২২ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী অরুণা সাহা আর নেই

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ না ফেরার দেশে চলে গেলেন সুরেলা কণ্ঠের অধিকারী স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী (স্বীকৃতিপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা) গৌরনদী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পালরদী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় এ্যান্ড কলেজের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অরুণা সাহা (৭২)। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে বৃহস্পতিবার সকালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তিনি এক পুত্র ও এক কন্যাসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

তার মৃত্যুর খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বরিশালজুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। বিকেলে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা শেষে গৌরনদীর আশোকাঠী জমিদারবাড়ির পারিবারিক শ্মশানে তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হয়। তার মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে মন্ত্রী আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ এমপি, সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট তালুকদার মোঃ ইউনুস, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও পৌর মেয়র মোঃ হারিছুর রহমান, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দা মনিরুন নাহার, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সৈয়দ মনিরুল ইসলাম বুলেট, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাবিবুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মামুন মোল্লা, জোটের উপজেলা সভাপতি কাজী আল-আমিনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, সাংবাদিক, সাংস্কৃতিক ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

অরুণা সাহা ছিলেন গৌরনদীর আশোকাঠী গ্রামের জমিদার প্রয়াত মোহন লাল সাহার পুত্র গৌরনদী শিশু একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা মানিক লাল সাহার স্ত্রী। মানিক লাল সাহাও ছিলেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী। অরুণা সাহা জীবিত অবস্থায় জনকণ্ঠের এ প্রতিনিধির সঙ্গে একান্ত সাক্ষাতকারে জানিয়েছিলেন যুদ্ধদিনের তার নানা অজানা কথা। এ নিয়ে দৈনিক জনকণ্ঠে ‘স্বাধীন বাংলা বেতারের উপেক্ষিত শিল্পী...’ শিরোনামে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশের পর বর্তমান সরকার তাকে সম্মাননা প্রদান করে নারী মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দিয়েছে। জীবিত অবস্থায় এ গুণী শিল্পী অসংখ্য পদক পেয়েছেন। সূত্রমতে, মহান স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় মুক্তাঞ্চলে গান গেয়ে মুক্তিবাহিনীর দামাল ছেলেদের উদ্বুদ্ধ করেছেন অরুণা সাহা। ভারতের বিভিনস্থানে গান গেয়ে মুক্তিযোদ্ধা ও শরণার্থীদের জন্য তহবিল সংগ্রহের পাশাপাশি নিয়মিত স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে তিনি গান গাইতেন।