১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ড.কামাল দায়িত্ব নিয়েছেন খুনি বিএনপি দলকে রক্ষা করার জন্য : বাণিজ্যমন্ত্রী

ড.কামাল দায়িত্ব নিয়েছেন খুনি বিএনপি দলকে রক্ষা করার জন্য : বাণিজ্যমন্ত্রী

নিজস্ব সংবাদদাতা, ভোলা ॥ বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, একটা দৈন্যতা ভোগা দল যোগ্য কোন লোক নাই বলেই কামাল হোসেনের মতো একজন দল ত্যাগকারী নেতাকে বেছে নিয়েছে। যিনি কখনো সরাসরি নির্বাচনে নির্বাচিত হতে পারেননি। মন্ত্রী বলেন, নির্বাচন বানচাল করার ক্ষমতা কারোর নাই। তাদের যে ঐক্যজোট ৭ দফা দিয়েছে তার সব কয়টি সংবিধান পরিপন্থি। কোনটাই গ্রহন যোগ্য নয়। শুধু একটা দফা দেয়ার বাকি ছিলো, আমাদের হাতে ক্ষমতা দিয়েদেন। শনিবার বেলা ১১টায় ভোলা সদর উপজেলা পরিষদের অডিটোরিয়ামে ভোলা জেলা যুব মহিলা লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এসব কথা বলেন। এছাড়া বিকালে ভোলা বাংলা স্কুল মাঠে ভোলা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মরহুম অধ্যক্ষ মোফাজ্জল হোসেন শাহিনের স্মরন সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাখেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফয়েল আহমেদ ।

মন্ত্রী আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর ছেড়ে দেয়া আসন থেকে ডা.কামাল হোসেন নির্বাচিত হয়ে ছিলেন। ২ বার হয়ে ছিলেন, বঙ্গবন্ধুর আসন থেকে। আমরা তাকে ৮৬ সনে মনোনয়ন দিয়ে ছিলাম। তিনি হেরে গেছেন কিন্তু আমরা জিতেছি। ৯১ সনে মনোনয়ন দিয়েছিলাম আবার তিনি হেরে গেছেন কিন্তু আমরা ২টি আসনে আমরা জিতেছি। এখন তিনি জোট করেছেন তাদের সাথে যারা ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা করে শেখ হাসিনাকে হত্যা করার চেষ্টা করেছে। জোট করেছে তাদের সাথে যারা ২১ আগষ্ট ২৪ জনকে হত্যা করেছে। জোট করেছে তাদের সাথে যাদের বিচারে যাবজ্জীবন কারাদন্ড হয়েছে। ফাঁসির হুকুম হয়েছে তাদের সাথে। জোট করেছে তাদের সাথে যারা ৭১ সনে স্বাধীনতা বিরোধী মা বোনের ইজ্জত লুটেছে। তাদের কোন লক্ষ্য নাই উদ্দেশ্য নাই।

তিনি আরো বলেন, হয়তো ডিসেম্বর মাসের মধ্যে নির্বাচন হবে। নির্বাচনের তারিখ দিবে নির্বাচন কমিশন। অথবা যে কোন সময়। অর্থাৎ ২৮ জানুয়ারির আগে ৯০ দিনের মধ্যে যে কোন দিন নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচন হবে বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের অধিনে। যার প্রধানমন্ত্রী থাকবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নির্বাচন পরিচালনা করবে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন ঘোষিত তারিখ অনুসারে সকল দলের অংশ গ্রহনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলেই মন্ত্রী আশা করেন। বিএনপি যদি নিবাচনে না আসে সেই ভাষানীর দলের মতো অস্তিত্বহীন দলে বিএনপি পরিনত হবে। তিনি বলেন, জালাও পোড়াও করে বিএনপি ১৩ সালে চেষ্টা করেছে। ১৪ সালে নির্বাচন বানচালের চেষ্টা করেছিলো। ১৫ সালে ৯৩ দিন হরতাল অবরোধ করে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে মায়ের কোল খালি করে সফল হয়নি।

মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, এই ভোলা নিয়ে আমাদের অনেক স্বপ্ন। ভোলা-বরিশাল ব্রীজের সম্ভাবতা যাচাই হয়ে গেছে। খুব তারাতারি কাজ শুরু হবে। ভোলায় পর্যাপ্ত গ্যাস পাওয়া যাবে। এখানে গ্যাস ভিত্তিক অনেক কলকারখানা গড়ে উঠবে। আমরা ভোলাতে এখটাও কাঁচা রাস্তা রাখবনা। ভোলাকে আমরা নদী ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করতে পেরেছি। তিনি আরো বলেন, এই ভোলাতে ইতিপূর্বে অনেকে মন্ত্রী ছিলো। কিন্তু কেউ কিছু করেনি। এখানে বন্যা নিয়ন্ত্রন মন্ত্রী ছিলো কিন্তু তারা নদী ভাঙ্গন বন্ধ করতে পারেনি। কিন্তু আমরা সেই নদী ভাঙ্গন বন্ধ করেছি। বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিলো তখন লুটপাট ছিলো।

২০০১ সনের পর মা বোনের ইজ্জত লুট করে নিয়ে ছিলো। মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় না থাকলে দেশের উন্নয়ন বন্ধ হয়ে যাবে। প্রধানমন্ত্রী যদি আর ৫ বছর ক্ষমতায় থাকে পৃথিবীর মধ্যে বাংলাদেশে অন্যতম শ্রেষ্ঠ দেশ। এই ভোলা হবে সিঙ্গাপুরের মতো।

ভোলা জেলা যুব মহিলা লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক খাদিজা আক্তার স্বপ্নার সভাপতিত্বে এসময় আরো বক্তব্য রাখেন, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট মমতাজ বেগম, ভোলা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মমিন টুলু। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, বাণিজ্যমন্ত্রী সহধর্মীনি ও নারী জাগরনের অগ্রপথিক মিসেজ আনোয়ারা আহম্মেদ,সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো: মোশারেফ হোসেন, ভোলা জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি দোস্ত মাহামুদ, যুগ্ম সম্পাদক জহুরুল ইসলাম ককিব, এনামুল হক আরজু, সাংগঠনিক সম্পাদক সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল ইসলাম বিপ্লব, সফিকুল ইসলামসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্ধ। পরে খাদিজা আক্তার স্বপ্নাকে আহবায়ক ও নাজনিন আক্তার রুমাকে সদস্য সচিব করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি ঘোষনা করে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে কাজ করার জন্য আহবান জানান।