২১ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সীতাকুন্ডে হিস্টেরিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে ১৯ শিক্ষার্থী হাসপাতালে

সীতাকুন্ডে হিস্টেরিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে ১৯ শিক্ষার্থী হাসপাতালে

নিজস্ব সংবাদদাতা, সীতাকুন্ডে, চট্টগ্রাম ॥ চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে ভাটেরখীল উচ্চ বিদ্যালয়ে হিস্টেরিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে দশম শ্রেনীর ১৯ শিক্ষার্থী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। একি শ্রেনীর শিক্ষার্থীরা একের পর এক এ রোগে আক্রান্ত হওয়ায় বিদ্যালয়ের শিক্ষকের পাশাপাশি চিন্তিত রয়েছেন অভিভাবকরা। আক্রান্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১০ শিক্ষার্থী চিকিৎসা শেষে বাড়িতে ফিরে গেলেও এখনো সীতাকু- স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন ৯ জন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিক্ষার্থীরা হলেন,জিন্নু আক্তার,সাজেদা আক্তার,আছমা,নাফিজা আক্তার,ইশরাত সুলতানা,ইশরাত জাহান,সাজেদা ও সাদিয়া আক্তার।

ভাটেরখীল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাছির উদ্দিন জানান,‘গত মঙ্গলবার বিদ্যালয় চলাকালে দশম শ্রেনীর ১০জন শিক্ষার্থী হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে যান। এসময় তাদেরকে দ্রুত উদ্ধার করে সীতাকু- স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন দশ শিক্ষার্থীর জ্ঞান ফেরার পর একিদিন সন্ধ্যায় তাদের হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দিলে তারা নিজ নিজ বাড়িতে ফিরে যায়। একিভাবে বুধবার সকালে বিদ্যালয় চলাকালে দশম শ্রেনীর শিক্ষার্থী সাজেদা আক্তার জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটে পড়েন। এসময় তার পাশে থাকা আরো ৮ শিক্ষার্থী জ্ঞান হারান। ঘটনার পরপর শিক্ষার্থীদের অভিভাবকে খবরের পাশপাশি তাদের সীতাকু- স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়। অসুস্থ ৯ শিক্ষার্থী এখনো স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

অসুস্থ শিক্ষার্থী আছমার বাবা এস্কান্দর জানান,বিদ্যালয় চলাকালে আমার মেয়ে ও তার সহপাঠিদের সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়ার খবর পেয়ে আমি হাসপাতালে ছুটে যায়। এসময় অন্যান্য শিক্ষার্থীর অভিভাবকরাও হাসপাতালে ছুটে আসেন। পরপর দু’দিন শিক্ষার্থীদের সংজ্ঞাহীন হয়ে যাওয়ার ঘটনায় আমরা খুবই দুশ্চিন্তায় রয়েছি।

স্থানীয় যুবক ইব্রাহিম বলেন,‘সম্প্রতি নতুন ভবন করার জন্য পুরাতন অফিস ভনটি ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। এরপর থেকে আক্রান্ত শিক্ষার্থীদের উপর জ্বিনের আছড় পড়েছে। বিদ্যালয়ের পুরাতন অফিস ভবন ভেঙ্গে ফেলার কারনে জ্বিন রাগন্বিত হয়ে এ ঘটনার সৃষ্টি করছে।’

সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়া শিক্ষার্থীরা হিস্টেরিয়া রোগে আক্রান্ত জানিয়ে সীতাকু- স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা.নুর উদ্দিন খান বলেন, ‘অত্যাধিক গরম ও আসন্ন পরীক্ষা সামনে রেখে লেখাপড়ার মানসিক চাপ থেকে শিক্ষার্থীরা জ্ঞান হারিয়ে ফেলতে পারেন। আক্রান্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে দশজনকে একদিন আগে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। আজ বুধবার ফের ৯ শিক্ষাথী একই ঘটনায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। তবে এতে বড় ধরনের কোন সমস্যা হবে না বলেও তিনি জানান।’