১৫ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পগবার প্রশংসায় দেশম

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কোচ জোশে মরিনহোর সঙ্গে খুব খারাপ সময় পার করছেন পল পগবা। ওল্ডট্র্যাফোর্ডে গুরু-শিষ্যের দ্বন্দ্ব এখন চরমে। এই মুহূর্তে একে অপরের বিরুদ্ধে পাল্টা-পাল্টি মন্তব্য করছেন মরিনহো আর পগবা। সম্প্রতি রেড ডেভিলদের অভিজ্ঞ কোচ সাফ জানিয়ে দেন, ভবিষ্যতে পগবাকে আর অধিনায়ক করা হবে না। তারপর কৌশলে ফরাসী তারকা পগবাও জানিয়ে দেন, নেতা হওয়ার জন্য আর্মব্যান্ডের প্রয়োজন পড়ে না।

মরিনহোর সঙ্গে পগবার দ্বন্দ্ব যখন চরমে ঠিক তখনই ফ্রান্সের কোচ দিদিয়ের দেশমকে পাশে পেলেন সাবেক জুভেন্টাস তারকা। বুধবার এক সাক্ষাতকারে পল পগবার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক এবং কোচ। এ সময় তিনি তার প্রিয় শিষ্যকে বর্তমান বিশ্বের সেরা মিডফিল্ডার বলে মন্তব্য করেন। দেশম বলেন, ‘ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এখন খুব খারাপ অবস্থার মধ্যে। কিন্তু পগবা তার অবস্থান ঠিকই ধরে রেখেছেন। সে বিশ্বের সেরা মিডফিল্ডারদের একজন।’ ইতালিয়ান সংবাদ মাধ্যম গেজেত্তা দেল্লোকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেন দিদিয়ের দেশম।

শুধু তাই নয় ফরাসী কোচের মতে, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছেড়ে আবারও জুভেন্টাসে ফিরতে পারেন পল পগবা। যদিওবা ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোকে নিজেদের দলে ভেড়ানোর পর এখন পগবার সঙ্গে চুক্তি-স্বাক্ষর করাটা জুভেন্টাসের জন্য খুব কঠিন কাজ হবে বলে মনে করেন দিদিয়ের দেশম। এ প্রসঙ্গে দেশম বলেন, ‘স্বপ্ন জীবনেরই একটা অংশ। হয়তো সমর্থকরা রোনাল্ডোকে জুভেন্টাসে পাওয়ার স্বপ্নই দেখেনি কিন্তু ইতোমধ্যেই সে চুক্তি-স্বাক্ষর করে ফেলেছে। কখনও কখনও স্বপ্নও বাস্তবে রূপ নেয়। কিন্তু কয়েক বছর আগের চেয়ে এখন পগবাকে পেতে জুভেন্টাসকে অনেক বেশি মূল্য দিতে হবে।’

২০১২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ইতালিয়ান সিরি’এ লীগের জায়ান্ট ক্লাবের জার্সিতে খেলেছেন পগবা। জুভেন্টাসে থাকাকালীন জীবনটা রাঙিয়ে নিয়েছিলেন এই ফরাসী মিডফিল্ডার। হয়ে উঠেছিলেন দলের প্রাণভোমরা। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে আসতেই যেন বদলে গেছে সব। তার জীবনটা ক্রমেই দুর্বিষহ করে তুলেছেন প্রধান কোচ মরিনহো। যে কারণেই ফ্রেঞ্চ মিডফিল্ডারের ওল্ডট্র্যাফোর্ড ছাড়াটা যেন সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছিল একটা পর্যায়ে। রাশিয়া বিশ্বকাপ পরিস্থিতি কিছুটা হলেও পাল্টে দিয়েছিল। মরিনহোর সঙ্গে পগবার দ্বন্দ্বের শেষও দেখেছিলেন কেউ কেউ। গুরুর আস্থা অর্জন করলেও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে মন উঠে গিয়েছিল পগবার। বার্সিলোনায় যেতে আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন এই ফ্রেঞ্চম্যান। বার্সাও খুব করে বিশ্বজয়ী ফরাসী সেনসেশনকে দলে টানতে চেয়েছিল। দুইয়ে দুইয়ে চার মেলাতে দেননি মরিনহো।