১৯ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আমিই হেনস্থার শিকার হয়ে প্রথম মিডিয়ার সামনে মুখ খুলি ॥ তনুশ্রী

আমিই হেনস্থার শিকার হয়ে প্রথম মিডিয়ার সামনে মুখ খুলি ॥  তনুশ্রী

অনলাইন ডেস্ক ॥ বেশ কিছুদিন লাইমলাইটের আড়ালে ছিলেন। ফিরেই আবার চেনা ফর্মে তনুশ্রী দত্ত।

হেনস্থার শিকার তিনিও। দাবি অভিনেত্রীর। এমনকি, বিষয়টা নিয়ে সরবও হয়েছিলেন, কিন্তু ইন্ডাস্ট্রির কারও সাড়া পাননি বলে অভিযোগ করলেন তনুশ্রী।

একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমনই সব পুরনো কাসুন্দি ঘাঁটতে শুরু করেন অভিনেত্রী। আর সেই পুরনো কাসুন্দি ঘাঁটতে গিয়েই বেরিয়ে আসে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। তনুশ্রীর কথায়, ‘‘মিটু মুভমেন্ট হলিউডে হয়তো এক বা দু’বছর ধরে চলছে। কিন্তু ভারতে মিটু অনেক দিন আগেই হয়ে গিয়েছে। এ দেশে আমিই হয়তো হেনস্থার শিকার হয়ে প্রথম মিডিয়ার সামনে মুখ খুলি। কী ঘটেছিল, সেটা সবাই দেখেছে। কিন্তু সকলের ধারণা, হেনস্থা নিয়ে মুখ খোলার পরেই তনুশ্রী ইন্ডাস্ট্রি থেকে গায়েব।’’

‘হর্ন ওকে প্লিজ’ ছবিটির সেটেই তাঁর সঙ্গে এক অভিনেতা দুর্ব্যবহার করেন বলে সে সময়ে অভিযোগ করেছিলেন তনুশ্রী। এমনকি, বাড়াবাড়ি এতটাই হয়ে যায়, যে শেষ পর্যন্ত তাঁকে ওই গানের দৃশ্য থেকে বেরিয়ে যেতে হয় বলেও দাবি করেছিলেন অভিনেত্রী।

আর এখন তনুশ্রীর বক্তব্য, ‘‘গোটা ইন্ডাস্ট্রিই বিষয়টা জানত। কিন্তু কেউ সে দিন প্রতিবাদ করেননি। আমার পাশে তো কেউ দাঁড়ায়ইনি বরং ওই কালপ্রিটটাকেই আস্কারা দিয়েছে সবাই।আমার সঙ্গে কী ঘটেছিল, তা সারা দেশের মানুষ জানত। কারণ, ন্যাশনাল টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতেও তিন দিন ধরে লাগাতার এই একই জিনিস চলেছিল। আর এখন তো বিষয়টা ধামাচাপাই পড়ে গিয়েছে।’’

সেটে আসলে ঠিক কী ঘটেছিল? তনুশ্রীর কথায়, ‘‘সে দিন ওই ব্যক্তি অসভ্যতার সমস্ত সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছিলেন। আমাকে জড়িয়ে ধরে অসভ্যতা করছিলেন। তার পর কোরিওগ্রাফারদের আমাকে ভাল করে নাচ শেখাতে বলছিলেন। আমার সঙ্গে একটা অন্তরঙ্গ দৃশ্যেও অভিনয় অবধি করতে চাইছিলেন তিনি।’’

আসলে সেটে সেই অভিনেতার থাকার কোনও কথাই ছিল না বলে জানালেন তনুশ্রী। কারণ, তাঁর সঙ্গে ছবির প্রযোজকদের একটি সোলো নাচের দৃশ্যের কথাই হয়েছিল। কন্ট্র্যাক্টও হয়েছিল সেই মর্মেই। তনুশ্রী বললেন, ‘‘আমি বিষয়টা জানা মাত্রই পরিষ্কার মুখের উপর না করে দিই। কারণ ওরকম একটা মানুষের সঙ্গে ইন্টিমেট ডান্স স্টেপ করাটা অসহ্যকর হয়ে উঠত।’’

ঠিক তার পরেই ঘন কালো মেঘ নেমে আসে তনুশ্রীর সামনে। তাঁর মুখ থেকে না শব্দটা শোনার পরেই একটি রাজনৈতিক দলের কিছু নেতাকে সেটে ডেকে আনেন ওই অভিনেতা।তনুশ্রীর দাবি, ‘‘ওঁরা আসে আর আমার গাড়ি ভাঙচুর করে। আমার সামনে একটা মব ভায়োলেন্সের মতো পরিস্থিতির সৃষ্টি করে।’’

এর পর বেশ কিছু দিন ফিল্মের কথা শুনলেই তনুশ্রীর গায়ে জ্বর আসার উপক্রম। বললেন, ‘‘বিতর্কের পর কমপক্ষে৩০-৪০টা ছবির অফার ফিরিয়ে দিয়েছি। বিরাট একটা ভয় কাজ করত মনের মধ্যে।এমনকি, ফিল্মের সেটে যাওয়ার কথা মাথায় এলেও। এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন হলে সবাইকেই যেন ওরকম মনে হয়। সে সময়ে বিশ্বাসই করতে পারছিলাম না যে, জীবনে অনেক ভাল মানুষের সঙ্গেও কাজ করেছি।’’

এই বিতর্কের পর কেবল একটি ছবিতেই দেখা গিয়েছিল তনুশ্রীকে। জগ মুন্দ্রা পরিচালিত ‘অ্যাপার্টমেন্ট’ ছবিটি মুক্তি পেয়েছিল ২০১০সালে। আর তার পরই লোকচক্ষুর অন্তরালে চলে গিয়েছিলেন অভিনেত্রী।

তবে তাঁর কথায়, ‘‘যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে কোনও রকমের প্রতিবাদ এ দেশে সম্ভব নয়। ততক্ষণ সম্ভব নয়, যতক্ষণ না আমি ন্যায় বিচার পাচ্ছি। আর বিষয়টা নিয়ে আমি যত বার সম্ভব তত বার গর্জে উঠব। কারণ, এ বার আমি সত্যিই বলিউডের মুখোশটা খুলে দিতে চাই। কারণ, এক দিকে লোক গুলো নারীর প্রগতি নিয়ে কথা বলে যাবে। আর এক দিকে আমার সঙ্গে যেটা জঘন্য ঘটনা ঘটে গেল তা নিয়ে চুপ করে বসে থাকবে।’’

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

নির্বাচিত সংবাদ