১৯ মার্চ ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যুক্তরাষ্ট্র চুরি করেছে তিন হাজার কোটি ডলার

  • পাঠিয়েছে সামান্য ত্রাণ ॥ মাদুরো

ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো (৫৬) শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে শত শত কোটি ডলার চুরি এবং মানবিক সহায়তা হিসেবে সামান্য ত্রাণ এসেছে বলে অভিযোগ করেন। মাদুরোর ঘনিষ্ঠ পাঁচ কর্মকর্তার ওপর ওয়াশিংটন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পরিপ্রেক্ষিতে এ অভিযোগ করেন তিনি।- এএফপি।

ভেনিজুয়েলার সীমান্ত লাগোয়া কলম্বিয়ার সীমান্তের কাছে মার্কিন ত্রাণ সহায়তা স্তূপ করে রাখা হয়েছে। বিরোধী নেতা হুয়ান গুয়েদো দেশে ত্রাণ প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার আহ্বান জানিয়েছেন। দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় শহর সিউদাদ বলিভিয়ারে এক অনুষ্ঠানে বক্তব্যদানকালে মাদুরো বলেন, এটি একটি ফাঁদ। তারা আমাদের নষ্ট ও দূষিত খাবার পাঠিয়ে লোক দেখানো দরদ দেখাচ্ছে। তারা চুরি করেছে ৩০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আর দিচ্ছে কিছু নষ্ট খাবার। শুক্রবার মাদুরো কলম্বিয়া সীমান্তে শক্তিশালী নজরদারি বজায় রাখার জন্য বিশেষ স্থাপনা প্রস্তুত করার জন্য সেনাবাহিনীকে নির্দেশ দেন। যা ত্রাণ প্রবেশকে অসম্ভব করে তুলেছে।

ভেনিজুয়েলায় অর্থনৈতিক সঙ্কট বিরাজ করছে। যে কারণে লাখ লাখ লোক দরিদ্র হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি মৌলিক প্রয়োজনীয়তা মেটাতে পারছে না। যার মধ্যে খাদ্য ও ওষুধ রয়েছে। গুয়েইদোকে ৫০টি দেশ অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। তারা অভিযোগ করেছে, অব্যবস্থাপনার কারণে মাদুরো অর্থনীতিকে পঙ্গু করে ফেলেছেন। যেসব দেশ গুয়েইদোকে স্বীকৃতি দিয়েছে তার মধ্যে কোস্টারিকা অন্যতম। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শুক্রবার মাদুরোর মনোনীত তিনজন রাষ্ট্রদূতকে ৬০ কর্মদিবসের মধ্যে কোস্টারিকা ত্যাগের কথা জানিয়েছে। মার্কিন নিষেধাজ্ঞার অধিকাংশই মাদুরো ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের ও রাষ্ট্রীয় পিডিভিএসএ তেল কোম্পানিকে লক্ষ্য করে করা হয়েছে। এই তেল কোম্পানিটি সরকারের প্রধান আয়ের উৎস। তবে মার্কিন বাণিজ্য মন্ত্রণালয় শুক্রবার ঘোষণা করেছে যে, তারা মাদুরো ঘনিষ্ঠ পাঁচ গোয়েন্দা ও নিরাপত্তা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, যারা লক্ষ্যবস্তুতে রয়েছে তারা ভেনিজুয়েলাতে গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ধ্বংসে তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে এবং প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর সঙ্গে যুক্ত। নিষেধাজ্ঞার আওতার অধীনে যে পাঁচ ব্যক্তি রয়েছেন তাদের মধ্যে পিডিভিএসএ কোম্পানির প্রেসিডেন্টও রয়েছেন। তাকে মার্কিন বাণিজ্য মন্ত্রণালয় পিডিভিএসএ কোম্পানির অবৈধ প্রেসিডেন্ট হিসেবে অভিহিত করেছে।

নির্বাচিত সংবাদ