২১ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিদ্ধান্ত ছাড়াই জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া ও বিএনপি নেতাদের বৈঠক শেষ

সিদ্ধান্ত ছাড়াই জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া ও বিএনপি নেতাদের বৈঠক শেষ
  • শনিবার ফের বৈঠক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কোন রকম সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হলো অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী (বি. নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট, ড. কামাল হোসেন নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া এবং বিএনপির সমন্বয়ে গঠিত লিয়াজো কমিটির বৈঠক। আজ শনিবার ফের বৈঠকের কথা রয়েছে।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টায় উত্তরায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি যুক্তফ্রন্টের অন্যতম নেতা আ স ম আব্দুর রবের বাসায় এ বৈঠক শুরু হয়। রাত সোয়া সাতটা পর্যন্ত বৈঠক চলে। ভেতরে যখন বৈঠক চলছিল বাইরের রাস্তায় তখন চলছিল জোট বিরোধী শ্লোগান। যদিও শেষ পর্যন্ত দু’পক্ষের মুখোমুখি হয়নি।

বৈঠকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, যুক্তফ্রন্টের নেতা আ স ম আব্দুর রব, আব্দুল মালেক রতন, মেজর (অব.) আব্দুল মান্নান, তানিয়া রব, মাহমুদুর রহমান মান্না, মাহি বি. চৌধুরী, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার নেতা সুলতান মো. মনসুর, মোস্তফা মহসিন মন্টু, আ ব ম মোস্তফা আমীন ও সুব্রত চৌধুরী সহ আরো বেশ কয়েকজন নেতা বৈঠকে অংশ নেন। ।

ঐক্যসূত্রে জানা গেছে, বৈঠকে বৃহত্তর ঐক্য’র কর্মসূচী, নাম, লক্ষ্য ও ঘোষণাপত্রের ফলোআপ করার কথা ছিল। বিগত বৈঠকে এগুলোর খসড়া তৈরি হয়। বৈঠকের আগে গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার অন্যতম নেতা সুব্রত চৌধুরী বলেন, ‘আজকের বৈঠক মূলত বিগত বৈঠকের ফলোআপ। খুব শিগগরিই জোটের শীর্ষ নেতাদের আনুষ্ঠানিক বৈঠক হবে। সেখান থেকে নেয়া সিদ্ধান্ত দেশবাসীকে জানিয়ে দেয়া হবে।

রাতে সুব্রত চৌধুরী জনকণ্ঠ’কে বলেন, বৈঠকে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। মূলত যুগপত আন্দোলনের জন্য দফা ঠিক করতেই এই বৈঠক হয়েছে। কেউ পাঁচ দফা, কেউ সাত কেউবা নয় দফার ভিত্তিতে আন্দোলনের পরামর্শ দেন। তবে সবার পরামর্শ বিশ্লেষন করা হয়েছে। আশাকরি শনিবারের মধ্যে কর্মসূচী চূড়ান্ত হবে। তিনি জানান, শনিবার আবারো জোটের লিয়াজো কমিটির বৈঠক হবে। বৈঠকে সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত হলে সবাই জানতে পারবেন। আ ব ম মোস্তফা আমীনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজী হননি। ২১আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের পর জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে বিএনপির ঐক্য ও যুগপত আন্দোলন নিয়ে কিছুটা টানাপোড়ের দেখা দিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবারের জাতীয় ঐক্যের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়নি। বিএনপির শীর্ষ নেতারা গ্রেনেড হামলা মামলায় দণ্ডিত হওয়ায় বিএনপি যেমন বেকায়দায় তেমনি রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের সমালোচনার মুখে দলটি। সেইসঙ্গে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার নেতারাও একটু পিছুটানে আছেন। ভেবেচিন্তে সামনে এগিয়ে চলার পরামর্শ অনেকের। তাই ঐক্যে ও যুগপত আন্দোলনের রুপরেখা তৈরীর কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত শুক্রবারের বৈঠকে তা চূড়ান্ত হয়নি।

এদিকে শুক্রবার উত্তরায় যখন বৈঠক চলছিল তখন একটি মিছিল আ স ম আবদুর রবের বাসার সামনের সড়ক প্রদক্ষিণ করে। ‘বঙ্গবন্ধু সৈনিকেরা হুঁশিয়ার সাবধান’, ‘একাত্তরের দালালেরা বাড়াবাড়ি করিস না, বাড়াবাড়ি করিস না-পিঠের চামড়া থাকবে না’; ‘জয় বাংলা-জয় বঙ্গবন্ধু’; ‘অ্যাকশন, অ্যাকশন-ডাইরেক্ট অ্যাকশন’ ইত্যাদি স্লোগান দিচ্ছিল মিছিলকারীরা। রবের বাসার সামনে পুলিশ থাকলেও মিছিলকারীদের কিছু বলেনি। তারা স্লোগান দিতে দিতে চলে যায়।