১৪ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চেনা সড়ক যেন অচেনা ॥ দুই কিমিতে ১৫ সাঁকো

চেনা সড়ক যেন অচেনা ॥ দুই কিমিতে ১৫ সাঁকো

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া ॥ মাত্র দশ মিনিটের পথ ছিল। হোন্ডাবাইকে চলাচল করত মানুষ। এখন সে পথেই ব্যয় হয় প্রায় এক ঘন্টা। অন্তত ১৫টি কাঠের সাঁকো পার হতে হয়। তাও যখন নদীতে ভাঁটা থাকে। প্রায় দুই কিলোমিটার ইটবিছানো সড়কটি এখন এসব মানুষের কাছেই অচেনা ও দুর্গম হয়ে গেছে । বিছানো ইটের অর্ধেকের অস্তিত্ব নেই। অমাবশ্যা-পুর্ণিমার জোতে আর সড়ক থাকেনা। তখন চলাচল নৌকায়। জনপ্রতি খরচ হয় কমপক্ষে ৫০ টাকা। অন্তত দেড় হাজার পরিবারের শিশু-কিশোর, তরুণ-যুব থেকে বয়োবৃদ্ধ সকলের এই নিত্য দূর্ভোগ এখন পরিণত হয়েছে দুর্যোগে। স্কুল-মাদ্রাসা কিংবা কলেজ পড়–য়াদের ভোগান্তির শেষ নেই। পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার পায়রাবন্দরের রাবনাবাদ পাড়ের চারিপাড়া গ্রামের এসব মানুষের এমন সীমাহীন কষ্টে চলাচল। লাঘবের কোন সম্ভাবনাও নেই। নেই সমুহ সমাধানের কোন পথ। সবচেয়ে দুর্দশায় রয়েছে সড়কটির শেষ দিকে নদীপাড়ের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চার শতাধিক শিশু শিক্ষার্থীর।

ইউপি চেয়ারম্যান শওকত হোসেন তপন বিশ্বাস জানান, রাস্তাটি মেরামত করে সচল রাখার জন্য উপজেলা পরিষদের সভায় বলা হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শাহজাহান সিরাজ জানান, ওই স্পট পরিদর্শন করে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে। আর পায়রা বন্দর ওই এলাকা অধিগ্রহণের আওতায় রেখেছে। তাই অফিসিয়াল কিছু কর্মকান্ড রয়েছে। তাও দেখতে হবে।