২৬ এপ্রিল ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চিতলমারীতে দু’নারীকে গাছে বেঁধে নির্যাতন আটক ১

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ চিতলমারীতে নিরীহ একটি পরিবারের দু’নারীকে গাছে বেঁধে প্রকাশ্যে নির্যাতন করেছে সন্ত্রাসীরা। সোমবার রাতে এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন নির্যাতিতার পরিবার ও এলাকাবাসী।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, উপজেলার সদর ইউনিয়নের রায়গ্রামের দেবদাস ম-ল ও সঞ্জীত রায়ের বাড়িতে সোমবার বিকেলে প্রতিবেশী শাকিল ওরফে জাহিদ শেখের নের্তৃত্বে ১০-১৫ জনের একটি দল দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র, লাঠিসোটা নিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে বাড়িঘর ভাংচুর করে। এ সময় বাড়িতে কোন পুরুষ লোক না থাকায় নারীরা বাধা দিতে এগিয়ে এলে বৃদ্ধা আয়না ম-ল (৭০) ও তার পুত্রবধূ সুমতি ম-লকে (৪০) গাছের সঙ্গে বেধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন চালায়। তাদের চিৎকারে প্রতিবেশীরা বাধা দিতে এগিয়ে এলে ওই বাহিনীর হুমকির মুখে কেউই কাছে যেতে সাহস পায়নি। খবর পেয়ে চিতলমারী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই দু’নারীকে উদ্ধার করে চিতলমারী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করে। এ ঘটনার মূল হোতা শাকিল ওরফে জাহিদ শেখকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী চিন্তা হালদার জানান, শাকিল ও তার দলবলের লোকজন ওই দু’নারীকে একটি বট গাছের সঙ্গে বেধে বিবস্ত্র করে বেদম প্রহার করে। তাদের হাতের চুরি ও শাখা ভেঙ্গে ফেলা হয় এবং অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও হুমকি প্রদান করে। এ সময় বাধা দিতে গেলে তাদের উপরও চড়াও হয় ওই বাহিনীর লোকজন। ভয়ে কেউই কাছে যেতে পারেননি। এ বিষয়ে চিতলমারী সদর ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান জানান, শাকিল ও তার সঙ্গীরা মিলে বৃদ্ধা আয়না ম-ল ও তার পুত্রবধূ সুমতি ম-লকে গাছে বেঁধে যে মধ্যযুগীয় নির্যাতন চালিয়েছে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া দরকার। তিনি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।