১৯ জানুয়ারী ২০১৯

কুমিল্লার নাটকীয় জয়, ছন্দে ফিরল ঢাকা

কুমিল্লার নাটকীয় জয়, ছন্দে ফিরল ঢাকা

শাকিল আহমেদ মিরাজ ॥ শুক্রবারের বিপিএল (বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ) যেন সিলেটবাসীর জন্য বিনোদনের পসরা নিয়ে হাজির হয়েছিল। তারকা ক্রিকেটারদের ব্যাটে চার-ছক্কার ফুলঝুরি, লো- স্কোরিংয়ের বদনাম ঘোচানো পিচে হাই-স্কোরিং দ্বৈরথ, সবই ছিল। ছবির মতো সুন্দর ভেন্যুতে গ্যালারি ভর্তি দর্শক টি২০’র উন্মাদনা উপভোগ করেছেন প্রাণভরে। যেখানে দিনের প্রথম ম্যাচে সাকিব আল হাসানের (৬১* রান ও ২ উইকেট) দূরন্ত অলরাউন্ড নৈপূণ্যে ৬ উইকেটে সিলেট সিক্সার্সকে হারিয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস। বিফলে গেছে সিক্সার্স অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারের (৬৩) চিত্তাকর্ষক হাফ সেঞ্চুরি। আর নাটকীয় দ্বিতীয় ম্যাচে মাত্র ২ বল বাকি থাকতে খুলনা টাইটান্সকে ৩ উইকেটে হারিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। টাইগার ওপেনার তামিম ইকবালের ৪২ বলে ৭৩ রানের ঝড়ো ইনিংস সত্তে¡ও রুদ্ধশ্বাস জয়ের জন্য ভিক্টোরিয়ান্সদের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়।

সন্ধ্যায় ফ্লাডলাইটের আলোয় নিজ নিজ দলের হয়ে ব্যাটিং-ঝলক দেখিয়েছেন জুনায়েদ সিদ্দিকী ও তামিম ইকবাল। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৮১ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে খুলনা। মাত্র ৪১ বলে ৪ চার ও সমান ছক্কায় ৭০ রান করে আউট হন দীর্ঘদিন জাতীয় দলের বাইরে থাকা ওপেনার জুনায়েদ। ডেভিড মালান ২৫ বলে ২৯ ও আল-আমিন করেন ১৯ বলে ৩২ রান। শহীদ আফ্রিদি ৩ ও ওয়াহাব রিয়াজ নেন ২ উইকেট। বড় রানের লক্ষ্যে কুমিল্লাকে স্বপ্নের শুরু এনে দেন তামিম ও এনামুল হক। ওপেনিংয়ে ১২ ওভার ১ বলে ১১৫ রান যোগ করেন দু-জনে। ৪২ বলে ১২ চার ও ১ ছক্কায় ৭৩ রান করে লাসিথ মালিঙ্গার শিকারে পরিণত হন কুমিল্লার জয়ের নায়ক তামিম। ৩৭ বলে ৪০ রান করা এনামুলকে ফেরান খুলনা অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

১১ বলে ১ চার ও ৩ ছক্কায় ২৮ রান করে অধিনায়ক ইমরুল কায়েস আউট হওয়ার পরই কুমিল্লা ইনিংসের ছন্দপতন হয়। শামুসুর রহমান ও ডসন সাজঘরে ফিরলে চাপে পড়ে তারা। শেষ দিকে আফ্রিদি ৯ বলে ১২, আর ৭ বলে অপরাজিত ১৮ রান করে দলকে নাটকীয় জয় এনে দেন ইনফর্ম থিসারা পেরেরা। খুলনার হয়ে ৪ উইকেট নেন জুনাইদ খান। ঢাকা পর্বে সবকটি ম্যাচ জিতেছিল ঢাকা ডায়নামাইটস। উড়তে থাকা সেই ঢাকাকে সিলেট পর্বে মাটিতে নামিয়েছিল রাজশাহী কিংস। শুক্রবার সাকিব আল হাসানের অলরাউন্ড নৈপুণ্য আর আন্দ্রে রাসেলের শেষ দিকের ঝড়ে জয়ের ধারায় ফিরেছে তারা। টস জিতে এদিন আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন সিলেটের অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। ৮ উইকেট হারিয়ে ১৫৮ রান তোলে স্বাগতিকরা। জবাবে তিন ওভার হাতে রেখে ৪ উইকেট হারিয়েই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় ঢাকা (১৬৩/৪)।

দলীয় ৩৭ রানেই ৩ উইকেট হারিয়েছিল ঢাকা। ওপেনার মিজানুর রহমান ১ ও সুনীল নারাইন ২০ রানে ফেরেন। আর রনি তালুকদার ফেরেন ব্যক্তিগত ১৩ রানে। এরপর দারউইশ রাসুলিকে সঙ্গে করে এগোতে থাকেন অধিনায়ক সাকিব। কিন্তু দলীয় ১১২ রানে ব্যক্তিগত ১৯ রান নিয়ে ফেরেন রাসুলি। সাকিবের সঙ্গে যোগ দেন আন্দ্রে রাসেল। শেষ পর্যন্ত সাকিব মাত্র ৪১ বলে ৬১ ও আন্দ্রে রাসেল ২১ বলে ৪০ রানে অপরাজিত থেকে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন।

এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে সিলেটের দুই ওপেনার লিটন দাস ও সাব্বির রহমান মিলে ওপেনিং জুটিতে ৩৮ রান করেন। তবে এরপর রান যোগ হওয়ার আগে দু’জন আউট হয়ে ফেরেন। ফেরার আগে লিটন ২৭ ও সাব্বির ১১ রান করেন। মূলত অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার (৪৩ বলে ৬৩) ও টেল-এন্ডে জাকের আলির (১৮ বলে ২৫) ব্যাটিংয়ে ৮ উইকেটে ১৫৮ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়েছিল স্বাগতিক সিলেট। ম্যাচের নায়ক সাকিব নেন ২ উইকেট।

ষষ্ঠ খেলায় পঞ্চম জয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে যথারীতি ঢাকা। সমান খেলায় চতুর্থ জয়ে দ্বিতীয় স্থানে কুমিল্লা। আর নিজেদের ষষ্ঠ খেলায় পঞ্চম হারে টেবিলের তলানিতে মাহমুদুল্লাহর খুলনা।