১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দণ্ড প্রাপ্তদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন ড. কামাল ॥ হানিফ

দণ্ড প্রাপ্তদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন ড. কামাল ॥ হানিফ
  • রাষ্ট্রপতি হওয়ার লোভে

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ শুধু রাষ্ট্রপতি হওয়ার লোভে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেন সন্ত্রাসী ও দ-প্রাপ্ত আসামিদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ। শনিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে সাংবাদিক সমীরণ রায়ের লেখা ‘বঙ্গবন্ধু-বাংলাদেশ এক ও অভিন্ন’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। হানিফ বলেন, শুক্রবার ঐক্যফ্রন্টের নেতারা সম্পাদকদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। সেখানে একজন সাংবাদিক বন্ধু জিজ্ঞাসা করেছিলেন ‘আপনারা যদি জয়লাভ করেন তাহলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন?’ তারা বলেছেন, পরে ভেবে দেখব বা সময়ই বলে দেবে। জাতির সামনে এটা বলতে তারা লজ্জাবোধ করেছেন।

কারণ, জাতি জানে তারা যদি জয়লাভ করেন তাহলে তাদের প্রধানমন্ত্রী ওই সন্ত্রাসী একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি তারেক রহমানকেই বানাতে হবে। তিনি বলেন, ড. কামাল হোসেন এখন প্রকাশ্যে এ কথাটা (তারেক রহমান প্রধানমন্ত্রী হবেন) বলতে কুণ্ঠাবোধ ও লজ্জাবোধ করছেন বলেই তিনি মুখে বলছেন না। তিনি রাষ্ট্রপতি হওয়ার স্বপ্নে বিভোর হয়ে আছেন। তাই এ ধরনের দ-প্রাপ্ত আসামিদের সঙ্গেও হাত মেলাতে কুণ্ঠাবোধ করেননি।

নয়াপল্টনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ ও পুলিশের গাড়িতে আগুন দেয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে হানিফ বলেন, আমরা অবাক হলাম বিএনপি যে সন্ত্রাসী কর্মকা- ঘটাল, পুলিশের ওপর হামলা ও পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করার মাধ্যমে যে সন্ত্রাসী কর্মকা- হলো, সে বিষয়ে ঐক্যফ্রন্টের নেতা হিসেবে ড. কামাল হোসেনের একটি শব্দও আমরা দেখিনি। নিন্দাও তিনি করতে পারেননি। তিনি এ ব্যাপারে দুঃখ প্রকাশও করেননি। এর মাধ্যমে এটা প্রমাণিত, ড. কামাল হোসেন ঐক্যফ্রন্টের নেতা হিসেবে থাকলেও সকল কলকাঠি নড়ে লন্ডন থেকে। ড. কামাল হোসেনও হয়ত লন্ডনের ভয়ে প্রতিবাদ করেননি।

সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লায়ন চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক শুকুর আলী শুভ, লেখক সমীরণ রায়, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ।

মিথ্যা বলায় চ্যাম্পিয়ন ফখরুল- ড. হাছান ॥ মিথ্যা বলায় মির্জা ফখরুল ইসলাম চ্যাম্পিয়ন মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, মিথ্যাচারের একটা সীমা থাকে। তার মিথ্যাচার শুনে আমার লজ্জা হচ্ছে যে একজন ভদ্রবেশী মানুষ কিভাবে এত মিথ্যা বলতে পারে? সুতরাং মিথ্যা বলায় যদি কোন পুরস্কার দেয়া হতো তবে নিঃসন্দেহে চ্যাম্পিয়ন হতেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) ভাসানী আয়োজিত মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিএনপিকে অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, ষড়যন্ত্র করে নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করে কোন লাভ হবে না। সুতরাং নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার যে প্রক্রিয়া আপনারা শুরু করেছেন তা অব্যাহত রাখুন এবং আসুন নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্রের ভিতকে আমরা শক্তিশালী করি।

বঙ্গদীপ এমএ ভাসানীর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুলসহ ন্যাপ ভাসানীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।