১৯ মার্চ ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিলেটে মাজারে যাচ্ছেন ঐক্যফ্রন্ট নেতারা

সিলেটে মাজারে যাচ্ছেন ঐক্যফ্রন্ট নেতারা

অনলাইন রিপোর্টার ॥ হযরত শাহজালাল ও শাহ পরানের মাজার জিয়ারতে সিলেটে যাচ্ছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। সেখান থেকেই তাদের আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচার শুরু হচ্ছে। বুধবারই তারা সিলেটে যাচ্ছেন বলে বিএনপির নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্বে থাকা নজরুল ইসলাম খান জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার বিকালে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বৈঠকের পর তিনি বলেন, “আগামীকাল বুধবার সিলেটে হযরত শাহ জালাল ও হযরত শাহ পরানের মাজার জিয়ারতের মধ্য দিয়ে আমাদের নির্বাচনী প্রচারণা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করব। সব সময় তাই করা হয়। আমাদের নেত্রী যখন ছিলেন উনিও তাই করতেন। আমরাও সেটা করব ইনশাল্লাহ।

“আমরা আশা করছি যে, আগামীকাল ড. কামাল হোসেন সাহেব যাবেন, বিএনপির পক্ষ থেকে আমি যাব। জেএসডির আ স ম আবদুর রব, কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগের বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী সাহেব যাবেন।”

জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপিকে নিয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেন। ঢাকা ছাড়াও সিলেটে ঐক্যফ্রন্টের জনসভায় যোগ দিয়েছিলেন তিনি। তবে ‘অসুস্থতার’ জন্য রাজশাহীতে যাননি তিনি। সিলেটে মাজার জিয়ারতের পর তারা শহরে নির্বাচনী প্রচার চালাবেন বলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান জানান।

নির্বাচন কমিশন প্রতীক বরাদ্দের পর নির্বাচনী প্রচারণার শুরুতে সকালে ঢাকা-৮ আসনের বিএনপির প্রার্থী মির্জা আব্বাস, ঢাকা-১১ আসনে শামীম আরা নিজ নিজ এলাকায় প্রচার চালান। চট্টগ্রামে আব্দুল্লাহ আল নোমান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীও প্রচারে যোগ দিয়েছেন। এর বাইরে দেশের বিভিন্ন জায়গায় প্রচারণা শুরু করেছেন বিএনপির প্রার্থীরা।

নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নজরুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে বৈঠকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের পাশাপাশি ঢাকাসহ আশপাশের প্রার্থী এবং বিএনপির সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, জেএসডির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন ছিলেন বৈঠকে।

এছাড়া ঢাকা-৯ আসনের প্রার্থী আফরোজা আব্বাস, ঢাকা-৪ আসনের সালাহউদ্দিন আহমেদ, গাজীপুর-২ আসনের সালাহ উদ্দিন সরকার, গাজীপুর-৪ আসনের শাহ রিয়াজুল হান্নান, মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনের আবদুল হাই, ঢাকা-১৪ আসনের সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিকী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালও উপস্থিত ছিলেন।

বিজয় শোভাযাত্রা করবে ঐক্যফ্রন্ট

বিজয় দিবস উপলক্ষে ১৬ ডিসেম্বর বিকালে ঢাকায় বিজয় শোভাযাত্রা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, “আমরা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের একটা সভা করে দুটি বিষয় আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগামী ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ও আগামী ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় উপযাপন করব।

“১৪ ডিসেম্বর সকাল ৮টায় আমরা মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করব। ১৬ ডিসেম্বর সকাল ৮টায় সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে গিয়ে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাব।

“সেখান থেকে ফিরে বিএনপির প্রোগ্রাম আছে- শেরেবাংলা নগরে শহীদ জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত করব। বিকাল ৩টায় আমরা মহানগর বিজয় দিবসের র্যালি করব। এটি হবে শান্তিপূর্ণ সুশৃঙ্খল ও বর্ণাঢ্য।”

বিজয় দিবস উপলক্ষে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়, গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয় এবং পুরানা পল্টনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কার্যালয়ে আলোকসজ্জা করা হবে বলে জানান তিনি।