১৪ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘নগর এ্যাপসে’ থেকে কাক্সিক্ষত সেবা পাচ্ছে না নগরবাসী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ২০১৬ সালের ২ আগস্ট উদ্বোধন হয় একটি মোবাইল এ্যাপস। অল্প কিছু দিনের মধ্যেই ব্যাপক সাড়া জাগায় সেটি। এ্যাপসটির মাধ্যমে এলাকার রাস্তা, সড়কবাতি, বর্জ্য, ড্রেনেজ, মশা, অবৈধ দখলসহ নানা বিষয়ে অভিযোগ বা মতামত সরাসরি পাঠানো যেত।

পাশাপাশি মোবাইলে ছবি তোলার পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে তা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছানো, সিটি কর্পোরেশনের প্রধান কার্যালয়সহ বিভিন্ন জোনে থাকা বড় পর্দায় প্রতিটি অভিযোগ ও মতামত দেখার ব্যবস্থাও ছিল এ্যাপসটিতে। এছাড়া অভিযোগের প্রকার বিশ্লেষণ করে সিটি কর্পোরেশন সমাধানের যে উদ্যোগ নেবে সেটিও জানা যেত। সমস্যার সমাধান হলে অভিযোগকারীও স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিষয়টি জানতে পারতেন। এই ব্যবস্থা ছিল ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ডিজিটাল সেবা ‘নগর এ্যাপসে’। নাগরিক সেবাবিষয়ক তথ্য ছাড়াও এ্যাপসটিতে বিভিন্ন ফিচার সংযুক্ত ছিল। গুগল প্লে-স্টোর থেকে বিনামূল্যে এ্যাপসটি ডাউনলোড ও ইনস্টল করে রেজিস্ট্রেশন করার মাধ্যমে যে কেউ ব্যবহার করতে পারতেন। এ্যাপসটি ব্যবহার করতে এ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের স্মার্টফোন ও ইন্টারনেট সংযোগ লাগে। এছাড়া নিরাপত্তাজনিত কোনো সমস্যা হলে জিপিএস প্রযুক্তির মাধ্যমে কোন ব্যক্তি তার অবস্থানস্থল ও পাশের মানুষ সম্পর্কে পরিবারের কাছে তথ্য পাঠাতে পারতেন। ছিল হাসপাতাল, ফায়ার সার্ভিস, ক্লিনিক, পুলিশ স্টেশনসহ অন্যান্য সেবা সংস্থার তথ্যও।

প্রথম দিকে এ্যাপসটিতে নগরবাসীর ব্যাপক সাড়াও মিলেছিল। কিন্তু মেয়র আনিসুল হকের অকাল প্রয়াণে এর কার্যক্রমও স্থবির হয়ে গেছে। নগরবাসীও আর কাক্সিক্ষত সেবা পাচ্ছে না এ্যাপসটির মাধ্যমে। ডিএনসিসি সূত্রে জানা গেছে, স্পন্সর না পাওয়া এবং এর জন্য সংস্থাটির নিজস্ব অর্থ বরাদ্দ না থাকায় এই সেবা কার্যক্রম সঠিকভাবে পাওয়া যাচ্ছে না। এছাড়া এ্যাপসটি ক্র্যাশও করেছিল। তবে, আশার কথা এ্যাপসটিতে আরও নতুন নতুন ফিচার যুক্ত করে চালুর উদ্যোগ নিয়েছে ডিএনসিসি।

যাত্রার শুরুতেই ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাওয়া এ্যাপসটি গুগল প্লে স্টোরে যাওয়ার পর ১০ হাজার বারের বেশি ডাউনলোড হয়েছে। এ বিষয়ে ডিএনসিসির আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা (উপ-সচিব) এস এম অজিয়র রহমান বলেন, এ্যাপসটি আসলেই খুবই জনপ্রিয় ছিল। এতে আরও কিছু নতুন ফিচার যুক্ত করে আরও ভালভাবে চালুর উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। আশা করা যায় এ বছরের শেষ নাগাদ নতুন ভাবে এ্যাপসটি ফের চালু হবে।

হাসিবুর রহমান নামে গুলশানের এক বাসিন্দা বলেন, আগে যে কোন জায়গায় ময়লা-আবর্জনা জমলে ছবি তুলে এলাকার নামসহ নগর এ্যাপসের মাধ্যমে জানানো হলে অল্প সময়ের মধ্যে তা সমাধান হয়ে যেত। অভিযোগ জানালে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সবাই জানতে পারতেন নাগরিকদের অভিযোগ সম্পর্কে। কিন্তু এখন এমন পরিস্থিতি হয়েছে যে এ্যাপসটি সঠিকভাবে চলে না। কোন অভিযোগও জানানো যায় না।

তিনি বলেন, এই এ্যাপসটি পেয়ে নগরবাসী খুব খুশি ছিল, যে যার এলাকার যে কোন বিষয়ে সরাসরি অভিযোগ জানাতে পারতেন। কিন্তু বর্তমানে তা স্থবির। ডিএনসিসির উচিত আবারও দ্রæত এই এ্যাপসটি চালু করে নাগরিকদের কাছাকাছি যাওয়া।