১৯ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

একুশ উদ্যাপন নির্বিঘ্ন করতে রাজধানীতে সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদ্যাপন নির্বিঘ্ন করতে রাজধানীতে সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে এবং কোন সুনির্দিষ্ট হুমকি নেই বলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। ওদিন ১৬ হাজার পুলিশ নিরাপত্তায় কাজে মোতায়েন থাকবে। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ঘিরে সাদা পোশাকের পুলিশের পাশাপাশি পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট সোয়াত, র‌্যাব এবং বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রায় ৬ হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। মঙ্গলবার দিবসটি উদ্যাপনের মূল স্থান কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন করেছেন র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ ও ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা দেখার জন্য ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া সেখানকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন করে। পরিদর্শন শেষে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া সাংবাদিকদের বলেন, ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কোন সুনির্দিষ্ট হুমকি নেই। তবে সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ওই দিন শহীদ মিনার ও আশপাশের এলাকায় চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। তিনি জানান, সেদিন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় ছয় হাজার পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে। এছাড়া ঢাকা শহরের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার জন্য আরও ১০ হাজার পুলিশ সদস্য নিয়োজিত থাকবে। ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, ২০ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টা থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি অপরাহ্ণ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় যত্রতত্র অনুপ্রবেশ বন্ধে নীলক্ষেত, পলাশী, ফুলার রোড, বকশীবাজার, চানখারপুল, শহীদুল্লাহ হল, দোয়েল চত্বর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জিমনেশিয়াম, রোমানা চত্বর, হাইকোর্ট, টিএসসি, শাহবাগ, ইন্টারসেকশনসমূহে রোড ব্লক দিয়ে গাড়ি ডাইভারশন করা হবে। ১৯ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টা থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি সকাল ৬টা পর্যন্ত রাস্তায় আলপনা আঁকার জন্য শহীদ মিনারের রাস্তা বন্ধ থাকবে। তবে শিববাড়ি, জগন্নাথ হল ও রোমানা চত্বর দিয়ে গাড়ি ডাইভারশন করা হবে বলে জানান। তিনি জানান, চানখারপুল, বকশীবাজার, নীলক্ষেত, পলাশী, শাহবাগ, হাইকোর্ট ক্রসিং, রোমানা চত্বর এলাকা দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টিকার ছাড়া কোন গাড়ি ঢুকতে পারবে না। এসব এলাকায় তল্লাশি চৌকি বসানো হবে। আজ (মঙ্গলবার) রাত থেকে এসব এলাকায় আলপনা আঁকা হবে। তাই যান চলাচল বন্ধ থাকবে। আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, বিদেশী কূটনীতিকেরা শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন করে দোয়েল চত্বর দিয়ে চলে যাবেন। তাঁরা না যাওয়া পর্যন্ত দোয়েল চত্বর, রোমানা চত্বর দিয়ে কাউকে শহীদ মিনারের দিকে না যেতে অনুরোধ করেন তিনি। ভিআইপিরা শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সর্বসাধারণ পলাশী, জগন্নাথ হল হয়ে শহীদ মিনারে আসবেন। সর্বসাধারণ নীলক্ষেত থেকে পলাশী, পলাশী থেকে ঢাকেশ্বরী সড়কে গাড়ি রাখতে পারবেন। তিনি বলেন, শহীদ মিনারে আসতে কেউ ব্যাগ, কাঁচি, ছুরি বা সন্দেহজনক কিছু সঙ্গে রাখতে পারবেন না।

পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, শহীদ মিনারে যাওয়ার প্রতিটি প্রবেশ ফটকে পর্যাপ্ত আর্চওয়ে বসানো হবে।