১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শোয়েবের প্রতি কৃতজ্ঞ হাফিজ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ক্রমাগত উপেক্ষার পর সর্বশেষ কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়া হাফিজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানানোর সিদ্ধান্তটা প্রায় নিয়ে ফেলেছিলেন। স্ত্রী বারবার বলছিলেন, রাগের মাথায় এমনটা না করে ঘরোয়া ক্রিকেটে মনোযোগ দিতে। হঠাৎ একদিন শোয়েব আকতারের ফোন। কিংবদন্তিতুল্য সাবেক এ পেসার এক সময়ের সতীর্থকে ডেকে নিয়ে নিজের ওপর আস্থা রাখতে বললেন। বাকিটা চোখের সামনে। দীর্ঘ দুই বছর পর সাদা পোশাকে সুযোগ পেয়ে হাঁকিয়েছেন দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি। আরব আমিরাতে দুবাইয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে ড্র হওয়া প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে হাফিজ খেলেন ক্যারিয়ারের পুনর্জন্ম ঘটানো ১২৬ রানের ঝলমলে ইনিংস। কঠিন সময়ে স্ত্রীর অনুপ্রেরণা আর গ্রেট শোয়েব আকতারের পরামর্শের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে ভুল করেননি ৩৭ বছর বয়সী এ তারকা অলরাউন্ডার।

‘গত কয়েক মাস ধরে আমার কিছু সমস্যা হচ্ছিল। কঠিন সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলতে পারতাম। কিন্তু নেইনি। আমার স্ত্রী আমাকে সিদ্ধান্ত নিতে দেয়নি। আলাদা করে বলব শোয়েব আকতারের কথা। বিরক্ত হয়ে আমি যখন কঠিন সিদ্ধান্তটা নেব ভাবছি তখনই উনি আমাকে ফোন করেন। নিজের ওপর আস্থা রাখতে বলেন। বলেন সব বাদ দিয়ে ঘরোয়া ক্রিকেটে মনোযোগ দিতে। দু’জনের কাছেই বিশেষ কৃতজ্ঞ।’ দুবাই টেস্টের প্রথমদিনে সেঞ্চুরি তুলে নেয়ার পর সংবাদ মাধ্যমকে বলেন হাফিজ। এতদিন পর দলে ফেরা অভিজ্ঞ এ ক্রিকেটার আরও যোগ করেন, ‘আল্লাহই সেরা পরিকল্পনাকারী, তিনি আমার জন্য সেরাটাই পরিকল্পনা করেছেন। আমি দলে ফেরার পর সতীর্থ খেলোয়াড়রা সবাই আমাকে অভিনন্দন জানিয়েছে, এটাও আত্মবিশ্বাস দিয়েছে। ভেতরের এনার্জি বেড়েছে। ফিরতে পেরে আমি সত্যি খুব খুশি। দলের প্রয়োজনে রান করতে পেরে আরও বেশি ভাল লাগছে।’

এক টুইটার বার্তায় শোয়েব আকতার লিখেছেন, ‘আমি যখন শুনলাম কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়ার কষ্টে হাফিজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিতে যাচ্ছে তখনই ওকে ফোন করেছিলাম। বলেছিলাম, নিজের ওপর আস্থা ও আল্লার ওপর ভরসা রেখে ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলে যেতে। ভাল লাগছে যে দীর্ঘদিন পর ফিরেই ও’ টেস্টে সেঞ্চুরি করেছে। এটা পাকিস্তানের জন্যই ভাল। কারণ দলে এখন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের অভাব রয়েছে। আশাকরি হাফিজ নিয়মিত রান পাবে।’ ফেরার আশা তো হাফিজ নিজেই ছেড়ে দিয়েছিলেন। এর আগে পাকিস্তানের হয়ে শেষ টেস্ট খেলেছিলেন ঠিক দুই বছর হয়ে গেছে, সেই ২০১৬ সালের আগস্টে। আমিরাতে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের জন্য ঘোষিত ১৭ সদস্যের দলেও ছিলেন না। হঠাৎ একজন ব্যাটসম্যানের প্রয়োজন অনুভব করে ইনজামামের নেতৃত্বাধীন নির্বাচক কমিটি। অপ্রত্যাশিতভাবে ডাক পান ৩৮ ছুুঁই ছুুঁই হাফিজ।