১৯ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নিবন্ধন বাতিল প্রশ্নে জামায়াতের আপিল শুনানি শিগগিরই

নিবন্ধন বাতিল প্রশ্নে জামায়াতের আপিল শুনানি শিগগিরই

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নিবন্ধন বাতিল করে হাইকোর্ট বিভাগের দেওয়া রায়ের বিরুদ্ধে জামায়াতে ইসলামীর করা আপিলের শুনানি শিগগিরই হবে বলে জানিয়েছেন এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। রবিবার তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন। মাহবুবে আলম বলেন, রাজনৈতিক দল হিসেবে যে স্বীকৃতি ছিল সেটা বাতিল হয়ে গেছে হাইকোর্টে রায়ে।

এ ব্যাপারে আপীল বিভাগে মামলা বিচারাধীন। কাজেই প্রধানমন্ত্রী সঠিকভাবে বলেছেন, বিচারাধীন মামলার ব্যাপারে তো কোনো নির্বাহী আদেশ দেওয়া যাচ্ছে না। আমরা চেষ্টা করব, এটা তাড়াতাড়ি শুনানি করার জন্য।

জামায়াত নেতা ব্যারিস্টার রাজ্জাকের পদত্যাগের বিষয়ে তিনি বলেন, এটাতো আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি জেনারেল বলেই দিয়েছেন। তারা ক্ষমা চান বা না চান, তাতে কিছু আসে যায় না। যুদ্ধাপরাধের বিচার অব্যাহত থাকবে, ভবিষ্যতেও চলবে। আর এই মুহূর্তে তারাতো মাফ না চাইলে অবস্থা দিনের পর দিন আরও খারাপ হবে। এটা হয়তো তারা বুঝতে পেরেছেন। জামায়াতের নিবন্ধনের বিষয়ে তিনি আরো বলেন, যে কোনো রাজনৈতিক দলের রাজনীতি করার প্রধান উদ্দেশ্য কী? ক্ষমতায় যাওয়া।

ক্ষমতায় যেতে হলে নির্বাচেন অংশ নিতে হবে। যদি তার (রাজনৈতিক দলের) লাইসেন্সই না থাকে, তাহলে তিনি কীভাবে নির্বাচন করবেন? আর যারা নির্বাচন কমিশনের অনুমোদন ছাড়া রাজনীতি করতে চায়, সেগুলোতো আন্ডারগ্রাউন্ড রাজনীতি।

সেসব রাজনীতিতো আমাদের দেশের সাধারণ জনগণ একসেপ্ট করে না। তাদের সেভাবে সুযোগ-সুবিধা দিতে রাষ্ট্রেরও বাধ্যবাধকতা নেই। কাজেই বাস্তবতা হলো, রাজনীতি করতে হলে ইলেকশন কমিশন থেকে একটি অনুমতি থাকতে হবে, লাইসেন্স থাকতে হবে। সেই লাইসেন্সটাই বাতিলের জন্য মামলাটি আপীল বিভাগে বিচারাধীন। আমরা আশা করি, শিগগিরই এটার শুনানির ব্যবস্থা নিতে পারবো। নিবন্ধন যদি বাতিল হয়ে যায় আপনা-আপনি দল বাতিল হয়ে যাবে, রাজনীতি আর করতে পারবে না- বলেন মাহবুবে আলম।

জামায়াত প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, হিটলারতো নেই। কিন্তু হিটলারের ভাবাদর্শ নিয়ে যদি কোনো রাজনীতি শুরু হয়, সেটা কি বুঝতে জার্মান পিপলদের অসুবিধা হবে? জামায়াতের ক্ষেত্রেও একইভাবে বলবো, কেউ যদি জামায়াতি ভাবধারায় রাজনীতি শুরু করতে চায়, সেটা কি সাধারণ জনগণ বুঝবে না?