১৯ জানুয়ারী ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ম্যানচেস্টার সিটির জয়রথ চলছেই

  • শিষ্যদের পারফর্মেন্সে সন্তুষ্ট কোচ পেপ গার্ডিওলা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ছুটেই চলছে ম্যানচেস্টার সিটির জয়রথ। শনিবার এভারটনকেও পরাজিত করেছে সিটিজেনরা। নিজেদের মাঠে এদিন পেপ গার্ডিওলার দল ৩-১ গোলে পরাজিত করে এভারটনকে। সেই সঙ্গে শীর্ষস্থানটাও দখল করে নেয় ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। ম্যানসিটি ছাড়াও এদিন জয়ের দেখা পেয়েছে ক্রিস্টাল প্যালেস, নিউক্যাসল ইউনাইটেড, টটেনহ্যাম হটস্পার, ওয়াটফোর্ড, ওল্ভস এবং ওয়েস্টহ্যাম ইউনাইটেড।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি। শিরোপা ধরে রাখার পথে এবারও অপ্রতিরোধ্য গতিতে ছুটে চলছে এ্যাগুয়েরো-স্টার্লিংরা। এভারটনের বিপক্ষে জিতে নিজেদের কাজটা সেরে এবার তারা বলটা পাঠিয়ে দিয়েছে লিভারপুলের কোর্টে। শীর্ষস্থান ফিরে পেতে হলে রবিবার এ্যানফিল্ডে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে হারাতে হবে লিভারপুলকে। যদি গতকালের সেই ম্যাচটা ড্র হয়, তারপরও এক পয়েন্টে পিছিয়ে থাকার কথা অলরেডদের।

চলতি মৌসুমে একটা মাত্র ম্যাচেই পরাজয় দেখেছে ম্যানসিটি। গত সপ্তাহে চেলসির কাছে ২০১৮-১৯ মৌসুমে প্রথম পয়েন্ট হারায় সিটিজেনরা। এরপর চ্যাম্পিয়ন্স লীগেও নড়বড়ে ছিল গার্ডিওলার দল। ম্যানচেস্টারের হাড় কাঁপানো ঠা-ায় এভারটনের বিপক্ষেও শুরুটা অগোছালো ছিল স্বাগতিকদের। বল পজেশন শুরু থেকেই বেশি ছিল সিটির। কিন্তু এভারটনের প্লেসিংয়ে ধুঁকতে হচ্ছিল সিটির রক্ষণকে। প্রথম দশ মিনিটে বেশ কয়েকটি ভুল পাসও দিয়েছে তারা। গোলে প্রথম শটও এভারটনেরই। মাত্র ৩ মিনিটেই কালভার্ট লুইনকে গোলবঞ্চিত করেন এডারসন মোরায়েস। এরপর রিচার্লিসনও একটি ভলি করেছিলেন, কিন্তু লক্ষ্যে রাখতে পারেননি শট। তবে এদিন গ্যাব্রিয়েল জেসুসের হাসির সঙ্গে ফিরেছে সিটির স্বস্তিও। শেষ প্রিমিয়ার লীগে গোল পেয়েছিলেন ১১ ম্যাচ আগে আগস্টে। এরপর কেটেছে ৪৮৭ মিনিট। গোলে ১৮ শট করেও ৪৮৭ মিনিট ধরে গোল পাচ্ছিলেন না জেসুস। ম্যাচের ২২ মিনিটে আর লেরয় সানের থ্রু পাস ধরে সামনে এগিয়ে গিয়ে গোলরক্ষককে কোন সুযোগ না দিয়েই গোল খরা কাটান ম্যানসিটির এই ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার।

ম্যাচের প্রথমার্ধে দুইটি অসাধারণ সেভ করে সিটিকে আটকে রেখেছিলেন জর্ডান পিকফোর্ড। প্রথম গোলের আগেই আত্মঘাতী গোল হজমের হাত থেকে দলকে বাঁচিয়েছিলেন।

এরপর প্রথমার্ধের শেষদিকে রিয়াদ মাহরেজের সাইড ভলিও ঠেকিয়ে দেন। দ্বিতীয়ার্ধের আগেই খেলা সিটির নিয়ন্ত্রণে চলে যায়নি পিকফোর্ডের কল্যাণেই। পিকফোর্ড অবশ্য খুব বেশিক্ষণ আর দ্বিতীয় গোল করা থেকে সিটিকে বিরত রাখতে পারেননি। ৫০ মিনিটে সেই সানেই আবার এ্যাসিস্ট করলেন, গোল করলেন জেসুস।

এবার বামদিক থেকে উড়ে আসা ক্রসে হেডে জাল খুঁজে পেলেন সিটি স্ট্রাইকার। এর আগে প্রিমিয়ার লীগে সানের ২৩ এ্যাসিস্টের কোনটাই ছিল না জেসুসের জন্য, আর করলেন দুইটি। তাতে প্রিমিয়ার লীগে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি গোল করানোদের তালিকায় এডেন হ্যাজার্ডের সঙ্গে বসলেন শীর্ষস্থানে। দুইজনের এই সংখ্যাটা সমান ৮।

দ্বিতীয়ার্ধের ৬৫ মিনিটে সিটিজেনদের অবাক করে এক গোল শোধ করে দিয়েছিল এভারটন। লুকাস ডিনিয়ের ফার্স্ট টাইম ক্রস থেকে হেডে গোল করেন কালভার্ট লুইন। বল সিটির গোললাইন অতিক্রম করার আগে অবশ্য একবার ফাবিয়ান ডেলফের মাথাও ছুঁয়ে গেল। ওই গোলে তাই ম্যাচের ২৫ মিনিট বাকি থাকতে কিছুটা চাপেই পড়ে যায় ঘরের দল। ৬৬ মিনিটে মাঠে নামেন রহিম স্টার্লিং। বর্ণবাদের শিকার হয়ে গত সপ্তাহজুড়ে আলোচনায় ছিলেন এই ইংলিশ ফরোয়ার্ড। মিডিয়ার বিরুদ্ধেও অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছিলেন। মাঠে নেমে একটা জবাবও দিলেন। তিন মিনিটের মধ্যেই স্বস্তি ফিরিয়ে আনলেন ইত্তিহাদে।

স্টার্লিংও গোল করলেন হেডে ফার্নান্দিনহোর ক্রস থেকে। এই নিয়ে প্রিমিয়ার লীগে মাত্র দ্বিতীয়বারের মতো হেডে গোল করলেন স্টার্লিং। এভারটনের বিপক্ষে দারুণ জয়ে শিষ্যদের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন ম্যানসিটির কোচ। বিশেষ করে জেসুসকে আলাদা করেই প্রশংসায় ভাসিয়েছেন গার্ডিওলা। তিনি বলেন, ‘তার (জেসুস) দুটি গোলই চমৎকার। এই দুটি গোল তারজন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’ এই জয়ের ফলে ১৭ ম্যাচ থেকে ম্যানসিটির সংগ্রহ দাঁড়ায় ৪৪ পয়েন্ট। রবিবার পর্যন্ত এক ম্যাচ কম খেলা লিভারপুল ৪২ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে অবস্থান করে। টটেনহ্যাম ১-০ গোলে বার্নলিকে হারিয়ে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে।