১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজস্ব আদায়ে বাংলাদেশ পিছিয়ে আছে : সিপিডি

রাজস্ব আদায়ে বাংলাদেশ পিছিয়ে আছে : সিপিডি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ উন্নয়নশীল দেশসমূহের তুলনায় রাজস্ব আদায়ে বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে আছে বলে মনে করে সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি)। সংস্থাটি তাদের এক গবেষণায় জানিয়েছে, দেশের ৬৫ শতাংশ মানুষ মনে করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কর ব্যবস্থায় দুর্নীতি বিরাজ করছে। পাশাপাশি ৫০ শতাংশ মানুষ মনে করে এনবিআরের কর ব্যবস্থা অত্যন্ত জটিল।

বৃহস্পতিবার রাজধানী গুলশানের খাজানা গার্ডেনিয়ায় অনুষ্ঠিত ‘বাংলাদেশের অর্থনীতির অনুঘটক সংগ্রহ ও ব্যবহারের প্রতিবন্ধকতা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রকাশিত গবেষণায় এই তথ্য তুলে ধরা হয়। প্রতিবেদেনটি প্রকাশ করেন সিপিডির সিনিয়র রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম খান। গবেষণা প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয় ১ হাজার ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে। এসময় উপস্থিত ছিলেন-সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা অর্থনীতিবিদ ড. এবি মির্জা আজিজুল ইসলাম, এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, সিপিডির সম্মানীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান, নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন প্রমুখ।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৮ সালে কেবল ৩২ শতাংশ মানুষ আয়কর দিয়েছেন। এর মধ্য উচ্চ আয়ের ২৫ শতাংশ মানুষের এক তৃতীয়াংশ গত বছর আয়কর দেননি। যারা দিয়েছেন তাদের মধ্যে অনেকে কর ফাঁকি দিয়েছেন। জরিপের ৭৫ শতাংশ মানুষ মনে করেন কর ব্যবস্থায় ধনী-গরিবের মধ্যে পক্ষপাতদুষ্ট। ৫০ শতাংশ মানুষকে মনে করেন এখনকার কর ব্যবস্থা অত্যন্ত জটিল। ৮৫ শতাংশ মানুষ মনে করেন এনবিআরের সেবা ও তার গুণগত মান বৃদ্ধি করলে জনগণ কর দিতে উৎসাহিত হবে।

সিপিডির সুপারিশে বলা হয়, কর অফিসকে একটি দুর্নীতিমুক্ত প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত করে মানুষের মধ্যে আস্থা বৃদ্ধি করা, ধনী অথচ কর ফাঁকি দেন এমন ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করা, সমতাভিত্তিক কর ব্যবস্থা বিকশিত করা।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে অধিকতর ন্যায্য এবং আধুনিক সম্পত্তি ও সম্পদ কর চালু করা। কর নীতি প্রণয়ন এবং বাস্তবায়নের সময় অংশগ্রহণমূলক ও স্বচ্ছ প্রক্রিয়া অনুসরণ করা। একই সঙ্গে যেকোনো নীতি প্রণয়নের আগেই যথাযথভাবে এর প্রভাব বিশ্লেষণ করা এবং অধিকতর শিক্ষিত ও আনুষ্ঠানিকভাবে কর্মরতদের কর দেয়ার সম্ভাবনা বেশি বিধায় আনুষ্ঠানিক খাতে কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি করাসহ ১০ দফা সুপারিশ এনবিআরকে দেয়া হয়।

গবেষণায় আরও বলা হয়, নিম্ন আয় থেকে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায় স্থান লাভ, এসডিজির লক্ষ্য অর্জন, বৈশ্বিক অর্থনীতির অস্থিরতা ইত্যাদির কারণে রাজস্ব আহরণের গুরুত্ব অনেক। কিন্তু জিডিপি অনুপাতে রাজস্ব সংগ্রহ ও কর আহরণ কোনো ক্ষেত্রেই অগ্রগতি হয়নি। উন্নয়নশীল দেশসমূহের তুলনায় রাজস্ব আদায়ে বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে রয়েছে।