২৩ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বগুড়ায় নিরীহ ছাত্রদের অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়

স্টাফ রিপোর্টার, বগুড়া অফিস ॥ বগুড়ায় নতুন ধরনের অপহরণকারী চক্রের তৎপরতা শুরু হয়েছে। এই চক্র স্কুল কলেজের নিরীহ ছাত্রদের কৌশলে অপহরণ করে কম পরিমাণ মুক্তিপণের টাকা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে অভিভাবকদের নিকট থেকে আদায় করছে। এধরনের অপহরণের ঘটনা হয়েছে মঙ্গলবার দুপুরে শহরের কেন্দ্রস্থল সাতমাথা এলাকার একটি কলেজের সামনে। পরে শহরের ঠনঠনিয়া এলাকা থেকে রিদোয়ান রিয়াদ (১৭) নামে অপহৃত ওই ছাত্র উদ্ধার ও রমজান (২০) নামে অপহরণকারী চক্রের এক সদস্যকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

পুলিশ জানায়, সম্প্রতি নতুন কৌশল অবলম্বনকারী এই অপহরণকারী চক্রের হাতে ৩/৪টি অপহরণের ঘটনা তাদের নজরে এসেছে। অপহরণকারীরা ২০ থেকে ২৫ হাজার মুক্তিপণের টাকা বিকাশের মাধ্যমে নিয়ে অপহৃতদের ছেড়ে দেয়। শহরের স্টেডিয়াম পুলিশ ফাঁড়ি সূত্র জানায় এধরনের অপহরণকারী চক্রের তৎপরতা জানার পর এর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বগুড়া সদর থানার ওসি জানান, এটি নতুন নয়, এধরনের ঘটনায় ইতোপূর্বে কয়েকটি মামলা হয়েছে। সূত্র জানায়, অপহরণকারীরা স্কুল কলেজের কমবয়সীয় অপেক্ষাকৃত নিরীহ শিক্ষার্থীদের টার্গেট করে অনুসরণের পর কৌশলে ডেকে অপহরণ করে। মঙ্গলবার অপহরণের শিকার রিয়াদের পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে রিয়াদ বগুড়া পলিটেকনিকের প্রথম বর্ষের ছাত্র। দুপুরে সে ইজিবাইকে কলেজ থেকে সাতমাথায় নামার পর এক যুবক তাকে বলে সে কলেজে কেন ঝামেলা করেছে। এঘটনা শুনে রিয়াদ বিস্মিত হয়ে যায়। পরক্ষণেই ওই যুবক ঝামেলা মেটানোর কথা বলে রিয়াদকে সাতমাথা এলাকা থেকে রিক্সায় উঠিয়ে কয়েক স্থানে নেয়ার পর বগুড়া মোহাম্মাদ আলী হাসপাতালের পিছনের সড়কে নিয়ে গেলে তার সন্দেহ হয়।

ওই সময় সেখানে আরও কয়েকজন ছিল। এ সময় সে চিৎকার করলে ঘটনাস্থল দিয়ে যাওয়া একটি ফাঁড়ি পুলিশের একটি টিম তাকে উদ্ধার ও অপহরণকারী চক্রের সদস্য রমজানকে আটক করে।