১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শিমের চাষের জেলা লালমনিরহাট

শিমের চাষের জেলা লালমনিরহাট

নিজস্ব সংবাদদাতা, লালমনিরহাট ॥ বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে সবুজ আর ফুলে ফুলে ছেঁয়ে গেছে। সেই সবুজের দিকে তাকালে লতার সমারোহ আর তার ফাঁকে ফাঁকে ছোট্ট নীল-সাদা অজস্র ফুল ফুটে আছে। বুক সমান উচ্চতায় বাঁশের মাচানজুড়ে। এতে জন্মেছে অসংখ্য শিম। এই শিম লালমনিরহাট থেকে চলে যাচ্ছে ঢাকা, সিলেট, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। এভাবেই প্রতিদিন দেশের বৃহত্তম শিমের হাট দুরাকুটিহাট ও কুমড়িরহাটে বিক্রি হচ্ছে ট্রাকে ট্রাকে শিম। প্রতিদিন প্রায় ২৫-৩০ ট্রাক শিম এ জেলা হতে অন্য জেলায় ছড়িয়ে পড়ছে।

লালমনিরহাট কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের তথ্যমতে, এ জেলায় বিস্তৃীর্ণ এলাকাজুড়ে শিম আবাদ শুরু হয় ১৯৯৭ সালে। চলতি মৌসুমে জেলার সদরে ২১০ হেক্টর জমিতে ৩২১ মে: টন, আদিতমারি উপজেলায় ১৪৭৬০ হেক্টর জমিতে ১৩৬৩৪ মে: টন, কালিগঞ্জ উপজেলায় ১৩০ হেক্টর জমিতে ৫০০ মেট্রিক টন, হাতীবান্ধা উপজেলায় ৮৩০ হেক্টর জমিতে ৯৭০০ মেট্রিক টন ও পাটগ্রাম উপজেলায় ১০৫০ হেক্টর জমিতে ১০৯০০ মেট্রিক টন শিম আবাদ ও উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে। ফলনো হয়েছে বাম্পার। দামও পেয়েছে কৃষক পরিবার গুলো।

কৃষির সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা এই এলাকার নামকরণ করেছেন ‘শিমের গ্রাম’। শিম চাষে ঝামেলা তুলনামূলক কম এবং অন্যান্য ফসলের তুলনায় লাভজনক। তাছাড়া বেশ কিছু দিন সময় নিয়ে ধীরে ধীরে গাছ থেকে শিম সংগ্রহ করে বিক্রি করা যায়। ২৩টি গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই কম-বেশি শিম চাষ হচ্ছে। বাড়ির আঙিনা এবং এলাকার বিভিন্ন সড়কের দুই পাশে শিমের মাচান রয়েছে। বুড়িমারি থেকে রংপুরগামী মহাসড়কের দুই পাশে এবং দৈখাওয়াহাট থেকে দুরাকুটি সড়কের দুই পাশে মাঠের পর মাঠ শুধু শিম ক্ষেত।

এ ব্যাপারে লালমনিরহাটের কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক বিধু ভূষন রায় বলেন, এ এলাকার মাটি শিম চাষের জন্য উপযোগী। ফলে শিম চাষে সাফল্য এসেছে। যা দেশের শিম বিপণনের সবচেয়ে বড় হাট কুমড়িরহাট ও দুরাকুটিহাট। সারা দেশ থেকে পাইকারী ক্রেতারা এই হাটে আসেন। প্রতিদিন ভোরবেলা থেকে হাট বসে। বিক্রি চলে রাত পর্যন্ত। ট্রাক যোগে চলে যায় দেশের নানা প্রান্তে।