১৫ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভারতের সঙ্গে রুদ্ধশ্বাস টাই আফগানদের

মোঃ মামুন রশীদ ॥ এশিয়া কাপ সুপার ফোরে আগের দুই ম্যাচেই শেষ ওভারে হেরেছিল আফগানিস্তান। দুবাইয়ে মঙ্গলবার ভারতের বিপক্ষে আর হারেনি। উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচটি শেষ পর্যন্ত টাই হয়েছে। বাংলাদেশের বিপক্ষে ৬ বলে ৮ রান করতে পারেনি ব্যাটসম্যানরা, পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ৬ বলে ১০ রান আটকাতে পারেনি বোলাররা। এবার ভারতের বিপক্ষে ৬ বলে ৭ রান করতে দেননি রশিদ খান। মঙ্গলবার দুবাইয়ে নিজেদের শেষ ম্যাচে আগেই ফাইনাল নিশ্চিত করা ভারতের মুখোমুখি হয়েছিল আফগানিস্তান। গত ম্যাচ হেরে ফাইনালে ওঠার আশা আগেই শেষ হয়ে গিয়েছিল তাদের। আগে ব্যাট করতে নেমে মোহাম্মদ শাহজাদের ১১৬ বলে ১২৪ রানের দুর্দান্ত ইনিংসে ৮ উইকেটে ২৫২ রান তোলে আফগানিস্তান। নিয়মিত দুই ওপেনার শিখর ধাওয়ান ও অধিনায়ক রোহিত শর্মাসহ কয়েকজনকে বিশ্রাম দিয়ে নামা ভারত ৪৯.৫ ওভারে গুটিয়ে যায় ২৫২ রানে। আজ বাংলাদেশ-পাকিস্তান ম্যাচের বিজয়ী দল আগামী শুক্রবার দুবাইয়ে ভারতের বিপক্ষে ফাইনাল খেলবে।

টস জিতে আগে ব্যাটিং নেয় আফগানিস্তান। রোহিত বিশ্রামে থাকায় দীর্ঘদিন পর আবার নেতৃত্বভার কাঁধে নেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। অস্ট্রেলিয়ার রিকি পন্টিং (২৩০) ও নিউজিল্যান্ডের স্টিফেন ফ্লেমিংয়ের (২১৮) পর তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে ২০০ ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দেয়ার কীর্তি গড়েন তিনি। সেই ম্যাচে তাঁকে দুশ্চিন্তায় ফেলেছিলেন শাহজাদ শুরু থেকেই চড়াও হয়ে খেলে। অন্য প্রান্তে নিয়মিত উইকেট হারিয়েছে আফগানরা। ১১৬ বলে ১১ চার, ৭ ছক্কায় ১২৪ রান করা শাহজাদকে ফেরান কেদার যাদব, তখন দলীয় রান ৬ উইকেটে ১৮০। এরপরও আফগানরা ৮ উইকেটে ২৫২ রান করে মোহাম্মদ নবির ৫৬ বলে ৩ চার, ৪ ছক্কায় করা ৬৪ রানের সুবাদে। রবীন্দ্র জাদেজা ৪৬ রানে ৩টি, কুলদ্বীপ যাদব ৩৮ রানে ২টি উইকেট নেন। জবাব দিতে নেমে উদ্বোধনী উইকেটে মাত্র ১৭ ওভারে ১১০ রান তোলেন ভারতের লোকেশ রাহুল ও আম্বাতি রাইডু। রাইডু ৪৯ বলে ৪ চার, ৪ ছক্কায় ৫৭ রান করে নবির এবং এলবিডবিøউ হয়ে ৬৬ বলে ৫ চার, ১ ছক্কায় ৬০ রান করা রাহুল রশিদ খানের শিকার হন। এরপর দ্রæতই ধোনি (৮), মনিষ পাÐে (৮) ও কেদার (১৯) আউট হলে খেলায় ফিরে আসে আফগানরা। একপ্রান্তে লড়াই চালানো দীনেশ কার্তিকও ৬৬ বলে ৪৪ রান করে নবির শিকার হলে বিপদে পড়ে ভারত। শেষ পর্যন্ত লড়াই করেন রবীন্দ্র জাদেজা এবং ম্যাচের ভাগ্য গড়ায় শেষ ওভারে। তখন ভারতের প্রয়োজন ছিল ৬ বলে ৭ রান। বোলিং করতে এসে রশিদ দ্বিতীয় বলে বাউন্ডারি হজম করলেও পঞ্চম বলে ২৫ রান করা (৩৪ বলে) জাদেজাকে সাজঘরে পাঠালে ম্যাচটি টাই হয়। ১ বল আগেই ২৫২ রানে গুটিয়ে যায় ভারত। ২টি করে উইকেট নেন নবি, রশিদ ও আফতাব আলম।