১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চোরাশিকারিদের হাত থেকে গন্ডারদের বাঁচাতেও সচেষ্ট রোহিত

চোরাশিকারিদের হাত থেকে গন্ডারদের বাঁচাতেও সচেষ্ট রোহিত

অনলাইন ডেস্ক ॥ ঝকঝকে শতরান করে তিনি কেবল ভারতকে জেতাচ্ছেনই না, বিরাট কোহলির দলের ওপেনার রোহিত শর্মা একই সঙ্গে চোরাশিকারিদের হাত থেকে গন্ডারদের বাঁচাতেও সমান সচেষ্ট। গুয়াহাটি ছাড়ার আগে জানিয়ে গেলেন, অস্ট্রেলিয়া সফর শেষ হলে দেশে ফিরে কয়েক দিন অবসর পাবেন। সেই সময় কাজিরাঙ্গার জঙ্গলে গিয়ে গন্ডারদের রক্ষা করার জন্য স্থানীয়দের মধ্যে সচেতনতা বাড়ানোর কাজ করবেন।

গোটা ঘটনার পিছনে অবশ্য রয়েছেন গুয়াহাটির বন্যপ্রাণ-সংরক্ষণ কর্মী জুলিন বড়ুয়া। রোহিতকে আগামী বছরের শুরুতে কাজিরাঙ্গা নিয়ে যাওয়ার উৎসাহ জুগিয়েছেন তিনিই। শনিবার বর্ষাপাড়া স্টেডিয়ামে রোহিতের সঙ্গে দেখা করে তিনি প্রস্তাব দেন, অসমে গন্ডারদের চোরাশিকারির হাত থেকে বাঁচানোর জন্য প্রচারাভিযানে অংশ নিতে। যা শুনে রাজি হয়ে যান বিশ্ব বণ্যপ্রাণ সংরক্ষণ সংস্থা ‘ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ডলাইফ ফান্ড’ (ডব্লিউ ডব্লিউ এফ)-এর ভারতীয় শাখার গন্ডার সংরক্ষণের শুভেচ্ছাদূত রোহিত। কথা দেন, অস্ট্রেলিয়া সফরের পরেই তিনি গুয়াহাটি উড়ে আসবেন। যাবেন কাজিরাঙ্গায়।

রবিবার রাতে বর্ষাপাড়া স্টেডিয়ামে ম্যাচ দেখতে এসেছিলেন জুলিন। গত কয়েক বছর ধরেই তিনি কাজ করছেন গন্ডার সংরক্ষণ নিয়ে। আনন্দবাজারকে তিনি বলেন, ‘‘খবরের কাগজ পড়েই জানতাম ডব্লিউ ডব্লিউ এফ-এর তরফে ভারতে গন্ডার সংরক্ষণের শুভেচ্ছাদূত রোহিত। অতীতে দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে তিনি প্রাক্তন ইংল্যান্ড ক্রিকেটার কেভিন পিটারসেনের সঙ্গে হাত মিলিয়ে গন্ডার সংরক্ষণের জন্য প্রচার অভিযানে অংশ নিয়েছেন। তাই শনিবার গন্ডারের সাজে বর্ষাপাড়া স্টেডিয়ামে ভারতীয় দলের অনুশীলনে চলে গিয়েছিলাম।’’

কী ভাবে মুম্বইকর ক্রিকেটারের সঙ্গে দেখা করে প্রস্তাব দিলেন, তা জানতে চাইলে জুলিন বলে যান, ‘‘ফেন্সিংয়ের বাইরে থেকে গন্ডারের পোশাক পরে রোহিতের নাম ধরে ডাকছিলাম। তিনি তখন জানতে চান, কী বলতে চাই। তখন ওঁকে বলি, গন্ডার সংরক্ষণ নিয়ে কিছু কথা বলতে চাই। এর পরেই রোহিত নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে আলোচনা করে স্টেডিয়ামের ভিতরে নিয়ে আসেন আমাকে।’’

তার পরে? জুলিনের কথায়, ‘‘অতীতে ধোনির সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা হয়েছিল। ধোনি ভাই সামনে থাকায় কথা বলা আরও সহজ হয়ে গিয়েছিল আমার কাছে। ধোনিই আমার কাজের কথা বলেন। দশ মিনিট সময় দিয়েছিলেন রোহিত। সেখানেই ওঁকে বলি কাজিরাঙ্গায় চোরাশিকারিদের উৎপাত ও জঙ্গল কেটে স্থানীয় মানুষ বসতি স্থাপন করায় নিশ্চিহ্ন হচ্ছে গন্ডার। যা শুনেই রোহিত বলে দেন, অস্ট্রেলিয়া সফরের পরেই তিনি কাজিরাঙ্গায় আসবেন। স্থানীয়দের মধ্যে গন্ডার সংরক্ষণ নিয়ে প্রচার করবেন।’’

গন্ডার সংরক্ষণ নিয়ে সচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি রোহিত মনোনিবেশ করছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে একদিনের সিরিজে নিজের ছন্দে ব্যাট করার ব্যাপারে। রবিবার প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারানোর পরে এ দিন সকালেই গুয়াহাটি ছাড়ল ভারতীয় দল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে জয়ের পরে স্বভাবতই খুশি বিরাট কোহালির দল। যদিও এর পরেও প্রশ্ন উঠছে, ভারতীয় অধিনায়ক পোক্ত মিডল অর্ডার চাইছেন, কিন্তু প্রথম তিন ব্যাটসম্যানই তো প্রায় পুরো ওভার ব্যাট করে ম্যাচ বার করে দিচ্ছেন বেশির ভাগ ক্ষেত্রে। মিডল অর্ডার সে ক্ষেত্রে ব্যাট করার সুযোগই পাচ্ছে না। রবিবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচেও তাই হয়েছে। ফলে মিডল অর্ডার ব্যাটিংয়ের অবস্থাটা কী, তা এখনও পুরোপুরি যাচাই করা যায়নি। তবে টপ অর্ডারের ব্যাটিং নিয়ে উচ্ছ্বসিত ভারতীয় দল। ওয়ান ডে দলে আবার জায়গা করে নেওয়া রবীন্দ্র জাডেজা বলছেন, ‘‘বিরাট-রোহিত নিজেদের ছন্দে ব্যাট করলে যে কোনও প্রতিপক্ষই সমস্যায় পড়বে। তা ছাড়া আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সবাইকেই সব পরিস্থিতির জন্য তৈরি থাকতে হয়। মিডল অর্ডারও সে ভাবেই তৈরি রাখছে নিজেদের।’’

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা