২২ মার্চ ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্রার্থীরা এখন মাঠে ॥ এবার রেকর্ড প্রতিদ্বন্দ্বী ১৮৪১

প্রার্থীরা এখন মাঠে ॥ এবার রেকর্ড প্রতিদ্বন্দ্বী ১৮৪১
  • ২৮ ডিসেম্বর মধ্যরাত পর্যন্ত আচরণবিধি মেনে প্রচার চালানো যাবে;###;এবার দুয়ারে দুয়ারে ভোট প্রার্থনা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শুরু হলো আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচার। কমিশনের সব ধরনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রার্থীরা এখন ভোটের মাঠে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থীরা চ‚ড়ান্ত প্রতীক বরাদ্দ পেয়েই আনুষ্ঠানিক প্রচারে নেমে পড়েছেন। শুরু করেছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট প্রার্থনা। এবারের ব্যতিক্রমী বিষয় হচ্ছে ইসির নিবন্ধিত সব রাজনৈতিক দল নির্বাচনে প্রার্থী দিয়েছে। সব দল অংশ নেয়ায় এবার ভোট হবে উৎসবমুখর। এবার সারাদেশে ১৮৪১ প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। এর মধ্যে রাজনৈতিক দলের প্রার্থী রয়েছেন ১৭৪৫ এবং স্বতন্ত্র হিসেবে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন ৯৬ জন প্রার্থী। নির্বাচনে এবার দল ও স্বতন্ত্র মিলে রেকর্ডসংখ্যক প্রার্থী মাঠে রয়েছেন। আগামী ২৮ ডিসেম্বর মধ্য রাত পর্যন্ত প্রার্থীরা আচরণবিধি মেনে প্রচার চালাতে পারবেন।

আনুষ্ঠানিক প্রচারে নামার

আগে সোমবার তিনশ’ আসনের চূড়ান্ত প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। প্রতীক বরাদ্দ নিয়েই বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা নিজ নিজ এলাকায় ছুটে যান। প্রচার শুরু হওয়ায় নগর, গ্রাম, হাটবাজার পাড়া মহল্লা হয়ে উঠেছে নির্বাচনের কেন্দ্রবিন্দু। চায়ের কাপে নির্বাচনী ঝড় উঠেছে। আলোচনা একটাই এবারের কে হবে বিজয়ী। কারা সরকার গঠন করবে তা নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ শুরু হয়ে গেছে। রিটার্নিং কর্মকর্তারা প্রার্থীদের আচরণবিধি মেনে প্রচারের নির্দেশ দেন।

এদিকে ইসির পক্ষ থেকেও নির্বাচনী প্রচারের আচরণবিধি মেনে চলতে কঠোর নির্দেশনা দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের দেয়া হয়েছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা ভোটারদের মাঝে আস্থার পরিবেশ সৃষ্টি করতে নির্বাচনী দায়িত্বে থাকা বিচারিক হাকিমদের প্রতি এই আহ্বান জানিয়েছেন। সোমবার তাদের উদ্দেশে দেয়া এক ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, সংবিধান ও আইনের ভিত্তিতে দায়িত্ব পালন করবেন। সুতরাং সাংবিধানিক দায়িত্ব ও স্বাধীনতার ক্ষেত্রে মূলত সোমবার থেকেই নির্বাচনী ডামাডোল শুরু হলো।

ইসি চায় না আপনাদের মাধ্যমে এলাকায় আতঙ্কের সৃষ্টি হোক, আস্থার পরিবেশ যেন সৃষ্টি হয় সেটাই চাই। গত ৯ ডিসেম্বর প্রার্থীরা প্রত্যাহার শেষে দলগুলোর পক্ষ থেকে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জমা দেন। রিটার্নিং কর্মকর্তা চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা এবং দলীয় মনোনয়ন অনুযায়ী প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেন। এর মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর প্রার্থীদের মধ্যে দলের নিবন্ধিত প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে দল থেকে চূড়ান্ত করা প্রার্থীকে। অপরদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা পেয়েছেন ইসির বরাদ্দ প্রতীক। লটারির মাধ্যমে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। তবে জোটের ভোটে এবার বেশিরভাগ প্রার্থী নির্বাচন করছেন নৌকা অথবা ধানের শীষ নিয়ে। এবার নির্বাচনে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতাও হবে এই দুই প্রতীক ও জোটের মধ্যে।

ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী প্রার্থীরা আগামী ২৮ ডিসেম্বর রাত বারোটা পর্যন্ত নির্বাচনী প্রচার চালাতে পারবেন। প্রতীক ছাড়া কোন প্রার্থী নির্বাচনে দেয়াল লিখন বিল বোর্ড, ব্যানার বা অন্য কোন মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচার চালাতে পারবে না। একটি নির্দিষ্ট সাইজের প্রতীক কেবল ঝুলিয়ে বা টাঙ্গিয়ে রাখতে পারবেন। কোন প্রতীক দেয়ালে বা অন্য কোথাও লাগাতে পারবে না। প্রতীকে কেবল দলীয় প্রধান বা প্রার্থীর ছবির ব্যবহার করতে হবে। এর বাইরে বেলা দুটো থেকে রাত আটটা পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় কোন প্রার্থী মাত্র দুটি মাইক ব্যবহার করে প্রচার চালাতে পারবেন। এছাড়া প্রার্থীরা পুলিশের অনুমতি নিয়ে সভা সমাবেশ করতে পারবেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন নির্বাচনে ৩৯ দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে মূলত ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোটের নৌকা এবং বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের ধানের শীষ প্রতীকে। নিবন্ধিত দুই-তৃতীয়াংশ রাজনৈতিক দলই এবার জোটগত নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ জোটের ২৭২ প্রার্থী নৌকা প্রতীকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেছেন। এর মধ্যে দলের প্রার্থীরা ২৫৮ আসনে নৌকা নিয়ে লড়ছেন। মহাজোটর শরিক জাতীয় পার্টির নিজস্ব প্রতীক লাঙ্গলে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেছেন।

বিএনপি জোটের ২৯২ প্রার্থীই ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। এর মধ্যে ড. কামালের নেতৃত্বে গণফোরাম প্রার্থীরা যেমন রয়েছেন, তেমনি জামায়াতের প্রার্থীরা এবার ধানের শীষে লড়ছেন। দুই জোটের বাইরেও প্রার্থীরা নিজ নিজ প্রতীকে অংশ নিচ্ছেন।

সোমবার আনুষ্ঠানিক নির্বাচনের আগে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে ভিড় করেন প্রার্থীরা। প্রতীক পেয়েই বিজয়ের হাসি নিয়ে বেরিয়ে পড়েন। এ সময় রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রার্থীদের দল ও প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচরে আচরণবিধি মেনে চলার নির্দেশ দেন। আচরণবিধি ভঙ্গ হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও উল্লেখ করা হয়।

ঢাকা মহানগরীর ১৫ আসনের ১৩২ জনের প্রতীক বরাদ্দ ॥ ঢাকা মহানগরের ১৫ আসনের প্রার্থীরা সকাল থেকে সেগুনবাগিচার বিভাগীয় কমিশনার ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে ভিড় করেন। রিটার্নিং কর্মকর্তার কর্যালয় সূত্র জানিয়েছে সোমবার প্রতীক বরাদ্দের দিনে ১৫ আসনের ১৩২ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রতীক বরাদ্দ শেষে বলেন দুপুর পর্যন্ত ১৫ আসনে ১৩২ প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১১২ জনকে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি ২০ প্রার্থী যেকোন সময় প্রতীক গ্রহণ করতে পারবেন।

ঢাকা মহানগরের ১৫ আসনের মধ্যে ঢাকা-৪ আসনে ৯ জনের মধ্যে ৮ জন প্রতীক নিয়েছেন। এছাড়া ঢাকা-৫ আসনে ১০, ঢাকা-৬ আসনে ৮, ঢাকা-৭ আসনে ১২ জনের মধ্যে ১০, ঢাকা-৮ আসনে ১৪, ঢাকা-৯ আসনে ৭, ঢাকা-১০ আসনে ৬ জনের মধ্যে ৫, ঢাকা-১১ আসনে ৮ জনের মধ্যে ৬, ঢাকা-১২ আসনে ৬, ঢাকা-১৩ আসনে ১০ জনের মধ্যে ৭, ঢাকা-১৪ আসনে ৭, ঢাকা-১৫ আসনে ১০ জনের মধ্যে ৬, ঢাকা-১৬ আসনে ৭ জনের মধ্যে ৬ জন, ঢাকা-১৭ আসনে ১০ জনের মধ্যে ৮ এবং ঢাকা-১৮ আসনে ৮ জনের ৫ জন প্রতীক নিয়েছেন।

চট্টগ্রাম ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দের পর চট্টগ্রামের ১৬ আসনে শুরু হয়ে গেছে ভোটের প্রচার। সোমবার প্রতীক পেয়েছেন জেলার মোট ১২৭ প্রার্থী। রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়। এরপরই বিভিন্ন দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ফিরে গেছেন নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায়। মূলত আজ মঙ্গলবারই শুরু হচ্ছে ভোট উৎসব। নগরী ও জেলার হাট বাজার ও পাড়া মহল্লা জমে উঠছে নতুন চেহারায়। নির্বাচনে মূলত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে প্রধান দুই দলের নেতৃত্বাধীন জোটের মধ্যে। লড়াই হবে নৌকা ও ধানের শীষ প্রতীকের মধ্যে। তবে একটি আসনে এলডিপি প্রার্থী ছাতা ও আরেকটি আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী লাঙ্গল প্রতীকে নির্বাচন করবেন। জোটের সমীকরণে চট্টগ্রামের ১৬ আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগ তিনটিতে ও বিএনপি চারটিতে শরিক দলকে ছাড় দিয়েছে।

বরিশাল ॥ উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্যদিয়ে সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিন স্বতন্ত্রসহ চূড়ান্ত ৩৮ প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। প্রার্থীরা কাক্সিক্ষত প্রতীক পেয়ে মহাখুশি।

প্রতীক বরাদ্দের সময় জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে বরিশাল-৫ (সদর) আসনের নৌকার প্রার্থী কর্নেল (অব) জাহিদ ফারুক শামীম ও ধানের শীষের প্রার্থী এ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার দলীয় প্রতীক আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করেছেন। এছাড়া জেলার ছয়টি সংসদীয় আসনে বিভিন্ন দলের বাকি ৩৬ প্রার্থী ও তাদের প্রতিনিধিগণ প্রতীক গ্রহণ করেছেন। ছয়টি সংসদীয় এলাকায় সর্বমোট ৩৮ প্রার্থীর মধ্যে ১৯ প্রতীক বরাদ্দ করেছে রিটার্নিং কর্মকর্তা।

সিলেট॥ ৬ আসনের প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে। সোমবার সকাল দশটার পর একে একে সিলেটের জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা এম কাজী এমদাদুল ইসলাম প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করেন। জেলার ছয়টি আসনে ৪০ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়।

নারায়ণগঞ্জ ॥ ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নারায়ণগঞ্জের ৫ আসনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, মহাজোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের চূড়ান্ত প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া প্রার্থী এবং প্রার্থীদের মনোনীত প্রতিনিধির হাতে প্রতীক তুলে দেন। এদিকে প্রতীক বরাদ্দ পেয়েই প্রচারে নেমে পড়েন প্রার্থী ও তাদের কর্মী সমর্থকরা। সোমবার সকাল দশটা থেকে দুপুর দুইটার মধ্যেই জেলার পাঁচটি সংসদীয় আসনের মোট ৩৫ জন প্রার্থীর হাতে নৌকা, ধানের শীষ, কাস্তে, লাঙ্গল, কোদালসহ বিভিন প্রতীক তুলে দেয়া হয়।

টাঙ্গাইল ॥ আটটি আসনের প্রার্থীদের মাঝে সোমবার প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে। সকালে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম তার কার্যালয়ে নির্বাচনের প্রার্থীদের হাতে প্রতীক তুলে দেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা নৌকা, জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা লাঙ্গল, বিএনপির প্রার্থীরা ধানের শীষ এবং অন্যান্য রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরা তাদের দলীয় প্রতীক ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা নির্ধারিত প্রতীক পেয়েছেন। প্রতীক পাওয়ার পরই প্রার্থীরা নেমে পড়েছেন প্রচারে। এদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টাঙ্গাইলের আটটি আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন ৮৩ জন প্রার্থী। এর মধ্যে যাচাই-বাছাইয়ে ৭৬ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ বলে ঘোষিত হয়। রবিবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে ২৩ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। টাঙ্গাইল জেলা রিটার্নিং অফিস সূত্রে জানা যায়, প্রতীক বরাদ্দ শেষে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টাঙ্গাইলের আটটি আসনে মোট ৫২ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নীলফামারী ॥ মনোনয়ন দাখিল, যাচাই-বাছাই ও মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার এবং প্রতীক বরাদ্দের পর আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হলো একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচার পর্বের ইনিংস। ৩০ ডিসেম্বর ভোটের দিন সামনে রেখে সোমবার দুপুর দুইটার পর ভোট চাই ভোটারের দোয়া চাই সকলের এই স্লোগানে নীলফামারীর চারটি আসনের ১৯ প্রার্থী তাদের স্ব স্ব দলের প্রতীক ও প্রার্থীর নাম নিয়ে প্রচার শুরু করে। বের হয় মাইক। ভরে ওঠে প্রার্থীদের সাদাকালো পোস্টার। সোমবার বেলা ১১টায় প্রতীক বরাদ্দ পায় নীলফামারীর চারটি আসনের বিভিন্ন দলের ১৯ প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী। জেলার চারটি সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক পেয়েছেন দুই জন, বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক পেয়েছেন চার প্রার্থী, জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীক পেয়েছেন তিন জন প্রার্থী, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাত পাখা প্রতীক পেয়েছেন চার প্রার্থী, ন্যাশনাল পিপলস পার্টিও আম প্রতীক পেয়েছেন দুই প্রার্থী, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি বাংলাদেশ ন্যাপ, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) ও জমিয়তে উলামায়ে বাংলাদেশের একজন করে প্রার্থী রয়েছে।

দিনাজপুর ॥ দিনাজপুর জেলায় ছয়টি সংসদীয় আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩৪ জন প্রার্থীকে নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দলীয় ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের প্রতীক প্রদান করা হয়েছে। সোমবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ২টার মধ্যে প্রার্থী এবং তাদের প্রতিনিধিদের হাতে দলীয় ও স্বতন্ত্র প্রতীক প্রদান করা হয়েছে। ইতোমধ্যে প্রার্থীরা তাদের নিজস্ব প্রতীক পেয়ে প্রচার শুরু করেছেন।

গাইবান্ধা ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৫ আসনে ৩৮ প্রার্থীর প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে সোমবার। প্রতীক নিয়েই প্রার্থীরা ছুটে যান ভোটের মাঠে।

যশোর ॥ ছয়টি সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপিসহ বিভিন্ন দলের ৩৭ প্রার্থী সোমবার তাদের নির্বাচনী প্রতীক পেয়েছেন।

মেহেরপুর ॥ দুটি আসনে ১১ প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ শেষ হয়েছে। সকাল সাড়ে এগারোটার দিকে প্রার্থীদের মাঝে আনুষ্ঠানিক প্রতীক বরাদ্দ দেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। এ সময় নির্বাচনের আচরণবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান রিটার্নিং কর্মকর্তা।

শেরপুর ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেরপুরের তিন আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ৬ প্রার্থীসহ প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকা ১২ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রার্থী ও প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে ওই প্রতীক বরাদ্দ করেন। তবে ৩ আসনেই স্বতন্ত্র কোন প্রার্থী না থাকায় প্রত্যেক প্রার্থীর অনুকূলে দলীয় প্রতীকই বরাদ্দ হয়েছে।

পটুয়াখালী ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৪ আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দিয়েছে পটুয়াখালী জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা। সোমবার সকাল সাড়ে দশটায় জেলা প্রশাসকের দরবার হলে সংসদীয় চার আসনের ২০ প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয় জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক।

কুষ্টিয়া ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুষ্টিয়ায় প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ ২৫ প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সোমবার দুপুরে প্রার্থী ও তাদের প্রতিনিধিদের হাতে প্রতীক তুলে দেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। কুষ্টিয়ায় চারটি সংসদীয় আসনে এবার আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও বাসদসহ বিভিন্ন দলের ২৫ প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

কুড়িগ্রাম ॥ চার আসনে ৩৬ প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে চার স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং বিভিন্ন দলের ৩২ প্রার্থী একাদশ সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। জেলার ৪ আসনের তিনটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী নেই। কুড়িগ্রাম-৪ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ১৩, কুড়িগ্রাম-৩ আসনে দলীয় ৮, কুড়িগ্রাম-২ আসনে দলীয় ৭ এবং কুড়িগ্রাম-১ আসনে ৮ প্রার্থী রয়েছেন।

নাটোর ॥ চার আসনের ২০ প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার সকালে নাটোর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে এই প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়। রিটার্নিং কর্মকর্তারা নৌকা, ধানের শীষ, হাতপাখা ও কুঁড়েঘরসহ দল অনুযায়ী প্রতীক বরাদ্দ দেন।