১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্বস্তিদায়ক অবস্থায় রয়েছে মূল্যস্ফীতি ॥ পরিকল্পনামন্ত্রী

স্বস্তিদায়ক অবস্থায় রয়েছে মূল্যস্ফীতি ॥ পরিকল্পনামন্ত্রী

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ এনইসি সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন পরিকল্পনামন্ত্রী বর্তমানে সব নিত্যপণ্যের দাম নিম্নমুখী বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল। তিনি বলেন, নির্বাচনি হাওয়ায়ও নিত্যপণ্যের বাজারে নেতিবাচক কোনেও প্রভাব পড়বে না। বরং সামনে নিত্যপণ্যের দাম আরও কমবে।গত অর্থবছরের তুলনায় এ বছর মূল্যস্ফীতি স্বস্তিদায়ক অবস্থায় রয়েছে। মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, দেশে কৃষিপণ্যের বাম্পার ফলন হয়েছে। চাল উৎপাদনও ভালো হয়েছে। তাই সব পণ্যের দামই সহনীয় পর্যায়ে আছে। ডলারের বিপরীতে টাকার বিনিময়মূল্যও সহনীয় পর্যায়ে আছে। ফলে আদা, রসুন, পিঁয়াজ, তেল ও ডাল কিনতে বাড়তি খরচ হয় না। তিনি আরও বলেন, নবেম্বরে মূল্যস্ফীতি কমেছে। নির্বাচনের কারণে ডিসেম্বরেও মূল্যস্ফীতি বাড়বে না। নভেম্বরে পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৩৭ শতাংশ, যা তার আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৪০ শতাংশ। খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে কমেছে দশমিক ৭৮ শতাংশ। আর এর আগের মাস অর্থাৎ অক্টোবরের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে। এ মাসে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ২৯ শতাংশ, যা তার আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক শূণ্য ৮ শতাংশ। খাদ্য বহির্ভূত পণ্যেও মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ, যা তার আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৯০ শতাংশ।

সিপিআইয়ের হালনাগাদ তথ্য তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, বিশ্ববাজারে তেল, ডাল ও চিনির দাম কমেছে। ফলে দেশে মূল্যস্ফীতির হারে ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এর প্রভাবে চলতি বছরের নবেম্বর মাসে সাধারণ মূল্যস্ফীতির হার কমে হয়েছে ৫ দশমিক ৩৭ শতাংশ। অক্টোবর মাসে সাধারণ মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৫ দশমিক ৪০ শতাংশ।

নির্বাচনের আগে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ানোর শঙ্কা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, ভোটের সময় আমরা চাল ও সবজি বেশি খাবো না। কিন্তু চা তৈরির জন্য চিনি একটু বেশি লাগবে। ভোটে অন্যান্য উৎসবের মতো আমরা সন্তানদের নতুন নতুন কাপড়-চোপড়ও কিনে দেই না। সুতরাং ভোটে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ার কোনও আশঙ্কা নেই। এখন সব কিছুর দাম কম, ভোটের পরও দাম কম থাকবে। সংবাদ সম্মেলনে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা কমিশনের সিনিয়র সচিব জিয়াউল ইসলাম, সাধারন অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম, তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী প্রমুখ।