২৪ জানুয়ারী ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মনোনয়ন ফরম জমার শেষ দিনে উৎসবমুখর বিএনপি অফিস

  • সাক্ষাতকার শুরু কাল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমা শেষ হয়েছে। মনোনয়ন ফরম জমার শেষ দিন শুক্রবার নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয় ছিল উৎসবমুখর। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সেখানে ছিল সারাদেশ থেকে আসা নেতাকর্মীদের

উপচেপড়া ভিড়। এদিকে আগামীকাল রবিবার থেকে বিএনপি চেয়ারপার্সনের গুলশান কার্যালয়ে শুরু হচ্ছে বিএনপির মনোনয়ন ফরম নেয়া প্রার্থীদের সাক্ষাতকার। এ দিন রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের প্রার্থীদের সাক্ষাতকার নেয়া হবে। চলবে ২০ নবেম্বর পর্যন্ত। পঞ্চগড়-১ আসন দিয়ে সাক্ষাতকার শুরু হবে।

শুক্রবার বিএনপির মনোনয়ন ফরম সংগ্রহের ৫ম দিন এবং মনোনয়ন ফরম জমার তৃতীয় এবং শেষদিন সকাল থেকেই বিভিন্ন জেলা থেকে আগত মনোনয়ন প্রত্যাশীরা তাদের কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে বাদ্যযন্ত্র ও মিছিলসহ নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে গিয়ে জড়ো হন। ব্যানার, ফেস্টুন ও প্ল্যাকার্ডসহ নেতাকর্মীদের ঢাকঢোল এর বাজনা আর মুহুর্মুহু স্লোগানে নয়াপল্টন এলাকায় বিরাজ করে উৎসবের আমেজ। দলীয় মনোনয়ন পেতে নিজেদের সাধ্যের প্রায় সবটুকুই উজাড় করে চেষ্টা চালান ধানের শীষের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।

শুক্রবার বেলা ১১টায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের (ঠাকুরগাঁও-১) মনোনয়ন ফরম জমা দেন তার এপিএস মোঃ ইউনুস আলী। এরপর দুপুর ১২টার দিকে ব্যাপক শোডাউন করে মনোনয়ন ফরম জমা দেন যশোর-৪ আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ইঞ্জিনিয়ার টিএস আইয়ুব। এরপর মনোনয়ন ফরম জমা দেন খালেদা জিয়া পরিবারের আইনজীবী আক্তারুজ্জামান (ঢাকা-১৩)। এ সময় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শিরিন সুলতানা ঢাকা-৯ ও কুমিল্লা-১ আসানের মনোনয়ন প্রত্যাশী স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম আবুল কালাম আজাদ মনোনয়ন ফরম জমা দেন।

১২ নবেম্বর থেকে শুরু হয় বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ। প্রথম দিনে ১ হাজার ৩২৬, দ্বিতীয় দিনে ১ হাজার ৮৯৬ এবং তৃতীয় দিনে ৪৪৮ জন এবং চতুর্থ দিন ৪০২ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন। প্রথম ৪ দিনে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন ৪ হাজার ৭২ জন। আর জমা শুরুর পর প্রথম দিন ১৪ নবেম্বর ৩৯১ এবং ১৫ নবেম্বর জমা পড়ে ৮৫৮টি মনোনয়ন ফরম। প্রথম ২ দিনে জমা পড়ে ১ হাজার ২৪৯টি মনোনয়ন ফরম। আর শেষ দিন শুক্রবার মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন এবং জমা দেন।

এবার ফেনী-৩ আসন থেকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চান দলের কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুল লতিফ জনি। শুক্রবার মনোনয়ন ফরম জমা দিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, সুষ্ঠু ভোট হলে জনগণ ধানে শীষে ভোট দিয়ে আমাকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করবে।

এদিকে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দফায় দফায় সংবাদ সম্মেলন করে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, নির্বাচন কমিশন সরকারের আজ্ঞাবহ প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো আরেকটি এক তরফা ও প্রহসনমূলক নির্বাচন হতে যাচ্ছে। নির্বাচনে সরকারী দলকে বিশেষ সুবিধা দিচ্ছে আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশন। সরকারী দল প্রতিনিয়ত আচরণবিধি ভঙ্গ করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

রিজভী বলেন, আগারগাঁও নির্বাচন কমিশনের অফিসে আওয়াামী লীগ নেতাকর্মীদের অবাধ বিচরণ ঘটছে। নির্বাচন কমিশন অফিসটি বর্তমানে আওয়ামী লীগ অফিসে পরিণত হয়েছে। আওয়ামী লীগের নির্দেশে পরিচালিত হচ্ছেন নির্বাচন কমিশনের কিছু উর্ধতন কর্মকর্তা। সরকারের নির্দেশ প্রতিফলন ঘটানোর জন্য নির্বাচন কমিশনে নিয়মিত অফিস করছেন আওয়ামী লীগের নির্বাচন বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান বাবলা।

রিজভী বলেন, বিনা উস্কানিতে বুধবার নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে পুলিশ নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করেছে। পুলিশের আচরণ দেখে আমাদের মনে হয়েছে নির্বাচনে সরকারকে বিজয়ী করতে পুলিশ কাজ শুরু করেছে। পুলিশ বলছে তারা ৬৮ নেতাকর্মীকে আটক করেছে। কিন্তু আমরা ১৫০ নেতাকর্মী নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার খবর পাচ্ছি। এদের মধ্যে আবার ৩৮ জনকে ৫ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

রিজভী বলেন, তফসিল ঘোষণা হওয়ার পরও আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-এমপিরা উদ্বোধনীসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করছেন। এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোন আচরণবিধি তৈরি হয়নি। পুরো নির্বাচন ব্যবস্থা একটি জগাখিচুড়ি পদ্ধতিতে এগিয়ে চলছে। নির্বাচন কমিশন সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হলেও এখন সরকারী প্রতষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।

রিজভী বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাতকার ১৮ নবেম্বর রবিবার থেকে গুলশানে দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে শুরু হবে। প্রথমদিন রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাতকার অনুষ্ঠিত হবে। পরে ধারাবাহিকভাবে অন্য বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাতকার নেয়া হবে।

এই মাত্রা পাওয়া