১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মাঝ-আকাশে অল্পের জন্য বেঁচে গেলেন দুই মহাকাশচারী

মাঝ-আকাশে অল্পের জন্য বেঁচে গেলেন দুই মহাকাশচারী

অনলাইন ডেস্ক ॥ আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে যাওয়ার পথে রকেট বিগড়ে যাওয়ায় অল্পের জন্য বেঁচে গেলেন দুই মহাকাশচারী। তাঁদের আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে পাঠানোর লক্ষ্যে ‘সয়ুজ’ মহাকাশযানকে পিঠে চাপিয়ে কাজাখস্তানের বৈকানুর থেকে রওনা হয়েছিল একটি বুস্টার রকেট। কিন্তু মাঝ-আকাশেই বিগড়ে যায় রকেটটি। ফলে, প্রাণে বাঁচতে তড়িঘড়ি মাটিতে নেমে আসতে হয় দুই মহাকাশচারীকে।

মাসদেড়েক আগে এই ‘সয়ুজ’ মহাকাশযানেই একটি ফুটো দেখা দেওয়ায় খুব বিপদে পড়ে গিয়েছিলেন আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে থাকা মহাকাশচারীরা। দুই মহাকাশচারী ওই সময় তড়িঘড়ি ফুটো বন্ধ করে দিয়ে বড় বিপত্তির হাত থেকে বাঁচান আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনকে।

রকেটের পিঠে চাপানো ‘সয়ুজ’ মহাকাশযানে ছিলেন রুশ মহাকাশচারী অ্যালেক্সেই ওভচিনিন ও মার্কিন নভশ্চর নিক হেগ। মহাকাশযানের ভেতর থেকে পাঠানো ভিডিয়ো ফুটেজে দুই মহাকাশচারীকে ওই দুর্ঘটনার সময় রীতিমতো কাঁপতে দেখা গিয়েছে।

বৈকানুর থেকে আজ বৃহস্পতিবার ওই রকেট উৎক্ষেপণের সময় উৎক্ষেপণ স্থল থেকে এক কিলোমিটার দূরে দাঁড়িয়েছিলেন সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের এক সাংবাদিক। তিনি জানিয়েছেন, উৎক্ষেপণের পর আকাশে উঠে যাওয়ার সময় রকেটের কোনও গলদ তাঁর চোখে পড়েনি। রকেটটি যখন আরও উচ্চতায় উঠে ওই সাংবাদিকের নজরের বাইরে চলে যায়, তখনই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে বিশেষজ্ঞদের অনুমান।

সাধারণত, আকাশে একটা নির্দিষ্ট উচ্চতায় পৌঁছে বুস্টার রকেট তার পিঠে চাপানো যে কোনও মহাকাশযানকে তার লক্ষ্যে পাঠানোর জন্য ছুঁড়ে দেয়। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এ ক্ষেত্রে, সেই সময়েই কোনও যান্ত্রিক গোলযোগ ঘটেছিল রকেটটিতে।

মাসদেড়েক আগে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন অল্পের জন্য যে বিপদের হাত থেকে বেঁচে গিয়েছিল, তা আদতে ‘নাশকতার ঘটনা’ বলে অভিযোগ ওঠে কোনও কোনও মহলে। তার প্রেক্ষিতে নাসা ও রসকসমস যৌথ ভাবে ওই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ইতিমধ্যেই।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা