২৩ জানুয়ারী ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কাজীপুরে অপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহাম্মদ নাসিম

বাবু ইসলাম, সিরাজগঞ্জ ॥ নৌকার বিজয় হবেই হবে রেকর্ড করা গান এবং মুক্তিযুদ্ধের গান বাজিয়ে অবিরাম প্রচার চলছে। মাইকে ভেসে আসছে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ৭ মার্চের কালজয়ী ভাষণ। বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুরুষ ও মহিলাকর্মীরা নৌকার পক্ষে বিনয়ের সঙ্গে ভোট প্রার্থনা করছেন। আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সকল সংগঠন মহিলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা দুর্গম চরাঞ্চল ও মুল ভূ-খ-ে নৌকার বিজয়ের জন্য মাঠে নেমেছেন। সর্বত্রই এক আওয়াজ ‘নাসিম ভাইয়ের সালাম নিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন, শেখ হাসিনার মার্কা নৌকা মার্কা, মুক্তিযুদ্ধের মার্কা, নৌকা মার্কা। আওয়ামী লীগের দুর্গ হিসেবে পরিচিত সিরাজগঞ্জ-১ (কাজিপুর- সিরাজগঞ্জ সদরের একাংশ) আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ নাসিমের নির্বাচনী প্রচারের এমন দৃশ্য সর্বত্র। অন্য যে কোন সময়ের চেয়ে এবারের নির্বাচনে দলের নেতাকর্মীরা এক ধাপ এগিয়ে, একাট্টা হয়ে মাঠে নেমেছেন। তবে কোথাও বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী কণ্ঠশিল্পী রুমানা মোর্শেদ কনকচাপার পোস্টার লিফলেট চোখে পড়েনি। তিনি মাঠে নেমেছেন এমন কথা কারও কাছে শোনা যায়নি। কাজিপুরের গান্ধাইল, সোনামুখী, চালিতাডাঙ্গা ইউনিয়ন এবং কাজিপুর উপজেলা সদরের বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিন ঘুরে এমন পরিস্থিতি চোখে পড়েছে।

চালিতাডাঙ্গা ইউনিয়নের হাটশিরা লক্ষ্মীপুর দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও হাটশিরা গ্রামের অধিবাসী রাশেকুল ইসলাম অনু জানালেন, কাজিপুরের সর্বত্র নির্বাচনী উৎসব শুরু হয়েছে। তবে তার এলাকায় নৌকা ছাড়া অন্য কোন প্রার্থীর প্রচার নেই। তিনি শুনেছেন বিএনপি থেকে কণ্ঠশিল্পী কনকচাপা ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন। কিন্তু এখনও তার কোন প্রচার নেই, কোন পোস্টার লিফলেট নেই, এমনকি প্রার্থী নিজেও মাঠে নামেননি।

প্রায় অভিন্ন ভাষায় কথা বললেন সোনামুখী বাজারের সিএনজি চালক সাইফুল ইসলাম। তার এলাকায় নৌকা ছাড়া অন্য কোন প্রার্থীর প্রচার নেই। তিনি শুনেছেন, ধানের শীষ মার্কার এক প্রার্থী ইলেকশনে টাকা জমা দিয়েছেন। কিন্তু তার কোন তৎপরতা নেই। সোনামুখী ইউনিয়নে তার কোন প্রচারকর্মীও নেই।

কাজিপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান নির্বাচনী হালচাল নিয়ে বলেছেন, স্বাধীনতা পরবর্তী যে কোন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চেয়ে এবারের নির্বাচনকে উপজেলা আওয়ামী লীগ চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহণ করেই মাঠে প্রচার চালাচ্ছে। নির্বাচনী এলাকায় অন্য কোন প্রার্থী কেন মাঠে নেই প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন কেন তারা মাঠে নেই তা প্রতিদ্বন্দ্বী পক্ষই জানেন। তবে এটা ঠিক কাজিপুরে জন্ম নেয়া কোন প্রার্থী তো মোহাম্মদ নাসিমের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন না।

এই মাত্রা পাওয়া