২৫ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাগেরহাটে গৃহবধূ ও ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ বাগেরহাটে সদর উপজেলায় এক গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সোমবার সকালে উপজেলার কাড়াপাড়া ইউনিয়নের ফুলতলা গ্রামের একটি মাছের ঘের থেকে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। নিহতের ঘাড়ে ও পেটে ৩টি কোপের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এ ছেলে ও ৩ মেয়ের জননী নিহত নারজিনা বেগম (৩৮) ওই ইউনিয়নের পূর্ব কাড়াপাড়া গ্রামের মোহম্মদ আলী শেখের স্ত্রী। রবিবার রাতে নারজিনা ঘরের বাইরে টয়লেটে যান। এরপর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। অন্যদিকে, মোরেলগঞ্জে লোকমান মাঝি (৫০) নামে এক ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে বারইখালী গ্রামের পান বিক্রেতা লোকমান মাঝি ও তার স্ত্রী নেহারু বেগমকে মারপিট করে প্রতিবেশী প্রতিপক্ষ। এরপর লোকমানকে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। লোকমানের স্ত্রী নেহারু বেগম ও ছেলে আরিফ মাঝি বলেন, পার্শ্ববর্তী ইউনুছ হাওলাদারের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে সীমানা নিয়ে বিরোধ চলছে। ওই বিরোধের জের ধরে ইউনুছসহ কয়েকজন তাকে অতর্কিত মারপিট শুরু করে। এতে লোকমান মাঝি মারা যান।

টঙ্গীতে গৃহবধূ

নিজস্ব সংবাদদাতা টঙ্গী থেকে জানান, গার্মেন্টস কর্মী স্ত্রীর বেতনের টাকা স্বামীকে না দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বউ হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। রবিবার রাতে টঙ্গীর পূর্ব আরিচপুরের নদী বন্দর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত গার্মেন্টস কর্মীর নাম দুলালী বেগম (৩৩)। স্বামীর নাম রুহুল আমিন। দেশের বাড়ি রংপুর জেলার রাজার হাট উপজেলার সাত ভিটা গ্রামে। সে স্থানীয় মোসলেম মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকত।

সিলেটে কেয়ারটেকার

স্টাফ রিপোর্টার সিলেট অফিস থেকে জানান, ওসমানীনগরে এক প্রবাসীর বাসার কেয়ারটেকার খুনের ঘটনা ঘটেছে। বাসা থেকে ডেকে নিয়ে আনিক আলী (৬০) নামের এক ব্যক্তিকে খুন করা হয়েছে। সোমবার ভোরে উপজেলার সাদীপুর ইউনিয়নের পূর্ব তাজপুর গ্রামের কানাডা প্রবাসী আলাউদ্দিনের বাসার পানির ট্যাঙ্কি থেকে আনিক আলীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত আনিক আলী সাদীপুর ইউপির ধরকা গ্রামের মৃত দুয়াব উল্যার ছেলে। জানা যায়, নিহত আনিক আলী দীর্ঘদিন যাবত উপজেলার সাদীপুর ইউপির পূর্ব তাজপুর গ্রামের কানাডা প্রবাসী আলাউদ্দিনের বাসার কেয়ারটেকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। রবিবার রাত ৮টার দিকে কয়েকজন লোক বাসা থেকে আনিক আলীকে ডেকে নিয়ে যায়। রাত গভীর হয়ে গেলেও আনিক আলী বাসায় ফেরেননি।

পরিবারের লোকজন তাকে খোঁজাখুঁজি করে তার কোন সন্ধান না পেয়ে ওসমানীনগর থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বাসার পানির ট্যাঙ্কি থেকে হাত-পা বাঁধা মুখ থেঁতলানো অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি সোমবার সকালে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে পুলিশ।

ফরিদপুরে নৌকার সমর্থক

নিজস্ব সংবাদদাতা ফরিদপুর থেকে জানান, নির্বাচনের ভোট গ্রহণের ঠিক আগে ফরিদপুরের সালথা উপজেলার ভাওয়াল ইউনিয়নের পুররা গ্রাম থেকে সোমবার ভোরের দিকে নূরুল ইসলাম মোল্যা ওরফে নূর (৩৮) নামে এক নৌকা সমর্থকের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। নূরুল ইসলাম ওই গ্রামের ধলা মোল্যার ছেলে এবং তিনি কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন।

তিনি সোমবার অনুষ্ঠিত সালথা উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী দেলোয়ার হোসেনের পক্ষে কাজ করছিলেন। এই উপজেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে এবং নৌকা এবং বিদ্রোহী প্রার্থী ওদুদ মাতুব্বরের মধ্যে প্রায়ই মারামারি হয়েছে। নূরুল ইসলামের ভাই আবুল হাসান জানান, গভীর রাতে অজ্ঞাত ব্যক্তির ডাকে আমার ভাই ঘর থেকে বের হয়ে যান। পরে আমরা তাকে খুঁজতে বেরিয়ে তার লাশ বসতঘরের পেছনে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেই। তিনি বলেন, আমার ভাইকে এর আগেও মারধর করা হয়েছিল। আমরা জানি না কে বা কারা আমার ভাইকে মাথায় রড দিয়ে আঘাত করে মেরে ফেলতে পারে।

নির্বাচিত সংবাদ