১৭ মার্চ ২০১৯

দুর্ভাগ্যের কারণে ট্রফি পাইনি, সেটা ঠিক না ॥ কোহলি

দুর্ভাগ্যের কারণে ট্রফি পাইনি, সেটা ঠিক না ॥ কোহলি

অনলাইন ডেস্ক ॥ সেই ২০১৩ সাল থেকে আইপিএলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিরাট কোহলি। কিন্তু একবারও ট্রফি জিততে পারেননি। আর সে জন্য দুর্ভাগ্যকে নয়, নিজেদের নেওয়া ভুল সিদ্ধান্তকেই দায়ী করছেন কোহলি।

‘হাম লড়কে লেঙ্গে, আরসিবি। হাম কাপ জিতেঙ্গে, আরসিবি। কাপ হামারা, আরসিবি। ওয়াক্ত হামারা, আরসিবি।’ এত দিন ইডেন গ্যালারি গেয়ে উঠত ‘করব, লড়ব, জিতব রে’। এ বার চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামও উত্তাল হতে চলছে এই গানের সুরে। শনিবার বেঙ্গালুরুতে চোখধাঁধানো অনুষ্ঠানে প্রকাশিত হল সেই গান। যেখানে মধ্যমণি থাকলেন আরসিবি অধিনায়ক কোহলি এবং স্ত্রী অনুষ্কা শর্মা। ছিলেন সস্ত্রীক এ বি ডিভিলিয়ার্স।

এর পরে কোহলি বলেন, ‘‘আইপিএলে ব্যর্থতার কারণ খুঁজতে গেলে ভুল সিদ্ধান্তগুলোই সামনে চলে আসবে। আমি যদি বলি, দুর্ভাগ্যের কারণে ট্রফি পাইনি, তা হলে সেটা ঠিক হবে না। নিজেদের ভাগ্য নিজেদেরই তৈরি করতে হয়। আপনি যদি ভুল সিদ্ধান্ত নেন আর অন্য দলগুলো ঠিক সিদ্ধান্ত নেয়, তা হলে আপনি হারবেন। আমরা বড় ম্যাচগুলোতেও ঠিকঠাক সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি।’’

এ বার দলের থেকে তিনি কী চান, তাও পরিষ্কার করে দিয়েছেন কোহলি। আরসিবি অধিনায়ক বলেছেন, ‘‘আমরা সবার কাছ থেকে চরম পেশাদারিত্ব চাই, দায়বদ্ধতা চাই। সবাইকে মাঠ এবং মাঠের বাইরে বিশেষ বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হবে। আমরা চাইব, সবাই যেন নিজের জীবন এবং খেলাটার প্রতি দায়বদ্ধ থাকে। দায়িত্বগুলো ঠিক মতো পালন করে।’’

এখানেই শেষ নয়। কোহলি এও বলেন, ‘‘আমরা দলের মধ্যে একটা সংস্কৃতি তৈরি করতে চাই। যেটা যে কোনও দলের পক্ষে সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। কয়েক বছর পরে আমরা হয়তো এখানে থাকব না। কারও পক্ষেই চিরকাল থাকা সম্ভব নয়। কিন্তু আরসিবি আরও অনেক, অনেক দিন থাকবে। আমরা চাইছি, পরবর্তী প্রজন্ম এসে যেন এই সংস্কৃতির স্বাদ পায়, এই সংস্কৃতিকে আপন করে নিতে পারে। এবং আরসিবি-র অংশ হতে পেরে যেন গর্বিত বোধ করে।’’ আবেগাপ্লুত কোহলি বলতে থাকেন, ‘‘আরসিবির সঙ্গে এত দিন জড়িয়ে থাকাটা একটা বিশেষ অভিজ্ঞতা। এই দলটা ছেড়ে দিচ্ছি বা অন্য কোনও দলের হয়ে খেলছি, এমন ঘটনা কোনও দিন ঘটবে না। কারণ আরসিবির সঙ্গে আমার একটা আত্মিক যোগ রয়েছে।’’

কোহলি মনে করছেন, তাদের দলে যে রকম প্রয়োজন, সে রকম ক্রিকেটারই নিলাম থেকে কেনা হয়েছে। কোহলির মন্তব্য, ‘‘দলের জন্য কী প্রয়োজন, নিলামের সময় সেটা মাথায় রেখেই ক্রিকেটার নেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে আমাদের লক্ষ্য পূরণ হয়েছে। কিন্তু এ সব সত্ত্বেও বলা সম্ভব নয়, এই মরসুমটা কেমন যাবে।’’

শুক্রবার সকালেই বিরুষ্কা জুটি মুম্বাই থেকে উড়ে যান বেঙ্গালুরুতে। মুম্বাই বিমানবন্দরে দুজনে হাত ধরে ঢোকেন। ভক্তরা কোহলিদের সঙ্গে ছবি তোলার আবদার জানান। তাঁদের হতাশ করেননি বিরুষ্কা। ছবি তোলার সঙ্গে কয়েকজন ভক্ত ভিডিয়োও তোলেন। কোহলি বেশ কিছু ভক্তের সঙ্গে হাত মেলান। পরে সেই ছবি এবং ভিডিয়ো টুইটারে পোস্ট করেন ভক্তরা। এই জুটিকে দেখা গেল একসঙ্গে বেঙ্গালুরুতে আরসিবি-র জমকালো অনুষ্ঠানে।

বিশ্বকাপের আগে এই আইপিএল আরও একটি কারণে তাৎপর্যপূর্ণ হয়ে উঠেছে। সম্প্রতি কোহলি জানিয়েছেন, টানা ম্যাচের ধকল কাটিয়ে নিজেকে ফিট রাখার দায়িত্ব নিতে হবে ক্রিকেটারদেরই। আরসিবি কোচ গ্যারি কার্স্টেন জানিয়ে দিয়েছেন, বাড়তি চাপ তিনি কাউকে দেবেন না।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা