১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কোহলির ব্যাটিংয়ের ভিডিয়ো পোস্ট করেছে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট বোর্ড

কোহলির  ব্যাটিংয়ের ভিডিয়ো পোস্ট করেছে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট বোর্ড

অনলাইন ডেস্ক ॥ অ্যাডিলেড ওভালে টেস্ট সিরিজ শুরুর আটচল্লিশ ঘণ্টা আগে ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়া স্বভাবসিদ্ধ গরম গরম কথাবার্তা কোথায়! সেই স্লেজিংয়ের আবহ এমনিতেই এ বারে স্তিমিত থাকার কথা অস্ট্রেলিয়া জুড়ে ক্রিকেটারদের ভদ্রলোক করার ডাক ওঠায়। তা বলে কে ভাবতে পেরেছিল যে, খোদ টিম পেনদের বোর্ডেই ফলাও করে কোহালি বন্দনা চলবে!

ভারত অধিনায়ককে নিয়ে এমনিতেই অস্ট্রেলিয়া জুড়ে নজিরবিহীন আগ্রহের হাওয়া বইতে শুরু করেছে। সেটাকেই আরও বাড়িয়ে দিয়েছে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট বোর্ডের একটি ভিডিয়ো। কোহলির ব্যাটিংয়ের ভিডিয়ো পোস্ট করে মঙ্গলবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া তাদের টুইটার হ্যান্ডলে লিখেছে, ‘শব্দ-সহ দেখুন’! অর্থাৎ কি না, ব্যাট যে রকম মিষ্টি শব্দ সহকারে বলকে পেটাচ্ছে, সেটা দেখলেই বুঝতে পারবেন কোহলি কী রকম ফর্মে রয়েছেন।

মঙ্গলবার নেটে বিরাট ছিলেন রীতিমতো আগ্রাসী মেজাজে। একের পর এক হুক, পুল, স্ট্রেট ড্রাইভ, স্কোয়ার কাট মারতে দেখা গেল তাঁকে। একটা ছয়ও হাঁকালেন। অস্ট্রেলীয় পেসাররা যে তাঁকেই প্রধান নিশানা করবেন, সেই ইঙ্গিত তাঁরা দিয়েই রেখেছেন। তাই নেট প্র্যাক্টিসে এসে নিজের দলের পেসারদেরও যেন ম্যাচের মেজাজেই খেললেন। মোহাম্মদ শামির একটি ভয়ঙ্কর বাউন্সারের ছোবল থেকে বিরাট নিজেকে বাঁচালেন চরম ক্ষিপ্রতায়। যে ভিডিয়ো দেখে আর যাই হোক, অস্ট্রেলীয়রা স্বস্তি পাবেন না হয়তো।

বিরাটকে থামানোর উপায় নিয়ে টিম পেন-দের শিবিরে চর্চা তুঙ্গে। বিপক্ষের সেরা ব্যাটিং অস্ত্রকে কী ভাবে থামাবেন, সেই পরামর্শ প্রাক্তন তারকাদের কাছ থেকেও পেয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার পেসাররা। কিন্তু শুধু বিরাট নয়, চর্চা যে চলছে অন্য ব্যাটসম্যানদের নিয়েও, তা মঙ্গলবার জানিয়ে দিলেন অলরাউন্ডার মিচেল মার্শ। মঙ্গলবার সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলে দেন, ‘‘বিরাট বড় ব্যাটসম্যান। ওর জন্য তো কৌশল তৈরিই আছে আমাদের। কিন্তু লোকে যদি ভেবে থাকে, আমরা ওদের অন্য ব্যাটসম্যানদের জন্য তৈরি হইনি, তা হলেও ভুল করবেন। অন্য ব্যাটসম্যানেরাও তো যথেষ্ট ভাল।’’

অস্ট্রেলিয়া শিবির থেকে যা ইঙ্গিত, বৃহস্পতিবার থেকে শুরু প্রথম টেস্টে সহ-অধিনায়ক মার্শের প্রথম এগারোয় জায়গা হবে কি না, তা নিয়েই সন্দেহ দেখা দিয়েছে। মঙ্গলবার সিডনির এক জনপ্রিয় সংবাদপত্রের খবর, মার্শ সম্ভবত খেলবেন না। বোলিংয়ে পারফম্যান্স খারাপ না হলেও ব্যাট হাতে সম্প্রতি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে তেমন ভাল রান পাননি তিনি। অস্ট্রেলিয়া শিবির ছয় ব্যাটসম্যানে নামতে চাইছে বলে শোনা যাচ্ছে। আর সম্প্রতি ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রচুর রান করে ওপেনার মার্কাস হ্যারিস টেস্ট দলের ওপেনার হিসেবে অনেকটা এগিয়ে রয়েছে বলে মার্শকে বসতে হতে পারে বলে জানাচ্ছে সংবাদপত্রটি। মার্শ নিজেও সেটা জানেন। কিন্তু তিনি যে-হেতু বল হাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারেন, তাই হয়তো শেষ পর্যন্ত প্রথম এগারোয় তাঁকে দেখা গেলেও যেতে পারে। তিনি বলছেন, ‘‘গত কয়েক সপ্তাহে পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার জন্য ভাল বল করেছি। এ বার অস্ট্রেলিয়াকেও বল হাতে সাহায্য করতে চাই। দলের অসময়ে, মানে ৭০-৮০ ওভারে, যখন উইকেটের অবস্থা খারাপ, কিন্তু উইকেট চাই, ওই সময়ে বোলিংয়ে সাফল্য চাই। নিজের বোলিংকে পরবর্তী পর্যায়ে নিয়ে যাওয়াই এখন লক্ষ্য আমার।’’

আর ব্যাটিং নিয়ে শন মার্শের ভাই ও জিওফ মার্শের ছেলে বলছেন, ‘‘ছয় নম্বরে ব্যাট করতে নামা মানে বড় দায়িত্ব। এই জায়গাটাতে নিজেকে পাকা করার চেষ্টা করাটাও এখন আমার কাজ।’’ সম্প্রতি অ্যাডিলেডে শেফিল্ড শিল্ডের ম্যাচ খেলেছেন মার্শ। তাই এখানে উইকেট কেমন, তা জানেন। সেই অভিজ্ঞতা থেকে বললেন, ‘‘প্রথম দিকে বোলাররা সুবিধা পেলেও পরে কিন্তু এখানে ব্যাটসম্যানরাই রান পায়। তাই আমার মনে হয়, দু’পক্ষেরই ভাল সুযোগ আছে এখানে।’’

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা