১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শরীয়তপুরে ৪ শতাধিক পরীক্ষার্থীর ফল বিপর্যয়ের শঙ্কা

নিজস্ব সংবাদদাতা, শরীয়তপুর, ১১ ফেব্রুয়ারি ॥ শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার প-িতসার উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৪ শতাধিক এসএসসি পরীক্ষার্থীর ফল বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছে পরীক্ষার্থীদের অভিভাবক, শিক্ষক ও পরীক্ষার্থীরা। সোমবার পরীক্ষা শেষে প-িতসার উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের বাইরে ভুক্তভোগী পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করে পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা এসব দোষীদের শাস্তি দাবি করেছে তারা।

প-িতসার উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের ২নং কক্ষের পরীক্ষার্থী ফাতেমা, বুশরা, তাহমিনা, সেতু, তামান্না, তৃষ্ণা, হৃদয়, শাহিন এবং অভিভাবক আইরিন বেগম, মাহমুদা, রোজিনা বেগমসহ অনেকে অভিযোগ করেন, শনিবার গণিত পরীক্ষা শুরু হওয়ার পূর্বে পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে সাধারণ ক্যালকুলেটরসহ সমস্ত ক্যালকুলেটর কেড়ে নেয়া হয়েছে। পরীক্ষার কক্ষে দায়িত্বরত শিক্ষকরা যখন পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ক্যালকুলেটর কেড়ে নেয় তখন পরীক্ষার্থীরা তাদের সঙ্গে থাকা সাধারণ ক্যালকুলেটর দিতে অনিচ্ছা প্রকাশ করলে তাদের তিরস্কার ও শারীরিক নির্যাতনও করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এই কেন্দ্রে উপজেলার শহীদ স্মৃতি, শহীদ নজরুল বালিকা, হালইসার নন্দনসার ও তেলীপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪শ’ ৯২ পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেছে। নিয়মবহির্ভূতভাবে অনভিজ্ঞ শিক্ষকরা পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ক্যালকুলেটর কেড়ে নেয়ায় পরীক্ষার্থীরা শতভাগ প্রশ্নের উত্তর দিতে না পেরে ওই দিন পরীক্ষা কক্ষে ও কক্ষের বাইরে এসে কান্নাকাটি করেছে। পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্বরত শিক্ষকরা বিষয়টি নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি না করার জন্য পরীক্ষার্থীদের হুমকি প্রদান করেছে। ২নং কক্ষের পরীক্ষার্থী তাহমিনার মা মাহমুদা বেগম জানান, আমার মেয়ের কাছে সাধারণ ক্যালকুলেটর ছিল কিন্তু পরীক্ষা শুরু হওয়ার আগেই তা নিয়ে যাওয়ায় আমার মেয়ে ক্যালকুলেটর বিহীন শতভাগ উত্তর দিতে সক্ষম হয়নি। একই কক্ষে পরীক্ষার্থী বুশরার মা আমেনা বেগম জানান, পরীক্ষার আগে ক্যালকুলেটর নিয়ে যাওয়ায় আমার মেয়ের পরীক্ষা অনেক খারাপ হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রধান শিক্ষক বলেন, পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ক্যালকুলেটর কেড়ে নেয়ায় এই কেন্দ্রে প্রায় ২শ’ থেকে আড়াইশ’ শিক্ষার্থীর ফল বিপর্যয় হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। প-িতসার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব মোসলেম উদ্দিন মৃধা বলেন, পরীক্ষা কক্ষে দায়িত্বরত শিক্ষকরা পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ক্যালকুলেটর নিয়েছে কি না আমার জানা নেই।

নির্বাচিত সংবাদ