২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে তথ্যমন্ত্রীর বৈঠক

সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে তথ্যমন্ত্রীর বৈঠক

অনলাইন রিপোর্টার ॥ সংবাদপত্র ও বার্তা সংস্থার কর্মীদের বেতন বাড়াতে নবম মজুরি বোর্ডের সুপারিশ পর্যালোচনায় পুনর্গঠিত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকের আগে সাংবাদিক সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

সচিবালয়ে মঙ্গলবার বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন, বাংলাদেশ সংবাদপত্র পরিষদ, বাংলাদেশ সংবাদপত্র কর্মচারী ফেডারেশন এবং বাংলাদেশ ফেডারেল ইউনিয়ন অব নিউজপেপার্স প্রেস ওয়ার্কার্সের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তথ্যমন্ত্রী।

এই বৈঠকে অংশ নিতে নিউজপেপার ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (নোয়াব) এর প্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ জানানো হলেও বৈঠকে তাদের কেউ অংশ নেননি।

নতুন সরকার গঠন হওয়ায় সংবাদপত্র ও বার্তা সংস্থার কর্মীদের বেতন বাড়াতে নবম মজুরি বোর্ডের সুপারিশ পর্যালোচনায় আগের মন্ত্রিসভা কমিটি পুনর্গঠন করে গত সোমবার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে প্রধান করে সাত সদস্যের কমিটি করে দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

এই মন্ত্রিসভা কমিটির গেজেট হওয়ার পর সভা আহ্বান করা হবে জানিয়ে বৈঠকে হাছান মাহমুদ বলেন, “নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নতুন সরকার গঠন হওয়ার পর আমরা কাজ শুরু করেছি। নতুন করে মন্ত্রিসভা কমিটি করা হয়েছে।

“সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে যেসব দাবি-দাওয়া দেওয়া হয়েছে…আমরা বক্তব্য শুনব, আজকের বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হবে। এই বৈঠকে আলোচ্য বিষয় ও সারসংক্ষেপ মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উপস্থাপন করব, তারপরে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব।”

নবম ওয়েজবোর্ডের মাধ্যমে সংবাদপত্রকর্মীদের বেতন-ভাতা নিশ্চিত করতে দ্রুত কাজ করা হচ্ছে বলেও জানান তথ্যমন্ত্রী। নবম ওয়েজবোর্ডে ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যমকে অন্তর্ভুক্তের বিষয় নিয়েও আলোচনা করা হবে জানান হাছান মাহমুদ।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল ও মহাসচিব শাবান মাহমুদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্য ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী ছাড়াও বাংলাদেশ সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি, বাংলাদেশ সংবাদপত্র কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ ফেডারেল ইউনিয়ন অব নিউজপেপার্স প্রেস ওয়ার্কার্সের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বৈঠকে অংশ নেন।

তথ্য সচিব আবদুল মালেক ছাড়াও তথ্য মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি ইলিয়াস হোসেন এবং সাধারণ সম্পাদক কবির আহমেদ খানও সভাকক্ষে এসেছিলেন। কিন্তু বৈঠক শুরুর আগে হঠাৎ করে তাদের বেরিয়ে যেতে দেখা যায়।

এ বিষয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, তথ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে বৈঠকে ডাকা হয়েছিল। কিন্তু বাংলাদেশ সংবাদপত্র কর্মচারী ফেডারেশন এদের নিয়ে আপত্তি তোলায় পরে তাদের বৈঠকে রাখা হয়নি।“নবম ওয়েজবোর্ড নিয়ে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য লিখিতভাবে নেওয়া হবে।”

আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মো. নিজামুল হককে প্রধান করে গত ২৯ জানুয়ারি ১৩ সদস্যের নবম ওয়েজবোর্ড গঠন করা হয়। এরপর গত ১১ সেপ্টেম্বর সংবাদপত্র ও বার্তা সংস্থার কর্মীদের জন্য মূল বেতনের ৪৫ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা ঘোষণা করে সরকার, যা গত ১ মার্চ থেকে কার্যকর করার কথা বলা হয়।

নবম ওয়েজবোর্ডের প্রধান বিচারপতি নিজামুল হক গত ৪ নবেম্বর সচিবালয়ে তখনকার তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর কাছে প্রতিবেদন জমা দেন। ২০১৫ সালে সরকারি কর্মচারীদের নতুন বেতন কাঠামো ঘোষণার পর থেকেই নতুন বেতন কাঠামোর দাবি জানিয়ে আসছিল সাংবাদিকদের সংগঠনগুলো। এ দাবিতে তারা বিভিন্ন কর্মসূচিও পালন করেছেন।