১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হাল না ছেড়ে ড্র করার লক্ষ্য জিম্বাবুইয়ের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ মিরপুর টেস্টের তৃতীয় দিন শেষে স্বাগতিক বাংলাদেশ আছে চালকের আসনে। ২১৮ রানে পিছিয়ে থাকায় ফলোঅনে পড়েছে জিম্বাবুইয়ে। কিন্তু আবার বাংলাদেশ দল ব্যাটিংয়ে নামবে নাকি চতুর্থ দিনের শুরুতেই ফলোঅনে রেখে সফরকারীদের পুনরায় ব্যাটিংয়ে পাঠাবে সেটা নিশ্চিত নয়। কিন্তু জিম্বাবুইয়ের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ব্রেন্ডন টেইলর মনে করেন বাংলাদেশের উচিত হবে আবার জিম্বাবুইয়েকে ব্যাটিংয়ে পাঠানো। বিদেশের মাটিতে প্রথম সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ১১০ রান করা এ ডানহাতি স্বীকার করলেন মিরপুর টেস্টে আর কোনভাবেই জিতবে না তার দল, তবে হাল না ছেড়ে ড্রয়ের জন্য লড়াই করবে তারা। অপরদিকে, ক্যারিয়ারের ষষ্ঠবার ইনিংসে ৫ উইকেট তুলে নেয়া তাইজুল ইসলামও জানালেন ফলোঅনের ব্যাপারে দল যে সিদ্ধান্ত নেবে তা ইতিবাচক হবে। সোমবার তৃতীয় দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তারা।

প্রথম ইনিংসে মুশফিকুর রহীমের ২১৯ রানের দুর্দান্ত এক হার না মানা ইনিংসে ৫২২ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ। আর সেখানেই অনেকখানি এগিয়ে গেছে তারা। জবাবে ৩০৪ রান করলেও এখন বিপদের মুখে জিম্বাবুইয়ে। এ বিষয়ে টেইলর বলেন, ‘এখনও আমরা খেলায় দীর্ঘ পথ পেছনে পড়ে আছি। যেহেতু বাংলাদেশ ৫০০ রান করেছে, সেই অবস্থান থেকে হারা খুব কঠিন। তাই আমাদের এখনও খেলার অনেকখানিই বাকি আছে। যেভাবে মুশি এতগুলো বল খেলেছে এবং এত মনোসংযোগ ও শৃঙ্খলা দেখিয়েছে, সত্যিই তা বিস্ময়কর ছিল। আমরা অবশ্যই সেটার প্রশংসা করি। তিনি ব্যাট করে আমাদের ম্যাচ থেকে ছিটকে দিয়েছে। এটাই আমাদের করার আছে, খেলার শেষ পর্যন্ত ব্যাট করা। আমরা এই ম্যাচ জিতছি না, আমরা শুধু এই ম্যাচটি ড্রই করতে পারি।’ এ কারণে টেইলরও মনে করছেন বাংলাদেশের উচিত হবে চতুর্থ দিন আবার জিম্বাবুইয়েকে আগে ব্যাটিং করতে দেয়া। কারণ চতুর্থ দিনে ব্যাটিং করাটা আরও কঠিন। তিনি বলেন, ‘ঢাকায় চতুর্থ ও পঞ্চম দিনে দেখতে পাই ব্যাটিং করাটা কঠিন থেকে কঠিনতর হতে থাকে। সুতরাং আমি জানি না বাংলাদেশ আগামীকাল কি করবে? তারা কি দুই সেশন ব্যাট করে তারপর বল করবে নাকি আবার তারা বোলিং শুরু করবে, আমি জানি না। কিন্তু চতুর্থ ও পঞ্চমদিনে আপনারাও দেখেন যে খেলার গতিপথ বদল হয়। আমরা এখনও বেশ পেছনে। তারা ২২০ রানে এগিয়ে (২১৮)। আমি যদি বাংলাদেশী হতাম তাহলে আবার বোলিং করতাম। কারণ যদিও আমরা ৩০০ পেয়ে যাই, বাংলাদেশকে ৮০ তাড়া করতে হবে। তারা হয়তো দুই সেশন ব্যাট করতে চাইতে পারে, তখন নিশ্চিতভাবেই আমরা অনেক পিছিয়ে পড়ব। যখন কোন দল ৫০০ পেয়ে যাই তারা কম সময়ই হারে।’

এখনও অবশ্য সবকিছুর শেষ দেখছেন না টেইলর। তবে ড্র করতে হলেও কঠিন লড়াই করতে হবে জিম্বাবুইয়েকে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এখনও সব শেষ হয়নি, অবশ্যই না। কিন্তু এ ম্যাচে এমনকি ড্র করাটাও আমাদের জন্য নিশ্চিতভাবে চ্যালেঞ্জ হয়ে গেছে। বাস্তবিকপক্ষে, এটা খুবই বিস্ময়কর হবে আমরা যদি এ ম্যাচ ড্র করি। কিন্তু আমাদের বিশ্বাসটা থাকতে হবে যে আমাদের ব্যাটসম্যান আছে এবং তাদের সেই মানসিক শক্তি দেখাতে হবে এটা করার জন্য। আজ রাতের আলোচনা হচ্ছে যে, আমাদের অনেক খেলতে হবে। কোনভাবেই থুবড়ে পড়া কিংবা হাল ছেড়ে দেয়ার সুযোগ নেই। আমাদের লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।’ তাইজুলও নিজেদের অবস্থান এখন দারুণ পর্যায়ে দেখতে পাচ্ছেন। তিনি বলেন, ‘চতুর্থ ও পঞ্চম দিন তো আছেই। উইকেট যত সময় যাবে তত খারাপ হবে। ফলোঅন নিয়ে কোন কথা হয়নি। আমার কাছে মনে হয় আমরা ভাল অবস্থানে দাঁড়িয়ে আছি। আমরা যাই করি না কেন (ফলোঅন) ভাল করলে ফলাফল ইতিবাচক হবে।’