২০ এপ্রিল ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বর্ণাঢ্য আয়োজনে আফজালের বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মঞ্চ থেকে ভেসে আসছে রবীন্দ্রনাথের গান ‘কৃষ্ণকলি আমি তারে বলি’, ‘ছিন্ন পাতার সাজাই তরণী’, ‘আমারে তুমি অশেষ করেছ এমনি লীলা তব’, ‘তোমার কথা হেথা’। মিলনায়তন ভর্তি দর্শক নিমগ্নচিত্তে শুনছে এসব গান। শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার কণ্ঠে পরিবেশিত এসব গানে অসাধারণ এক পরিবেশের সৃষ্টি হয় ছায়ানট মিলনায়তনে সোমবার বিকেলে। শিল্পী, সাহিত্যিক, অভিনেতাসহ বরেণ্য জনের উপস্থিতিতে অভিনেতা, নির্মাতা, চিত্রশিল্পী ও লেখক আফজাল হোসেনের বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান যেন রূপ নেয় এক মিলন মেলায়।

এবার অমর একুশে গ্রন্থমেলায় অনন্যা থেকে প্রকাশিত হয়েছে আফজাল হোসেনের দুইটি গ্রন্থ। এরমধ্যে একটি ‘১৯নং কবিতা মোকাম’ অন্যটি সমকালীন বিভিন্ন বিষয়ের ওপর ভিত্তি করে রচনা সঙ্কলন ‘সাবান মাখা রোদ’। গ্রন্থ দুইটির মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে আয়োজন করা হয় মনোমুগ্ধকর মিলনমেলা।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, নাট্যজন মামুনুর রশীদ, ছড়াকার লুৎফর রহমান লিটন, চলচ্চিত্র নির্মাতা মোর্শেদুল ইসলাম, অভিনেত্রী বিপাশা হায়াৎ, সাংবাদিক গোলাম মুর্তোজা, লেখক ইফতেখারুল ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতে ‘জানি নাই গো সাধন তোমার’ রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। তিনি পরপর কয়েকটি রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করে অনুষ্ঠানের ভাব গাম্ভীর্য ফিরিয়ে আনেন।

নাট্যজন মামুনুর রশীদ বলেন, প্রভাব ও প্রতিপত্তির প্রভাবে আর একটি আফজাল হোসেনের আবির্ভাব হয়েছে। একজন জনপ্রিয় অভিনেতার মধ্যে যে নীরব কবিতা থাকে তা আরও প্রজ্জ্বলিত হউক এই কামনা করি। ছড়াকার লুৎফর রহমান লিটন বলেন, আমাদের সময়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নায়ক ছিলেন আফজাল ভাই। সত্তর দশকে আমরা অনেকে তাকে অনুকরণ করার চেষ্টা করতাম। ছবি আঁকেন, কবিতা লেখেন, শ্রুতিগদ্য লেখেন, সর্বোপরি অভিনয় করে মাতিয়েছেন সারাদেশ।

চলচ্চিত্র নির্মাতা মোর্শেদুল ইসলাম বলেন, আফজাল ভাইয়ের সঙ্গে সম্পর্ক আমার দীর্ঘদিনের। তার ভেতর অসাধারণ সব প্রতিভা রয়েছে। সবাই তাকে একজন বড় অভিনেতা হিসেবেই বেশি চেনে। লেখক, চিত্রশিল্পী, অভিনেতা সব কিছুতেই তার দক্ষতা রয়েছে। এর চেয়ে আরেকটি বিষয় তা হলো তিনি একজন ভাল মানুষ।

অভিনেত্রী বিপাশা হায়াৎ বলেন, একজন কবি, চিত্রশিল্পী, লেখক, অভিনয়শিল্পী আফজাল হোসেন। তার চারপাশ কবিতাময় হয়ে রয়েছে। পরে তিনি আফজাল হোসেনের কয়েকটি কবিতা আবৃত্তি করেন। এগুলো হচ্ছে ‘মার্বেলগুলো, ‘তিনটি দাবি’, ‘শামুক’ ‘বিশ্বাস ও বিষ’, ‘চোখ’ ও ‘ছোটদের কবিতা’।

সাংবাদিক গোলাম মোর্তজা বলেন, একজনের মধ্যে এতগুলো গুণাবলি আছে, এটা খুবই কম দেখা যায়।

লেখক ইফতেখারুল ইসলাম বলেন, আমার ধারণা ছিল আফজাল ভাই চিত্রশিল্পী হবেন কিন্তু যখন কবিতা লিখতে শুরু করলেন তখন তার ভেতর অন্য দর্শন পাই।

ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, এমন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী আমাদের দেশে বিরল। আমরা চাইব তিনি আরও আরও বেশি করে কবিতা, নাটক লিখে ও অভিনয় করে আমাদের সমৃদ্ধ করবেন।

আফজাল হোসেন বলেন, আমার বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান আজ সার্থক শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার গানে, আর যারা এসেছেন সবাইকে আমার কৃতজ্ঞতা। তিনি বলেন, আমি কোনকালে বড় হতে চাইনি। যখন ছবি এঁকে যা প্রকাশ করতে পারি না, তখন লিখি। নিজেকে আবিষ্কারের জন্য একটা থেকে অন্যটায় যাই। আমি বিশ্বাস করি চর্চা ও অনুশীলনের মধ্যদিয়ে নিজেকে আবিষ্কার করা যায়। সৃজনশীলতার চর্চা আমাকে বেঁচে থাকার অনুপ্রেরণা দেয়।

সবশেষে তাসকিন তানহা ও জান্নাতুল ফেরদৌস পিংকির মনোমুগ্ধকর নৃত্য পরিবেশনার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।