১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ আজ দক্ষিণ কোরিয়া

বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ আজ দক্ষিণ কোরিয়া

জাহিদুল আলম জয় ॥ দেশের ফুটবলকে সাফল্যের সোনারোদে ভাসিয়ে চলেছেন মেয়েরা। গত কয়েক বছর ধরেই দুর্দান্ত ধারাবাহিক সাফল্য পাচ্ছেন মৌসুমী, মারিয়া, সানজিদা, স্বপ্নারা। এরই ধারাবাহিকতায় এবার তাজিকিস্তানে এএফসি অনুর্ধ-১৯ নারী চাম্পিয়নশিপ বাছাইপর্বে মিশন শুরু করছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা।

বাছাইপর্বে আজ নিজেদের প্রথম ম্যাচেই অগ্নিপরীক্ষা দিতে হচ্ছে কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের দলকে। ‘ডি’ গ্রুপের ম্যাচে সবচেয়ে শক্তিশালী দল দক্ষিণ কোরিয়ার মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ অনুর্ধ-১৯ জাতীয় নারী ফুটবল দল। তাজিকিস্তানের দুশানবের পামির স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বেলা ৩টায়। প্রতিপক্ষ শক্তিশালী হলেও ভাল করার সঙ্কল্প নিয়ে মাঠে নামার অপেক্ষায় বাংলার বাঘিনীরা। কোরিয়ানরাও মারিয়াদের সাম্প্রতিক সাফলের কারণে লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের সমীহ করছেন।

গত এগারো মাসে অনুর্ধ পর্যায়ে বাংলাদেশের মেয়েরা তিনটি শিরোপা জিতেছে। যার মধ্যে দু’টি জিতেছে সেপ্টেম্বর ও চলতি মাসে। ২০১৭ সালের ২৪ ডিসেম্বর ঢাকায় অনুর্ধ-১৫ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতকে ১-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা জেতে বাংলাদেশের সোনার মেয়েরা। এরপর চলতি বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর ঢাকার কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহি মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে এএফসি অনুর্ধ-১৬ বাছাই চ্যাম্পিয়নশিপে সেরা হয় বাংলার কিশোরীরা। সাফল্যের এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকে চলতি মাসের শুরুতে ভুটানে সাফ অনুর্ধ-১৮ চ্যাম্পিয়নশিপে। গত ৭ অক্টোবর এই আসরে নেপালকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ণ হয় বাংলার মেয়েরা।

ধারাবাহিক সাফল্য পাওয়া এই তিন দলের বেশিরভাগ ফুটবলার আছেন তাজিকিস্তানে যাওয়া অনুর্ধ-১৯ দলে। যে কারণে কোচ ছোটন ভাল কিছু করার স্বপ্ন বুনছেন। কোরিয়ার বিরুদ্ধে ম্যাচের আগে বাংলাদেশ কোচ বলেন, প্রতিপক্ষ শক্তিশালী হলেও সবাই নিজের সেরাটা দিতে প্রস্তুত। আমাদের প্রস্তুতিও অনেক ভাল। আমরা গত এক বছর ধরে খেলার মধ্যে আছি। এই মাসেই আমরা ভুটানে জিতেছি সাফ অনুর্ধ-১৮ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপ। আমাদের মেয়েরা এখন অনেক অভিজ্ঞতা অর্জন করেছে। তাদের আত্মবিশ্বাসও বেড়েছে। আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মিশরাত জাহান মৌসুমীও। অফিসিয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমরা প্রস্তুত দক্ষিণ কোরিয়ার বিরুদ্ধে ভাল একটা ম্যাচ খেলতে। সবাই সিরিয়াস প্রথম ম্যাচ নিয়ে। প্রত্যেকে সেরাটা দেয়ার জন্য মুখিয়ে আছে। আশা করছি ভাল কিছুই হবে।

কাগজে-কলমে বাংলাদেশের চেয়ে অনেক শক্তিশালী দক্ষিণ কোরিয়া। তবু লাল-সবুজদের সাম্প্রতিক সাফল্যে তাদের সমীহ করছেন দেশটির কোচ হাট জাং জে। সংবাদ সম্মেলনে কোরিয়ান কোচ বলেন, আমরা এখানে সব ম্যাচ জিততে এসেছি। তবে বাংলাদেশ ভাল এবং পরিচ্ছন্ন দল। আশা করছি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ও উপভোগ্য ম্যাচ হবে। এবারসহ বাংলাদেশ অনুর্ধ-১৯ মহিলা দল এই আসরে দ্বিতীয়বারের মতো অংশ নিচ্ছে। প্রথমবার খেলেছে ২০১২ সালে। সেবার বাংলার মেয়েরা গ্রুপপর্বে উজবেকিস্তানের কাছে ২-০ এবং ভারতের কাছে ১-০ গোলে হেরে বিদায় নিয়েছিল।

দুশানবেতে বাংলাদেশের আগেও বিভিন্ন সময়ে খেলার অভিজ্ঞতা আছে। ২০১৬ সালে এএফসি অনুর্ধ-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বে চাইনিজ তাইপেকে ৪-২ এবং ২০১৪ সালে এএফসি অনুর্ধ-১৪ বালিকা আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়নশিপে (সাউথ এ্যান্ড সেন্ট্রাল) তাজিকিস্তানকে ৯-১ গোলে হারিয়েছিল লাল-সবুজের মেয়েরা। তবে দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে ০-৬ গোলে হারের তিক্ত অভিজ্ঞতাও আছে। খেলাটি হয়েছিল ২০১৭ সালে। এবার শুরুতেই শক্তিশালী কোরিয়ার সামনে মেয়েরা, এ কারণে সতর্ক হয়ে মাঠে নামার অপেক্ষায় মৌসুমীবাহিনী।