২৬ এপ্রিল ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভৈরবে বিআরটিসি বাস চলাচল ॥ যাত্রী ভোগান্তি

ভৈরবে বিআরটিসি বাস চলাচল ॥ যাত্রী ভোগান্তি

নিজস্ব সংবাদদাতা, ভৈরব ॥ ভৈরব থেকে ঢাকা চলাচলকৃত সরকারি পরিবহন সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন-বিআরটিসি বাস সেবার মান খুবই নিম্নমানের। লক্করঝক্কর গাড়ি,যাত্রী নিয়ে অনেক সময় পথেই ঘন্টার পর ঘন্টা যাত্রীরা কসে থাকতে হয়। গণপরিবহন হিসেবে সরকারি সংস্থাটির ভূমিকা ক্রমশই কমছে। ভৈরব থেকে চলাচলকৃত গণপরিবহনে কার্যকর কোনো ভূমিকাই রাখতে পারছে না সংস্থাটি।

খোঁজনিয়ে জানাগেছে, ভৈরব – ঢাকা চলাচলকৃত দু’তলা বাস সাভির্স চালু রয়েছে। আবার ভৈরব থেকে নরসিংদীর বারৈচা পযন্ত বিআরটিসির নতুন সাভির্স চালু হয়েছে। এ সকল বাসে যাত্রীরা প্রায় ভোগান্তিতে পড়ে। এক দিকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়। অন্য দিকে মাঝ রাস্তায় বাসের চাকা পাংচার হয়ে যাত্রীরা বিরম্ভনায় পড়ে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিলারটিসির একাদিক কর্মচারি জনকণ্ঠকে জানান, সল্প দূরত্বে দু’তলা বাস সাভির্স চালু থাকার কথা থাকলেও এ সাভির্স দেয়া হয়েছে , ভৈরব – ঢাকা পযর্ন্ত। আবার ভৈরব থেকে মাত্র ৮ কিমি এলাকায় দেয়া হয়েছে এক তলা বাস সাভির্স।

এক শ্রেনীর কর্মকর্তা ও কর্মচারিসহ চালকরা বাস মেরামতের নামে যন্ত্রাংশ চুরিসহ ভূয়া বাউচার তৈরি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে সংস্থাটিকে লোকসানের মুখে ফেলছে। ভৈরবে যদিও ৪টি পেট্রোল পাম্প রয়েছে। তবু চালকরা খোলাবাজার থেকে চোরাই জ্বালালি ক্রয় বরে বাস চালাচ্ছে। এতে বাসের যন্ত্রাংশের ক্ষতি হচ্ছে॥

যাত্রীরা বলেছেন, গণপরিবহন সমস্যা নিরসনে সরকারের ‘উল্লেখযোগ্য কোনো উদ্যোগ’ না থাকায় প্রতিনিয়ত দুর্ভোগে পড়ছেন সাধারণ মানুষ। সরকারি পরিবহন সংস্থা বিআরটিসি যাত্রী সেবায় কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারছে না। উপরন্তু সংস্থাটির ডিপোতে অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে লুটপাটের আখড়া হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে বিআরটিসি।

এ ব্যাপারে বিআরটিসি নরসিংদী ডিপো ম্যানেজার আজিজুল হক উজ্জল জনকণ্ঠকে জানান, চালকরা খোলাবাজার থেকে বাসে জ্বালানী তেল নিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাসের যন্ত্রাংশ চুরিসহ নিম্ন মানের সাভির্সে যাত্রী ভোগান্তির বিষয়টি দেখবেন বলে তিনি জানান।