা হতে পারতাম না।”

“ভক্তরা যে সমর্থন যুগিয়েছে ও ভালোবাসা দিয়েছে তার জন্য তাদের ধন্যবাদ। এটা আমার জন্য অনেক কিছু। যারা আমাকে ভোট দিয়েছেন তাদের সবাইকে ধন্যবাদ।”

ইতিহাসের প্রথম ক্লাব হিসেবে রিয়ালের টানা তৃতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল মদ্রিচের। মাদ্রিদের ক্লাবটির হয়ে গত মৌসুমে উয়েফা সুপার কাপ, স্প্যানিশ সুপার কাপ ও ক্লাব বিশ্বকাপ শিরোপাও জিতেন তিনি।

আর রাশিয়া বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়াকে ফাইনালে তুলতে বড় অবদান রাখেন মদ্রিচ। টুর্নামেন্ট জুড়ে ধারাবাহিকভাবে দারুণ খেলেন তিনি, দুটি গোল করার পাশাপাশি সতীর্থদের দিয়ে করান ১টি। জিতেন আসরের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার ‘গোল্ডেন বল’।

জাতীয় দলের কোচ, অধিনায়ক, বিশ্বজুড়ে ফিফা নির্বাচিত সাংবাদিক ও ফিফা ডটকমে নিবন্ধন করা ফুটবলপ্রেমীদের ভোটে বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচন করা হয়।