২১ মার্চ ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সেরা ফ্যাক্টরির শীর্ষে ॥ সম্ভাবনার বাংলাদেশ

  • বিশ্বের প্রথম দশটি উন্নতমানের গার্মেন্টস শিল্পের সাতটিরই অবস্থান বাংলাদেশে ;###; জিনস পোশাক তৈরিতে শীর্ষ তিন দেশের একটি

রহিম শেখ ॥ তাজরীন ও রানা প্লাজা ধসের পর দেশের তৈরি পোশাক খাতের কারখানা সম্পর্কে বিশ্বব্যাপী যে নেতিবাচক ধারণা তৈরি হয়েছিল, তা পাল্টে দিয়েছে বাংলাদেশ। তৈরি পোশাক শিল্পে উন্নতমানের সবুজ কারখানা (গ্রিন ফ্যাক্টরি) নির্মাণে সারাবিশ্বে এখন শীর্ষে অবস্থান করছে বাংলাদেশ। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংগঠন ইউনাইটেড স্টেটস গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিলের (ইউএসজিবিসি) হিসেবে, বিশ্বের প্রথম দশটি উন্নতমানের কারখানার সাতটিরই অবস্থান বাংলাদেশে। অন্যদিকে সারাবিশ্বে জিনস বা ডেনিম পোশাক তৈরিতে শীর্ষ তিন দেশের একটি বাংলাদেশ। ইউরোপের বাজারে ডেনিম পোশাক বা জিনস রফতানিতে বাংলাদেশের অবস্থান প্রথমে। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম পোশাক রফতানিতে বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়। পাশাপাশি গত ১০ বছরে নিট ও ওভেন পোশাক রফতানিতে ঈর্ষণীয় সাফল্য পেয়েছে বাংলাদেশ। এই সময়ে পোশাক রফতানি খাতে আয় বেড়েছে ১ হাজার ৫০০ কোটি ডলার। পোশাক খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এসব কারখানাই আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং করছে। নেতিবাচক ধারণা দূর করে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করছে। বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেও শক্তিশালী ভূমিকা রাখছে। এখন দেশের রফতানি আয়ের ৮০ শতাংশই আসে তৈরি পোশাক শিল্প খাত থেকে। তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর হিসেবে, এ পর্যন্ত ৬৭টি গার্মেন্টস ও টেক্সটাইল কারখানা ‘গ্রিন ফ্যাক্টরি’ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের ইউএসজিবিসির স্বীকৃতি পেয়েছে। আরও ২২৭টি কারখানা পরিবেশবান্ধব কারখানা হিসেবে গড়ে উঠছে। এগুলো আগামী দুই বছরের মধ্যে সনদ পাবে। অন্যদিকে, প্রতিবেশী ভারতের মাত্র পাঁচটি পোশাক কারখানা লিড সনদ পেয়েছে। সেদেশে এ তালিকায় নাম ওঠানোর জন্য অপেক্ষায় আছে আরও ২০টি কারখানা। তৈরি পোশাক খাতে বাংলাদেশের প্রতিযোগী পাকিস্তান ও ভিয়েতনাম এ তালিকায় অনেক নিচে অবস্থান করছে। তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের দাবি, ইউএসজিবিসির তালিকা অনুযায়ী পরিবেশবান্ধব কারখানার মান বিচারে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় তিনটি কারখানাও বাংলাদেশে। এর মধ্যে দুটি নারায়ণগঞ্জে, অন্যটি পাবনার ঈশ্বরদী ইপিজেডে (রফতানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা) অবস্থিত।

পরিবেশবান্ধব স্থাপনার শর্ত পরিপালন বিবেচনায় প্লাটিনাম, গোল্ড ও সিলভার সনদ দেয় ইউএসজিবিসি। এর বাইরে পরিবেশবান্ধব হিসেবেও সনদ দেয়া হয়। সব শর্ত পরিপালন করা হলে কারখানাটি প্লাটিনাম হিসেবে বিবেচিত হয়। বাংলাদেশে এরকম কারখানার সংখ্যা ১৩টি। এর পেছনে থাকা কারখানা গোল্ড এবং তারও পেছনে থাকা কারখানা সিলভার হিসেবে সনদ পায়। দেশে গোল্ড ও প্লাটিনাম সনদ পাওয়া কারখানা যথাক্রমে ২০ ও ২৭টি। আর সাধারণভাবে পরিবেশবান্ধব হিসেবে সনদ পাওয়া কারখানা এখন ৭টি। ইউএসজিবিসির শর্ত অনুযায়ী, পরিবেশবান্ধব কারখানা হিসেবে স্বীকৃতি পেতে যেসব শর্ত পূরণ করতে হয় তা হলো, ১. কারখানা নির্মাণে কী ধরনের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে; ২. কারখানায় সূর্যের আলোর কী পরিমাণ ব্যবহার হয়; ৩. সৌর বিদ্যুতের ব্যবহার করা হয় কি না; ৪. কারখানার নির্দিষ্ট দূরত্বের মধ্যে শ্রমিকদের বাসস্থান আছে কিনা; ৫. স্কুল, বাজার করার ব্যবস্থা বা বাসস্ট্যান্ড রয়েছে কিনা; ৬. সূর্যের আলো ব্যবহার করার পাশাপাশি সৌরবিদ্যুত ব্যবহার এবং বিদ্যুতসাশ্রয়ী বাতি ব্যবহার করা হয় কি না; ৭. বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করে তা ব্যবহার করা হয় কি না; ৮. কারখানা নির্মাণে নির্দিষ্ট পরিমাণ খোলা জায়গা রাখা হয়েছে কি না; ৯. অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা আছে কি না; ১০. বৈদ্যুতিক ফিটিংস স্থাপন ছাড়াও অগ্নিদুর্ঘটনা এড়াতে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হয়েছে কি না।

জানা গেছে, বস্ত্র ও পোশাক খাতের বিশ্বের সেরা তিন পরিবেশবান্ধব শিল্পের গর্ব এখন বাংলাদেশের। শিল্প তিনটি হলো এনভয় টেক্সটাইল, রেমি হোল্ডিংস ও প্লামি ফ্যাশনস। এর মধ্যে এনভয়ের কারখানাটি ময়মনসিংহে। বাকি দুটি নারায়ণগঞ্জে। সবুজ শিল্প হিসেবে বিশ্বের সেরার স্বীকৃতিপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান এ তিনটি। এ তিন সবুজ শিল্পে মোট বিনিয়োগ ১ হাজার ৬৪০ কোটি টাকা। যার মধ্যে এনভয় টেক্সটাইলের একক বিনিয়োগ ১ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। আর রেমি হোল্ডিংস ও প্লামি ফ্যাশনসের বিনিয়োগ ১২০ কোটি টাকা করে ২৪০ কোটি টাকা। বিশ্বে জিনস বা ডেনিম কাপড় উৎপাদন করার প্রথম পরিবেশবান্ধব কারখানা হচ্ছে এনভয় টেক্সটাইল। রেমি হোল্ডিংস, সারা বিশ্বের মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া পরিবেশবান্ধব পোশাক কারখানা এটি। প্লামি ফ্যাশনস, নিট পোশাক তৈরি করা বিশ্বের প্রথম পরিবেশবান্ধব কারখানা। দেশের বস্ত্র ও পোশাকশিল্পকে অনন্য এক উচ্চতায় নিয়ে গেছে প্রতিষ্ঠান তিনটি।

বিশ্বের সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া নিট পোশাক কারখানা প্লামি ফ্যাশন। রাজধানীর অদূরে নারায়ণগঞ্জে অবস্থিত এ কারখানাটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফজলুল হক। এরপরে রয়েছে রেমি হোল্ডিংস ও তারাসিমা এ্যাপারেলস। বিটপি গ্রুপের এই দুই কারখানার মালিক জিয়া ইসলাম। এসকিউ গ্রুপের তিনটি কারখানা লিড প্লাটিনাম সনদ পেয়েছে। এগুলো হচ্ছে- এসকিউ বিরিকিনা, এসকিউ কোলব্লেনস ও এসকিউ সেলসিয়াস-২। এরমধ্যে গ্রুপের লিড গোল্ড সনদ পেয়েছে এসকিউ সেলসিয়াস নামের আরও একটি কারখানা। গ্রুপটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম ফারুক। এনভয় গ্রুপের এনভয় টেক্সটাইল লিড প্লাটিনাম সনদ পেয়েছে। গ্রুপের চেয়ারম্যান কুতুবউদ্দিন আহমেদ। চট্টগ্রাম ইপিজেডের রিজেন্সি গার্মেন্টস (ইউনিট-১) লিড গোল্ড সনদ পেয়েছে। এটি যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠান। ময়মনসিংহের গ্রিন টেক্সটাইল সার্টিফায়েড সনদ পেয়েছে। ময়মনসিংহের এই কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর আহমেদ।

ধামরাইয়ে একেএইচ গ্রুপের একেএইচ ইকো এ্যাপারেলস লিড গোল্ড পাওয়া কারখানা। এই গ্রুপের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন। হংকংভিত্তিক বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান এপিক গ্রুপের ইপিক গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারিং কারখানাটি লিড সিলভার সনদ অর্জন করেছে। কারখানাটি নারায়ণগঞ্জের আদমজী ইপিজেডে। একই গ্রুপের প্রতিষ্ঠান আশুলিয়ার পার্ল গার্মেন্টসের লিড সিলভার ও সাভারের কসমোপলিটন ইন্ডাস্ট্রিজের (সিআইপিএল) লিড সিলভার সনদ আছে। লিড প্লাটিনাম সনদ পাওয়া নারায়ণগঞ্জের প্লামি ফ্যাশনসের কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফজলুল হক।

চট্টগ্রাম ইপিজেডে শ্রীলঙ্কান প্রতিষ্ঠান ইউনিভোগ গার্মেন্টস কোম্পানির কারখানাটি লিড সিলভার মানের। গাজীপুরে ইপিলিয়ন গ্রুপের ইপিলিয়ন স্টাইল কারখানা লিড গোল্ড সনদ পেয়েছে। গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রিয়াজ উদ্দিন আল-মামুন। গাজীপুরে ভিয়েলাটেক্স গ্রুপের ইকো কোটার কারখানাটি লিড গোল্ড সনদ অর্জন করেছে। গ্রুপের চেয়ারম্যান ডেভিড হাসনাত। হবিগঞ্জের সায়হাম নিট কম্পোজিট লিড সিলভার সনদ পাওয়া কারখানা। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ সাফকাত আহমেদ।

চট্টগ্রাম ও কর্ণফুলী ইপিজেডে শ্রীলঙ্কান প্রতিষ্ঠান কেনপার্ক গ্রুপের চারটি পোশাক কারখানা কেনপার্ক ২, ৩, ৪ ও ৫ লিড গোল্ড সনদ পেয়েছে। কর্ণফুলী ইপিজেডে আছে শ্রীলঙ্কান প্রতিষ্ঠান হেলা ক্লোথিং লিড গোল্ড সনদ পাওয়া কারখানা। এই ইপিজেডে ভেলটেক্স ইন্টারন্যাশনাল বিডি নামে লিড গোল্ড সনদ পাওয়া বিদেশী বিনিয়োগের কারখানা।

জানতে চাইলে তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, তাজরীন ও রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পর সারাবিশ্বে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাত নিয়ে নেতিবাচক প্রচার শুরু হয়। গার্মেন্টসের দরাদরিতে আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশের শক্তি কিছুটা খর্ব হয়। বর্তমানে তৈরি পোশাকের এসব কারখানা গ্রিন কারখানা হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার বিষয়টি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের ইতিবাচক ইমেজ গড়ে তুলেছে। এসব কারখানাই আগামীতে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশকে ব্র্যান্ডিং করবে। বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, বাংলাদেশের তৈরি পোশাক এখন সারাবিশ্বে পরিচিত। তাজরীন ও রানা প্লাজা ধসের পরের নেতিবাচক অবস্থা কাটিয়ে উঠেছে বাংলাদেশ। গার্মেন্টস পণ্য আগামীতে দেশের রফতানি বাণিজ্যে আরও বেশি অবদান রাখবে

পোশাক শিল্পে ডেনিম সম্ভাবনা ॥ সারাবিশ্বে জিনস বা ডেনিম পোশাক তৈরিতে শীর্ষ তিন দেশের একটি বাংলাদেশ। ইউরোপের বাজারে ডেনিম পোশাক বা জিনস রফতানিতে বাংলাদেশের অবস্থান প্রথমে। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম পোশাক রফতানিতে বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়। ইউরোপীয় ইউনিয়নের পরিসংখ্যান দফতর ইউরোস্ট্যাটের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪ সালে তুরস্ককে পেছনে ফেলে ইউরোপীয় ইউনিয়নে ডেনিম পোশাক রফতানিতে শীর্ষে পৌঁছায় বাংলাদেশ। বর্তমানে দেশে ২৬টি ডেনিম কারখানা রয়েছে। আরও ১৭টি কারখানা তৈরি হচ্ছে। উদ্যোক্তারা বলছেন, ডেনিম কারখানা তৈরিতে নতুন উদ্যোক্তারা অনেক বেশি আগ্রহী। তবে কারিগরি অদক্ষতার কারণে উচ্চমূল্যের পণ্য উৎপাদনে ঘাটতি রয়েছে। ওয়াশিং ইফেক্টের মাধ্যমে কাপড়ে বিশেষ গুণ সংযোজন থেকে শুরু করে নক্সায়, বৈচিত্রতা সর্বত্রই রয়েছে ঘাটতি। এ ঘাটতি পূরণে অধিকাংশই নির্ভর করতে হচ্ছে বিদেশী লোকবলের ওপর। তাছাড়া ডেনিমের কাপড় কিনতে হচ্ছে প্রতিদ্বন্দ্বী দেশগুলোর কাছ থেকে। আর এ কারণে রফতানিতে কিছুটা হলেও পিছিয়ে পড়তে হচ্ছে। ডেনিম খাতকে এগিয়ে নিতে পারলে ২০২১ সালের মধ্যে ৭০০ কোটি ডলারের বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা সম্ভব হবে।