১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিএনপি অফিসের সামনে নেতাকর্মীদের উপচেপড়া ভিড়

বিএনপি অফিসের সামনে নেতাকর্মীদের উপচেপড়া ভিড়
  • মনোনয়নপত্র সংগ্রহ চলছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহকে কেন্দ্র করে দ্বিতীয় দিনেও নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয় ছিল সরগরম। সারাদেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা মনোনয়ন প্রত্যাশীরা বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী নিয়ে শোডাউন করে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন। মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে ফরম সংগ্রহ শুরু হলেও তার এক ঘণ্টা আগে থেকেই নেতাকর্মীরা সেখানে জড়ো হয়ে ঢাক-ঢোল বাজিয়ে নেচে-গেয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। এর ফলে দিনভর সেখানে বিরাজ করে উৎসবমুখর পরিবেশ।

এদিকে বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মীর সরব উপস্থিতিতে দীর্ঘ ১০ বছর পর প্রাণ ফিরে পায় নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়। নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভরাডুবি ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করে বিএনপি রাজনৈতিকভাবে বেকায়দায় থাকায় দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা হতাশ হয়ে পড়ে। এর ফলে বিগত ১০ বছর দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের আনাগোনা ছিল খুবই কম। তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণের ঘোষণা দেয়ার পর থেকেই দলটির নেতাকর্মীর মাঝে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে আসে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ফের পুরনো চেহারায় ফিরেছে নয়াপল্টন এলাকা। বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও আশপাশের এলাকায় নেতাকর্মীদের উপচেপড়া ভিড়। রাস্তায় যানবাহন চলাচল বন্ধ। দলে দলে নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে আসা-যাওয়া করছে। এ এক ভিন্ন চিত্র, যা দীর্ঘ ১০ বছর দেখা যায়নি।

খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী রেখে বিএনপি নির্বাচনে যাবে কি যাবে না দলের সর্বস্তরে এমন আশঙ্কা থাকলেও শেষ পর্যন্ত ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার মাধ্যমে জোরেশোরে রাজনীতির মাঠে ফিরছে বিএনপি। নেতাকর্মীদের প্রাণবন্ত উপস্থিতিতে ভোটের অনেক আগেই ভোট উৎসব শুরু হয়ে গেছে।

বিএনপির এক তৃণমূল কর্মী সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ২০০৬ সালে বিএনপি ক্ষমতা ছাড়ার পর দলীয় কার্যালয়ের সামনে এমন উৎসবমুখর পরিবেশ আর দেখিনি।এতদিন এখানে গুমোট অবস্থা বিরাজ করলেও বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার ঘোষণার পর থেকেই নয়াপল্টনের দৃশ্যপট পাল্টে গেছে। বাদ্যযন্ত্রের তালে তাল মিলিয়ে নেতাকর্মীরা মিছিল-স্লোগানে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছে। বিজয়নগর নাইটিঙ্গেল মোড় থেকে ফকিরাপুল মোড় পর্যন্ত ছিল নেতাকর্মীর ভিড়। সব বাধা উপেক্ষা করেই নির্বাচনমুখী বিএনপির নেতাকর্মীরা।

প্রথমবারের মতো দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ছাড়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে বিএনপি। ফলে নেতাকর্মীর মাঝে বেদনা থাকলেও দীর্ঘদিন পর নির্বাচনে অংশগ্রহণ করায় সেটা চাপা পড়ে গেছে। নয়াপল্টন এলাকায় নেতাকর্মীর ভিড়ের কারণে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সড়কে চলাচলকারী মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়ে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে সোমবার থেকে বিএনপির মনোনয়ন ফরম বিতরণ শুরু হয়। দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে ফরম সংগ্রহ করলেও জমা দেয়ার সময় দিতে হচ্ছে ২৫ হাজার টাকা করে। আজ বুধবার থেকে মনোনয়ন ফরম জমা শুরু হবে। ১৬ নবেম্বর পর্যন্ত মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমা দেয়া যাবে। গত ২ দিনে বিএনপির মনোয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে ২ সহ¯্রাধিক। এর মধ্যে প্রথম দিনে বিক্রি হয় ১হাজার ৩২৬টি ফরম। আর দ্বিতীয় দিনে বিক্রি হয় আরও সহ¯্রাধিক।

বুধবার উল্লেখযোগ্য বিএনপি নেতাদের মধ্যে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন (কুমিল্লা-২) , গয়েশ্বর চন্দ্র রায় (ঢাকা -৩), ভাইস চেয়ারম্যান ডাঃ জাহিদ হোসেন (ময়মনসিংহ-৩), শামসুজ্জামান দুদু (চুয়াডাঙ্গা-১), বিএনপির শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম (বাগেরহাট-৪), ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেল (ঢাকা-৮) প্রমুখ।

বাবার জন্য মনোনয়ন ফরম বিক্রির পর বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের মেয়ে নিপুন রায় বলেন, মানুষ আওয়ামী লীগের অন্যায়-অত্যাচারের জবাব দিতে প্রস্তুত। জনগণ গণতন্ত্রের মা খালেদা জিয়াকে ব্যালটের মাধ্যমে জবাব দিয়ে মুক্ত করবে। তিনি বলেন, সাত দফা মেনে নিয়ে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করলে বিএনপি বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে।

বাবার জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহ শেষে হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের মেয়ে সূচনা বলেন, গণতন্ত্রের মা খালেদা জিয়া ও বাবা হাবিব-উন নবী খানের মুক্তি দাবি করছি। দল মনোনয়ন দিলে বাবার বিজয় সুনিশ্চিত। দেশের মানুষ অত্যাচার ও নির্যাতনের জবাব দেবে ব্যালটের মাধ্যমে নীরবে ।

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলা বিএনপি নেতা জুলফিকার আলী ভুট্টো বলেন, আমরা বিপুল উৎসাহ নিয়ে সুনামগঞ্জ-১ আসনের বিএনপি নেতা অধ্যাপক ডাঃ রফিক চৌধুরীর জন্য মনোনয়ন কিনতে এসেছি। দীর্ঘ সময় পরে হলেও বিএনপি নেতাকর্মীরা এখানে জড়ো হয়েছে। দেখে ভাল লাগছে। বিপুল উৎসাহ বিরাজ করছে নেতাকর্মীর মধ্যে। যদি নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় বিএনপি এবার বিপুল ভোটে জিতে ক্ষমতায় যাবে।

এদিকে মনোনয়ন ফরম বিতরণকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বিএনপির মুখপাত্র রুহুল কবির রিজভী বলেন, অবাধ-সুষ্ঠু নির্বাচনের সামান্যতম পরিবেশ তৈরি করতে ব্যর্থ হয়েছে নির্বাচন কমিশন। ভোট কারচুপি ও ভোট ডাকাতির ইভিএম মেশিন আরও ব্যাপকভাবে ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট জালিয়াতিরই মহাপরিকল্পনা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ও তাদের মিত্রদের ছাড়া বিএনপিসহ দেশের সব রাজনৈতিক দল, নির্বাচন বিশেষজ্ঞ, সুশীল সমাজ, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী ও জনমতকে উপেক্ষা করে সীমিত আকারে ইভিএম ব্যবহারের ঘোষণা দিয়েছিলেন সিইসি। কিন্তু দু’দিন আগে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) সাহাদাত হোসেন ৮০ থেকে ১০০টি আসনে ইভিএম ব্যবহারের ঘোষণা দিয়েছেন। যা আরও গভীর চক্রান্ত বলে সকলেই বিশ্বাস করছে।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে বিএনপিসহ রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে বানোয়াট মামলা দেয়া, গ্রেফতার ও হয়রানি বন্ধের নির্দেশ দেয়া হলেও এখন পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন এলাকায় নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হচ্ছে, গ্রেফতার করা হচ্ছে, তল্লাশির নামে বাড়ি বাড়ি হানা দিয়ে হুমকি দেয়া হচ্ছে।

নির্বাচিত সংবাদ