২৩ জানুয়ারী ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিএনপি নেতা মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পাকিস্তানী গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইর সঙ্গে টেলিফোন আলাপের ঘটনা ফাঁসের পর বিএনপি নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে থানায় রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আনা হয়েছে। বিভিন্ন টেলিভিশনসহ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া টেলিফোন আলাপের সূত্র ধরে মোশাররফের বিরুদ্ধে থানায় রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ এনেছেন কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর মোহাম্মদ আলী সুমন।

তার অভিযোগ, পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের এজেন্ট মেহমুদের সঙ্গে কথোপকথনে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ‘বানচালের ষড়যন্ত্র’ করেছেন খন্দকার মোশাররফ। এ বিষয়ে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে পুলিশ প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে মোহাম্মদ আলীর আবেদনে। দাউদকান্দি থানার ওসি মোঃ আলমগীর হোসেন জানান, মোহাম্মদ আলীর অভিযোগটি তারা গ্রহণ করেছেন। রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি লাগে, এ কারণে বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। অডিওতে এক পাশের কণ্ঠ খন্দকার মোশাররফের এবং অন্যপ্রান্তের কণ্ঠ কথিত সেই আইএসআই কর্মকর্তার বলে দাবি করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, সেই আইএসআই এজেন্ট আছেন দুবাইয়ে। তাদের দেখা হয়েছিল ইসলামাবাদের একটি হোটেলে। তারা আবারও বৈঠক করতে চাইছেন, কিন্তু মামলা জটিলতায় তা সম্ভব হচ্ছে না। কথোপকথনের এক পর্যায়ে তাকে বলতে শোনা যায়, আমি এখনও তাই আছি যা আপনারা ভাবেন। কিন্তু বাস্তবতা হলো, আমার পক্ষে বাইরে এসে সরাসরি যোগাযোগ করা সম্ভব না। আমি জানি, তা করা গেলে ভাল হতো। কিন্তু আমি এখানে আপনার লোকের সঙ্গে দেখা করতে পারি, আপনারা বার্তাটা পেতে পারেন। কিন্তু আমি আপনাদের অনুরোধ করতে চাই, আপনারা যদি আপনাদের দিক থেকে চীনের সঙ্গে কো-অপারেট করতে পারেন, বাংলাদেশে, সেটা নির্বাচনের আগে ফলপ্রসূ হতো।

অপর প্রান্ত থেকে বলা হয়, সেটা এরই মধ্যে করা হয়েছে। সেজন্যই একজন প্রতিনিধিকে পাঠালে ভালো হয়। চিকিৎসার কারণে বা ওমরাহ করাতে যদি দেশের বাইরে যাওয়ার সুযোগ হয়, সেখানেও বৈঠকের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। তবে তার আগে বাংলাদেশে তাদের ‘অফিসের’ যিনি আছেন, তার মাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষা করা হবে।

কথোপকথনের কথা মোশাররফের অস্বীকার ॥ এদিকে অস্বীকার করে এক বিবৃতিতে খন্দকার মোশাররফ দাবি করেছেন, মুদ নামে ওই ব্যক্তিকে আমি চিনি না বা ভিডিওতে কথিত আইএসআইয়ের কোন ব্যক্তি বা কর্মকর্তাকেও চিনি না। কথিত ব্যক্তি কিংবা আইএসআইর কোন কর্মকর্তার সঙ্গে কখনও আমার কথোপকথন হয়নি।