১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নরসিংদীতে ২ জঙ্গী আস্তানা ॥ ‘গর্ডিয়ান নট’ নামে চলছে অভিযান

নরসিংদীতে ২ জঙ্গী আস্তানা ॥ ‘গর্ডিয়ান নট’ নামে চলছে অভিযান

স্টাফ রিপোর্টার, নরসিংদী ॥ নরসিংদী সদর উপজেলার ভগীরথপুরের বিল্লাল হোসেনের বাড়ি ও মাধবদীর গাংপাড় হাজী আফজাল হোসেনের বাড়ি ঘেরাও করে রাখে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। জঙ্গী আস্তানা সন্দেহে সোমবার রাত ১০ টা থেকে বাড়ি ২টি ঘেরাও করা হয়।

পুলিশের মহা-পরিদর্শক (আই.জি.পি) ড. জাবেদ পাটোয়ারী, কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম, নরসিংদী জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন, পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মাহমুদসহ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

মঙ্গলবার বেলা পৌনে ২টায় পুলিশের মহা-পরিদর্শক ড. জাবেদ পাটোয়ারী গণমাধ্যমকে জানান, আস্তানাটিতে একাধিক জঙ্গী রয়েছে। জঙ্গীদেরকে আত্মসমর্পনের সুযোগ দেয়া হয়েছে। কিন্তুু তারা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীও পাল্টা গুলি ছুড়ছে। সকাল ১১টা থেকে কাউন্টার টেরোরিজম প্রধান মনিরুল ইসলামের নেতৃত্বে অভিযান শুরু হয়।

তিনি আরো জানান, গর্ডিয়ান নট নামে অভিযান চলছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সৌদি আরব যাবেন এজন্য তিনি ঘটনাস্থল ত্যাগ করে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হন।

অপরদিকে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট প্রধান মনিরুল ইসলাম সকাল ১০টার দিকে গণমাধ্যমকে জানান, বিল্লাল হোসেনের বাড়িতে জঙ্গী আস্তানা আছে এটি যাচাই-বাছাই করা হয়েছে। তথ্য সংগ্রহ করে দালানের ভিতরের অন্যদেরকে বের করা হয়েছে। সমঝোতার মাধ্যমে জঙ্গীদের আত্মসমর্পনের চেষ্টা চলছে। সমঝোতা না হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। আশ-পাশের লোকজনের যাতে কোন অসুবিধা না হয় সেদিকে খেয়াল রেখে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। অভিযানে সোয়াত, এন্টি টেরোরিজম ইউনিট (এ.টি.ইউ), কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট (সি.টি.ইউ), ক্রিমিন্যাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সি.আই.ডি), পুলিশ ব্যুারো অব ইনভেস্টিগেশন (পি.বি.আই), ফায়ার সার্ভিস, জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয় প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অভিযানে অংশ নেয়।

টেরোরিজম ইউনিটের এ.এস.পি থান্ডার খায়রুল হাসান জানান, ভগীরথপুরের অভিযান শেষে মাধবদীর অভিযানটি শুরু করা হবে।

একটি অসমর্থিত সূত্র জানায়, জঙ্গীবিরোধী অভিযানে নাজমুল (২০) ও হাফেজ (৩৫) নামে দু’জনকে আটক করেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। সূত্রটি জানায়, উল্লেখিত দুই ব্যক্তি জঙ্গীদেরকে ভাড়া দেয়ার ব্যাপারে সহযোগিতা করেছিল। তাদের সুপারিশেই বাড়িওয়ালারা তাদেরকে ভাড়া দেয়। গত ৭ অক্টোবর উল্লেখিত দুটি বাড়িতে জঙ্গীরা আস্তানা গড়ে তোলে। তবে জঙ্গীদের নাম, ঠিকানা জানা যায়নি।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ শাহ আলম ঘটনাস্থলের ৫ শ’ গজের মধ্যে ১৪৪ জারি করে। ফলে এলাকাবাসী ও গণমাধ্যম কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌছতে পারেনি। দূর থেকেই তা প্রত্যক্ষ করতে হয়েছে।