১৯ এপ্রিল ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রোহিঙ্গাদের প্রবেশ বন্ধ করে দ্রুত সঙ্কট সমাধানের দাবী সংসদে

রোহিঙ্গাদের প্রবেশ বন্ধ করে দ্রুত সঙ্কট সমাধানের দাবী সংসদে

সংসদ রিপোর্টার ॥ রোহিঙ্গাদেরকে ফেরত পাঠানোর মাধ্যমে এই সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের তৎপরতা কমে গেছে এমন অভিযোগ করে ভারত, চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রকেও সম্পৃক্ত করে সঙ্কটটি দ্রুত সমাধানের প্রস্তাব এসেছে জাতীয় সংসদে।

ডেপুটি স্পীকার এ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়ার সভাপতিত্বে রবিবার রাতে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক বাংলাদেশ জাসদের কার্যকরি সভাপতি মইন উদ্দীন খান বাদল এবং বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সদস্য ডা. রুস্তম আলী ফরাজী। ডেপুটি স্পীকার এ ব্যাপারে সাধারণ আলোচনার নোটিশ প্রদানের জন্য ওই দুই সংসদ সদস্যকে আহ্বান জানান।

জাসদের মইন উদ্দীন খান বাদল ফ্লোর নিয়ে বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী যে সেফ জোন গঠনের কথা বলেছেন এটা নতুন কিছু না। এটা গত সংসদে আমি প্রস্তাব করেছিলাম। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী যে ৫টি প্রস্তাব দিয়েছিলেন তার মধ্যে আমার এই প্রস্তাবটি যুক্ত করেছিলেন। রোহিঙ্গাদেরকে দয়া করে আর বাংলাদেশে ঢোকাবেন না। এদেরকে ঠ্যাংঙার চরে জায়গা দেওয়া হচ্ছে, দফা করে এটা দেবেন না। সেফ জোন আমাদের দেশের মধ্যে করবেন না। মিয়ানমার এক সময় বলবে আপনাদের লোক আপনারা নিয়ে গেছেন। তারা এখন রোহিঙ্গা ল্যাান্ডের কথা বলছে। রোহিঙ্গা ল্যান্ড তো মিয়ানমারের আকিয়াব। বার্মিচরা সারা বিশ্বে খোঁচাখুচি করায় পারদর্শী। আমি মনে করি এই সমস্যা সমাধানে ভারত ও চীনের সহযোগিতা প্রয়োজন। সেই সঙ্গে আরেকটি দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকেও যুক্ত করা দরকার।

বাদলের প্রস্তাব সমর্থন করে জাতীয় পার্টির রুস্তম আলী ফরাজী বলেন, রোহিঙ্গা আরও আসছে, কিন্তু ফিরিয়ে নেওয়ার কোনো কথা নেই। ভারত থেকে রোহিঙ্গারা আসছে, সৌদি আরব থেকেও আসার উপক্রম হয়েছে। মনে হচ্ছে আমাদের তৎপরতা কমে গেছে। জাতিসংঘে আরও তৎপরতা বাড়াতে হবে। সমস্যা সমাধানে সৌদী আরব, জাতিসংঘকে এক করে আনতে হবে। এই সমস্যা সমাধান করতে না পারলে এটি বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়াবে। এর জন্য সংসদে একটি বিশেষ কমিটি গঠন করা যেতে পারে। এই কমিটি মিয়ানমার গিয়ে বা বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত দিতে পারে যেটা সরকারের সহযোগীতা হবে। এই কমিটি গঠনের জন্য সংসদে একটি নোটিশ দেওয়া যেতে পারে।

রুস্তম আলী ফরাজীর এই প্রস্তাবের পর স্পীকারের আসনে থাকা ডেপুটি স্পীকার ফজলে রাব্বি মিয়া বলেন, আপনি যেহেতু একটি নোটিশ দেওয়ার কথা বলেছেন, তাহলে আপনিই একটি নোটিশ দিতে পারেন। একটি নোটিশ আপনারা দয়া করে দেন। নেটিশ দিলে আমরা বিবেচনায় আনার চেষ্টা করবো।