১৯ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

৯৯ ভাগ মানুষ স্যানিটেশন, ৮৭ ভাগ নিরাপদ পানি পাচ্ছে

সংসদ রিপোর্টার ॥ দেশে বর্তমানে ৯৯ ভাগ জনগণ মৌলিক স্যানিটেশন এবং বাংলাদেশের ৮৭ ভাগ জনগণ নিরাপদ পানির সুবিধার আওতাভুক্ত। সেই হিসাবে দেশে ১৩ কোটি ৯২ লাখ জনগণ নিরাপদ পানির সুবিধা ভোগ করে থাকে।

স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকার দলীয় সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর প্রশ্নের জবাবে এলজিআরডি মন্ত্রী তাজুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

মন্ত্রী জানান, ৯৯ ভাগ মৌলিক স্যানিটেশনের মধ্যে ৬১ ভাগ জনগণ উন্নত ল্যাট্রিনের আওতাভুক্ত রয়েছে। অবশিষ্ট ২৮ ভাগ জনগণ যৌথ ল্যাট্রিন এবং ১০ ভাগ জনগণ অনুন্নত ল্যাট্রিন ব্যবহার করেন। এই হিসেবে ডব্লিউএইচও/ ইউনিসেফ জয়েন্ট মনিটরিং পোগ্রাম, ২০১৫ অনুযায়ী বর্তমানে উন্নত স্যানিটেশন ব্যবহারকারী সুবিধাভোগীর সংখ্যা ৯ কোটি ৭৬ লাখ।

সরকারী দলের সংসদ সদস্য এম এ লতিফের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, সারাদেশে বিটুমিনের পারিবর্তে কনক্রিটের সড়ক নির্মাণের ক্ষেত্রে কিছু প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। কনক্রিটের রাস্তা নির্মাণের ক্ষেত্রে কনক্রিট ঢালাইয়ের পরে কিউরিং এর জন্য পর্যাপ্ত সময়ের প্রয়োজন এবং ওই সময়ে রাস্তায় যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখতে হয়। প্রতি কিলোমিটার কনক্রিটের রাস্তা নির্মাণ খরচ বিটুমিনাস রাস্তা নির্মাণ খরচ অপেক্ষা ২ দশমিক ২ থেকে আড়াই গুণ বেশি। এছাড়া কনক্রিটের রাস্তা নির্মাণের পাথর ব্যবহার করতে হয় যা আমদানি নির্ভর। এছাড়া পর্যাপ্ত যন্ত্রপাতির অভাব রয়েছে। যার ফলে বিষয়টি এখনও পরীক্ষাধীন রয়েছে।

সরকারী দলের সংসদ সদস্য হাজী মোঃ সেলিমের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী তাজুল ইসলাম জানান, সারাদেশে বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদের সংখ্যা ৪ হাজার ৫৭১টি। প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদে ১০ জন গ্রামপুলিশ (১ জন দফাদার ও ৯ জন মহল্লাদার) রয়েছে। সে অনুযায়ী সারাদেশে বর্তমানে গ্রাম পুলিশের সংখ্যা ৪৫ হাজার ৭১০ জন।

তিনি জানান, গ্রাম পুলিশদের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের ন্যায় সমস্কেল প্রদানের বিষয়ে অর্থ বিভাগকে অনুরোধ করা হয়। সেই প্রেক্ষিতে অর্থ বিভাগ হতে বাংলাদেশ গ্রাম পুলিশদের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের ন্যায় সমস্কেল প্রদানের অবকাশ নেই মর্মে জানানো হয়েছে। তিনি জানন, প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে গতবছরের ৪ নবেম্বর ইউনিয়ন পরিষদে কর্মরত দফাদারদের বেতন ৩৪শ’ টাকা থেকে বৃদ্ধি করে ৭ হাজার টাকায় এবং মহল্লাদারদের বেতন ৩ হাজার থেকে বৃদ্ধি করে সাড়ে ৬ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়েছে।

সংসদ সদস্য নাছিমুল আলম চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী জানান, ম্যালেরিয়া রোগের বাহক এ্যানোফিলিস মশা। পার্বত্য চট্টগ্রামসহ অন্যান্য পাহাড়ী এলাকায় এ রোগের প্রকোপ বা এ্যানোফিলিস মশার উপস্থিতি থাকলেও ঢাকা মহানগরীতে কিউলেক্স ও এডিস মশার কারণে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগ হয়। এ জন্য ঢাকা মহানগরীতে বছরব্যাপী মশক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে।